kalerkantho

বুধবার । ১৬ অক্টোবর ২০১৯। ১ কাতির্ক ১৪২৬। ১৬ সফর ১৪৪১       

মাদক বিরোধী সমাবেশে কক্সবাজারের পুলিশ সুপার

ইয়াবা কারবারিদের ভোট দেবেন না

নিজস্ব প্রতিবেদক, কক্সবাজার   

২২ মার্চ, ২০১৯ ২৩:৩৬ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ইয়াবা কারবারিদের ভোট দেবেন না

ছবি: কালের কণ্ঠ

চলমান উপজেলা পরিষদ নির্বাচনসহ কোনো নির্বাচনেই ইয়াবা কারবারিদের ভোট না দিতে আহবান জানিয়েছেন কক্সবাজারের পুলিশ সুপার (এসপি) এ বি এম মাসুদ হোসেন। একজন ইয়াবা কারবারি জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হয়ে কখনো সমাজের মঙ্গল বয়ে আনতে পারবে না। তাদের দিয়ে কখনো ইয়াবা দমনও সম্ভব হবে না বলেও জানান তিনি।

আজ শুক্রবার বিকালে টেকনাফের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুর বাজারে টেকনাফ মডেল থানা কতৃক আয়োজিত মাদক, জঙ্গি, সন্ত্রাস, দূর্নীতি বিরোধী সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা পুলিশ সুপার এ বি এম মাসুদ হোসেন (বিপিএম) এই সব কথা বলেন।

পুলিশ সুপার বলেন, ইয়াবা কারবারিদের ধ্বংস অনিবার্য। তারা যতই কৌশল অবলম্বন করুক আইনের হাত থেকে রেহাই পাবে না। তাদেরকে আকাশ থেকে মাটিতে নামানো হবে। ইয়াবা বিক্রি করে তাদের অর্জিত সব সম্পদ বাজেয়াপ্ত করা হবে। তাদের পরিবারের কাউকে এই সম্পদ ভোগ করতে দেওয়া হবে না।

উক্ত সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন টেকনাফ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত (ওসি) কর্মকর্তা প্রদীপ কুমার দাশ (বিপিএম, পিপিএম (বার)।

কক্সবাজারের জেলা পুলিশ সুপার তার বক্তব্যে আরো বলেন- ‘টেকনাফ উপজেলায় কয়েকদিন পর উপজেলা পরিষদের নির্বাচন। এই নির্বাচনে ভোট গ্রহণ অত্যন্ত সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হবে। পাশাপাশি টেকনাফের জনগণের কাছে একটি অনুরোধ আপনারা কোনো ইয়াবা কারবারিকে ভোট দেবেন না। একজন ইয়াবা কারবারি জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হয়ে কখনো সমাজের মঙ্গল বয়ে আনতে পারবে না। তাদের দিয়ে কখনো ইয়াবা দমন সম্ভব হবে না।’ 

পুলিশ সুপারের এমন বক্তব্যকে করতালি দিয়ে স্বাগত জানান উপস্থিত জনতা। আর যারা ইয়াবা কারবারি জড়িত হয়ে এখনো আত্মসমর্পণ করেননি তাদের সাবধান করে দেওয়া হচ্ছে। সময় থাকতে আলোর পথে ফিরে আসুন। নাহলে পরিণাম হবে খুব ভয়াবহ।

পুলিশ সুপার আরো বলেন, আমরা চাই না কোনো মায়ের বুক খালি হোক, কোনো স্ত্রী বিধবা হোক, কোনো সন্তান এতিম হোক। কিন্তু দেশকে বাঁচাতে দেশের যুব সমাজকে বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রী মাদকের বিরুদ্ধে যে জিরোট্রলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছে আমরা মূলত সে পথ দিয়ে এগিয়ে যাব। এতে কেউই রেহাই পাবে না।

পুলিশ সুপার স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, পাশের মাদক কারবারিদের ধরা না দিয়ে সহযোগিতা করে তাহলে তাদেরকেও কোমরে রশি বেঁধে আইনের আওতায় আনা হবে। আর স্থানীয় পাহাড়ে যারা অস্ত্রবাজি করেন সন্ত্রাসী কাজ করেন আপনারা এগুলো পরিহার করুণ। না হলে পুলিশ অস্ত্র নিয়ে গুটিয়ে বসে থাকবে না। জননিরাপত্তায় পুলিশ অবশ্যই সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে অস্ত্র চালাবে বলে হুঁশিয়ারি করেন।

সভায় টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ ইয়াবা কারবার এবং কারবারিদের বন্দুকযুদ্ধে প্রাণহানির ঘটনা নিয়ে প্রায় এক ঘন্টা ধরে বক্তৃতা করেন। এমনকি ইয়াবা আসক্ত হয়ে দেশের মেধাবী শিক্ষার্থীদের জীবন কিভাবে তিলে তিলে ক্ষয় হয়ে যাচ্ছে তা নিয়ে অনেকগুলো ঘটনার বিবরণ দেন। যাতে উপস্থিত দর্শক-শ্রোতাদেরও নাড়া দিয়েছে।

এ ছাড়া উক্ত সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন কক্সবাজার জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. ইকবাল হোসাইন, বাহারছড়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ আনোয়ারুল ইসলাম, শামলাপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাষ্টার এম, আবুল মনজুর, অভিনেতা ইলিয়াছ কোবরা, শামলাপুর কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের খতীব ক্বারী ইউছুফ জামিল, ইউপি সদস্য আজিজুল ইসলাম আয়াছ কোম্পানিসহ প্রমুখ।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা