kalerkantho

মঙ্গলবার । ২১ মে ২০১৯। ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৫ রমজান ১৪৪০

ইউএনওর হস্তক্ষেপে একদিনে চার বাল্যবিয়ে রদ

রাজৈর (মাদারীপুর) প্রতিনিধি   

১৮ এপ্রিল, ২০১৯ ১৫:৪৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ইউএনওর হস্তক্ষেপে একদিনে চার বাল্যবিয়ে রদ

মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার ত্বরিত হস্তক্ষেপে একই দিনে চার স্কুলছাত্রী বাল্যবিয়ের হাত থেকে রক্ষা পেয়েছে। এ ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে দুই কনের অভিভাবককে ৫ হাজার টাকা করে জরিমানা করেন এবং অন্য দুই কনের বাবা মুচলেকা দিয়ে রেহাই পেয়েছে। 

রাজৈর ইউএনও অফিস সূত্র জানায়, গোপন সূত্রে খবর পেয়ে বুধবার (১৭.০৪.২০১৯) বিকালে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সোহান নাসরিন পাইকপাড়া ইউনিয়নের নয়াকান্দি কাশিমপুর গ্রামের ফারুক খানের মেয়ে এবং স্থানীয়  মাদরাসার নবম শ্রেণির ছাত্রী স্মৃতির বিয়ের খবর পেয়ে অভিযান চালায়। মেয়ের বয়স ১৮ বছর পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত বিবাহ বন্ধ রাখবে মর্মে মুচলেকা রেখে মেয়ের বাবাকে ছেড়ে দেন।  

একই দিন ইশিবপুর গ্রামের মজিবর কারিকরের কন্যা ও ইশিবপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী লিজা আক্তারের বিবাহের দিন ধার্য ছিল। তা-ও বন্ধ করে মুচলেকা রেখে বাবাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

বুধবার সন্ধ্যার পর আমগ্রামের মনি মোহন বৈদ্যর কনন্যা ও আমগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী তিথীর বিবাহের আয়োজন চলছিল। করিৎকর্মা ইউএনও পুলিশ নিয়ে সেখানেও হাজির হন। বিবাহ বন্ধ করে কনের বাবাকে পুলিশ দিয়ে ধরে নিয়ে আসেন এবং একই সময় একই গ্রামের হরিপদ ওঝার কন্যা ও আমগ্রাম উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী দোলা ওঝারও বিবাহের প্রস্তুতি চলছিল। খবর পেয়ে ইউএনও সেখানেও হাজির হয়ে বিয়ে বন্ধ করে মেয়ে এবং মেয়ের বাবাকে আটক করে রাত ৮টার সময় উপজেলায় নিয়ে আসেন। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে বাল্যবিবাহ নিরোধ আইনে উভয় অভিভাবককে ৫০০০ টাকা করে ১০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় ও মেয়ের বয়স ১৮ বছর পার না হওয়া পর্যন্ত বিবাহ দেবে না মর্মে মুচলেকা রেখে ছেড়ে দেন।

মন্তব্য