kalerkantho

মঙ্গলবার । ২২ অক্টোবর ২০১৯। ৬ কাতির্ক ১৪২৬। ২২ সফর ১৪৪১              

তিন দিনের ছুটিতে পর্যটকে সয়লাব কক্সবাজার

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১৬:২০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



তিন দিনের ছুটিতে পর্যটকে সয়লাব কক্সবাজার

ফাইল ফটো

তিন দিনের ছুটিতে বিশ্বের দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকতের শহর কক্সবাজারে পর্যটকদের ব্যাপক ভিড় হয়েছে। ২১শে ফেব্রুয়ারি ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের ছুটির সঙ্গে সরকারি ছুটি যোগ হয়ে গত বৃহস্পতিবার (২১ ফেব্রুয়ারি) থেকে কক্সবাজারে বিপুল সংখ্যক পর্যটক আসা শুরু করে।

বাড়তি ভিড় সামলাতে শহরের হোটেল-মোটেল, গেস্ট হাউস ও রেস্তোরাঁ কর্তৃপক্ষ হিমশিম খাচ্ছে। চলতি পর্যটন মৌসুমে এত বিপুল সংখ্যক পর্যটকের সমাগম এই প্রথম। যে কারণে এখানকার প্রায় চারশ’ হোটেল-মোটেল, গেস্ট হাউসে রুম খালি না থাকায় হাজার হাজার পর্যটক রাত কাটাচ্ছেন রাস্তার ধারে, সমুদ্র সৈকতে, খোলা আকাশের নিচে, অনেকে বাসের ভেতর। তবুও ভ্রমণে এসে এ ধরনের বিড়ম্বনার পরেও আনন্দের যেন কমতি নেই।

আবহাওয়া অনুকূল এবং নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করায় সৈকত ছাড়াও আশপাশের বিনোদন কেন্দ্রগুলোতেও প্রিয়জনদের সঙ্গে নিয়ে ভিড় করছেন পর্যটকরা।

গত বৃহস্পতিবার থেকে শনিবার পর্যন্ত প্রায় সাড়ে তিন লাখ পর্যটক কক্সবাজার ভ্রমণে এসেছে বলে জানিয়েছে কক্সবাজার টুরিস্ট পুলিশ সূত্র। নিরাপত্তা নিশ্চিতে পোশাকধারী ও সাদা পোশাকে দায়িত্ব পালন করছে টুরিস্ট পুলিশের সদস্যরা। এছাড়া বীচ বাইক, বাইসাইকেল, জেডেস্কি টহলসহ বিভিন্নভাবে পর্যটকদের নিরাপত্তা দিয়ে যাচ্ছে।

শুধু কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতই নয়, দেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপ সেন্টমার্টিন, বৌদ্ধ বিহারের শহর রামু, হিমছড়ি, ইনানী, মহেশখালী, সোনাদিয়া ও ডুলাহাজারা বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কসহ জেলার পর্যটন কেন্দ্রগুলোতেও বিভিন্ন বয়সী মানুষের উপচেপড়া ভিড় লেগে আছে।

বাড়তি পর্যটকের কারণে শহরের কলাতলী, সুগন্ধা,বাজার ঘাট, বার্মিজ মার্কেট এলাকাসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। যে কারণে পর্যটকসহ স্থানীয়দের চলাচলে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা