kalerkantho

বুধবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৩ রবিউস সানি     

চাঁপাইনবাবগঞ্জে টগর হত্যা মামলায় একজনের মৃত্যুদণ্ড

সাতজনের বিভিন্ন মেয়াদে সাজা

চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি   

২০ মার্চ, ২০১৯ ১৮:১০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চাঁপাইনবাবগঞ্জে টগর হত্যা মামলায় একজনের মৃত্যুদণ্ড

চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর উপজেলার চাঞ্চল্যকর শামসুদ্দিন টগর হত্যা মামলার রায়ে একজনকে মৃত্যুদণ্ড, চারজনকে যাবজ্জীবন এবং অপর তিন আসামিকে দুই বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

আজ বুধবার দুপুরে চাঁপাইনবাবগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক শওকত আলী আসামিদের উপস্থিতিতে এই রায় প্রদান করেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি হলেন চাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুর উপজেলার পূর্ব জগত গ্রামের আবুল কালামের ছেলে রবিউল ওরফে রবু। যাবজ্জীবন দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলো, নওগাঁ জেলার নিয়ামতপুর উপজেলার মঙ্গলতারা গ্রামের কাদের, সামশুল, সাম মোহাম্মদ ও আপেল। এ ছাড়া দুই বছর করে কারাদণ্ড প্রাপ্ত আসামিরা হলো, মঙ্গলতারা গ্রামের এনামুল, আইনাল ও শরিফ। 

মামলার বিবরণে জানা গেছে, ২০১৩ সালের ২২ জানুয়ারি সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে শামসুদ্দিন টগর পার্শ্ববর্তী গোমস্তাপুর উপজেলার এনায়েতপুর বাজার থেকে মোটরসাইকেল যোগে বাড়ি ফেরার পথে জমি-জমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে রবিউল ও তার ভাই কাদেরসহ আরো ১০/১৫ জন ব্যক্তি তার পথ আটকায়। এ সময় তারা শামসুদ্দিনকে ধারালো অস্ত্র, লাঠি ও বল্লম দিয়ে মাথায় ও শরীরে এলোপাথাড়ীভাবে আঘাত করে। পরে গুরুতর আহত শামসুদ্দিন টগরকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২০১৩ সালের ২৩ জানুয়ারি ভোরে তিনি মারা যান।

এ ঘটনায় নিহত শামসুদ্দিনের বড় ভাই জমসেদ আলী ওইদিনই ২২ জনকে আসামি করে গোমস্তাপুর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। একই বছরের ৪ এপ্রিল মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই নূর মোহাম্মদ আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জজ আদালতের অতিরিক্তি পাবলিক প্রসিকিউটর (এপিপি) অ্যাডভোকেট আঞ্জুমান আরা জানান, সাক্ষ্য প্রমাণাদি শেষে বুধবার দুপুরে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ শওকত আলী আলোচিত এই হত্যা মামলার রায় প্রদান করেন। রায়ে রবিউলকে মৃত্যুদণ্ড, অনাদায়ে এক লাখ টাকা জরিমানা ও চার জনকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড ও প্রত্যেককে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা এবং অপর ৩ জনকে দুই বছরের কারাদণ্ড অনাদায়ে প্রত্যেককে ৫ হাজার টাকা জরিমানা প্রদান করে আদালত। মামলার বাকী আসামিদের বেকুসুর খালাস প্রদাণ করা হয়েছে।

সরকারি পক্ষে মামলা পরিচালনা করেন এপিপি অ্যাডভোকেট আঞ্জুমান আরা। আসামি পক্ষের আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট আব্দুল হামিদ, গোলাম কবির ও ইসমাঈল হোসেন। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা