kalerkantho

মঙ্গলবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১২ রবিউস সানি     

কক্সবাজারে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ৩

নিজস্ব প্রতিবেদক, কক্সবাজার ও টেকনাফ প্রতিনিধি    

২৩ মার্চ, ২০১৯ ০২:২১ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



কক্সবাজারে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ৩

কক্সবাজারের টেকনাফে গতকাল শুক্রবার একদিনেই পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে তিন ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। নিহতদের দুইজন টেকনাফে এবং একজন কক্সবাজার সদরে। টেকনাফে নিহতদ্বয় ইয়াবা কারবারি এবং কক্সবাজার সদরে নিহত ব্যক্তি একজন পর্যটক হত্যাকারী বলে পুলিশ জানিয়েছে। 

নিহতরা হচ্ছেন- টেকনাফ সদর ইউনিয়নের নাজির পাড়া এলাকার এজাহার মিয়ার ছেলে তালিকাভুক্ত ইয়াবা কারবারি ও সাংবাদিকের ওপর হামলার মামলার অন্যতম আসামি নুর মোহাম্মদ এবং জালিয়া পাড়া গ্রামের আব্দুর শুক্কুরের ছেলে ইয়াবা কারবারি নুরুল আমিন। 

অপরদিকে কক্সবাজার সদরে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ব্যক্তি শহরের মোহাজের পাড়ার মোহাম্মদ আলীর ছেলে কোরবান আলী। নিহত কোরবান আলী কক্সবাজার সৈকতে বেড়াতে আসা পর্যটক আবু তাহের সাগর হত্যা মামলার আসামি।

গতকাল শুক্রবার ভোর রাতে টেকনাফ উপজেলার রাজারছড়া পাহাড়ি এলাকায় এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে। এ সময় পুলিশের ৫ সদস্য আহত হয়েছে। এসময় ৮টি দেশে তৈরি অস্ত্র, ২০ হাজার পিস ইয়াবা ও ২০টি তাজা কার্তুজ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

টেকনাফ মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ প্রদীপ কুমার দাশ বলেন, দুই ইয়াবা কারবারিকে ধরে এনে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। তাদের স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে উভয় কারবারিসহ রাজারছড়া পাহাড়ি এলাকায় ইয়াবা উদ্ধারে যায় পুলিশ। এ সময় পাহাড়ি আস্তানায় লুকিয়ে থাকা ইয়াবা পাচারকারী ও সন্ত্রাসীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করে। পুলিশও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলি চালালে সন্ত্রাসীরা পিছু হটে। পরে সেখানে তল্লাশি করে দুইজনকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করে।

নিহত নূর মোহাম্মদের বিরুদ্ধে হত্যাসহ বিভিন্ন অভিযোগে ১০টি ও নুরুল আমিনের বিরুদ্ধে পুলিশের ওপর হামলা, সাংবাদিক হামলা মামলা, অর্থপাচার, বিশেষ ক্ষমতা আইনসহ ৩টি মামলা রয়েছে।

অপরদিকে কক্সবাজারের খুরুশকুলে ডিবি পুলিশের সঙ্গে এক বন্দুকযুদ্ধে শুক্রবার ভোরে নিহত হয়েছে পর্যটক হত্যা মামলার পলাতক আসামি কোরবান আলী। জেলা ডিবি পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হুমায়ূন কবির এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

মৃতদেহ ৩টি ময়না তদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে বলে জানায় পুলিশ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা