kalerkantho

মঙ্গলবার । ২২ অক্টোবর ২০১৯। ৬ কাতির্ক ১৪২৬। ২২ সফর ১৪৪১            

চলতি মাসে প্রাণ গেছে চারজনের

গফরগাঁওয়ে যানবাহন চলছে শৃঙ্খলাহীন, বেপরোয়া

গফরগাঁও (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি   

২৫ মার্চ, ২০১৯ ১২:০৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



গফরগাঁওয়ে যানবাহন চলছে শৃঙ্খলাহীন, বেপরোয়া

ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে ট্রাফিক আইন সম্পর্কে অজ্ঞ, প্রশিক্ষণবিহীন চালক, ফিটনেসবিহীন, অনুমোদনহীন বেপরোয়া যানবাহনের কারণে মানুষের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। প্রতিদিন উপজেলার অভ্যন্তরীণ সড়কগুলোতে অসংখ্য ব্যাটারিচালিত অটোবাইক, সিএনজিচালিত গাড়ি, পিকআপ-মাহেন্দ্র, ট্রাক্টর-লরি, নছিমন-করিমন, মোটরসাইকেল বেপরোয়া চলাচল করে। চলতি মাসের এক সপ্তাহে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে সড়ক দুর্ঘটনায় কলেজ শিক্ষার্থী ও শিশুসহ চারজনের প্রাণহানি হয়েছে। এ ব্যাপারে উপজেলা, পৌর বা থানা প্রশাসনের কার্যকর পদক্ষেপ না থাকায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যাচ্ছে। সাধারণ মানুষ হয়ে পড়েছেন অসহায়।

জানা যায়, পৌরশহরসহ উপজেলার প্রতিটি সড়কে অসংখ্য ব্যাটারিচালিত অটোবাইক, সিএনজিচালিত গাড়ি, পিকআপ ভ্যান-মাহেন্দ্র, নছিমন-করিমন, ট্রাক্টর-লরি, মোটরসাইকেল বেপরোয়াভাবে চলাচল করে। কিন্তু চালকদের ট্রাফিক আইন সম্পর্কে ন্যূনতম জ্ঞান ও গাড়ি চালনায় কোনো প্রশিক্ষণ না থাকায় প্রায়ই দুর্ঘটনায় প্রাণহানি ঘটছে। 

চলতি মার্চ মাসের ১১ তারিখ থেকে ১৭ তারিখ পর্যন্ত সাত দিনে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় কলেজ শিক্ষার্থী, শিশুসহ চারজনের প্রাণহানি ঘটেছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলার অভ্যন্তরীণ সড়কে চলাচলকারী কোনো গাড়িরই নিবন্ধন, ফিটনেস সনদ, বৈধ অনুমোদন, চালকদের প্রশিক্ষণ বা ট্রাফিক আইন সম্পর্কে ন্যূনতম জ্ঞান নাই। যে কেউ চাইলেই যখন-তখন গাড়ি নিয়ে রাস্তায় চালানো শুরু করে। তবে কোথাও কোনো দুর্ঘটনা ঘটলেই স্থানীয় কিছু লোক সমঝোতার নামে ঘটনাটি ধামাচাপা দেন।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক স্কুলশিক্ষক দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, পৌরশহরের প্রধান সড়কের পাশে ৮-১০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, সকল সরকারি অফিস, থানা, পৌরসভা কার্যালয় অবস্থিত। এই সড়ক দিয়ে স্কুল-কলেজের শত শত শিক্ষার্থীসহ পথচারীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করেন। বেপরোয়া যানবাহন, বিশাক্ত ধোঁয়া, ধূলাবালিতে বায়ুদূষণ আর শব্দদূষণে আস্তে আস্তে মানুষ বধির হয়ে যাচ্ছে। কিন্তু প্রশাসনের এ ব্যাপারে কোনো মাথাব্যথা নেই।

গফরগাঁও থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মনিরুল ইসলাম বলেন, শুধু আইন দিয়ে এ সমস্যা সমাধান করা যাবে না। আইন সঠিকভাবে কেউ মানে না। তাই প্রশাসনের সহযোগিতা ও জনপ্রতিনিধিদের উদ্যোগে জনসচেতনতা সৃষ্টি করে এ অবস্থা অনেকটাই নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা