kalerkantho

রবিবার । ০৮ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১০ রবিউস সানি ১৪৪১     

ক্রিকেট খেলাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ, যুবক গুলিবিদ্ধ

চান্দিনা (কুমিল্লা) প্রতিনিধি   

১৯ মার্চ, ২০১৯ ২৩:০৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ক্রিকেট খেলাকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ, যুবক গুলিবিদ্ধ

কুমিল্লার চান্দিনায় ক্রিকেট খেলাকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষে ইউনিয়ন পরিষদ মেম্বারের গুলিতে শাহিন মুন্সি (২২) নামে এক যুবক গুলিবিদ্ধ হয়েছে। এ ঘটনায় ইউপি মেম্বারের মা ও বোনকে আটক করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (১৯ মার্চ) দুপুর ১টায় চান্দিনা উপজেলাধীন বাতঘাসী ইউনিয়নের শব্দলপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। 

আহত যুবক শাহিন মুন্সি ওই গ্রামের এমদাদ মুন্সির ছেলে। এ ঘটনায় চান্দিনা থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এতে ওই ইউনিয়নের মেম্বার ফারুক স্বর্ণকারসহ ৯ জনকে আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে আটক করা হয় তার মা নূরজাহান বেগম ও বোন হালিমা বেগমকে।

প্রত্যক্ষদর্শী সাজেদা আক্তার জানান, সোমবার (১৮ মার্চ) বিকেলে বাড়ির পাশে ক্রিকেট খেলাকে কেন্দ্র করে শাহিন মুন্সির সঙ্গে একই এলাকার ফারুক স্বর্ণকার মেম্বারের ছেলে শামীমের সঙ্গে ঝগড়া হয়। ওই ওই ঝগড়ার রেশ ধরে মঙ্গলবার (১৯ মার্চ) দুপুর ১টায় ফারুক স্বর্ণকারের ছেলে আরো কয়েকজন লোক নিয়ে আমাদের বাড়িতে এসে প্রথম শাহিন মুন্সির বড় বোন অন্তঃসত্ত্বা সালমাকে মারধর করে। 

এ সময় শাহিন মুন্সিসহ বাড়ির লোকজন বাধা দিয়ে তাদেরকে ধাওয়া করে। পরবর্তীতে ফারুক মেম্বার, তার ভাই মোর্শেদসহ আরো অনেক লোকজন এসে মারধর শুরু করে এক পর্যায়ে ঘরে ঢুকে দুই রাউন্ড গুলি ছুড়ে। এ সময় তাদের গুলিতে শাহিন পেটে গুলিবিদ্ধ হয়। তার বোন সালমাও আহত হয়। আহত শাহিন বর্তমানে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। 

চান্দিনা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ আবুল ফয়সল জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে ২ রাউন্ড গুলির খোসা উদ্ধার করা। এ ঘটনায় আহত শাহিনের বড় চাচা শাহজাহান মুন্সি বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করছেন। ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ফারুক মেম্বারে মা ও বোনকে আটক করা হয়েছে।

এদিকে সরেজমিনে শব্দলপুর এলাকায় গেলে নাম প্রকাশ না করা শর্তে একাধিক বাসিন্দা জানান, বাতাঘাসী ইউনিয়নের ওয়ার্ড মেম্বার ফারুক স্বর্ণকার দীর্ঘদিন যাবৎ এলাকায় প্রভাব বিস্তার করে আসছেন। তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে সংঘর্ষ সৃষ্টি হলেই তিনি অবৈধ অস্ত্রের ঝনঝনানি দিয়ে এলাকায় ত্রাস সৃষ্টি করেন। তার এমন অভিযোগ এলাকার সর্বস্তরের মানুষের মুখে মুখে। তাদের কাছ থেকে অবৈধ ওই অস্ত্রগুলো উদ্ধারের দাবি জানান এলাকাবাসী।

তবে এ বিষয়ে ফারুক স্বর্ণকারের মোবাইল ফোনে কল করলে তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা