kalerkantho

মঙ্গলবার । ২২ অক্টোবর ২০১৯। ৬ কাতির্ক ১৪২৬। ২২ সফর ১৪৪১              

'সরকারি কর্মকর্তারা এখন মুক্তিযুদ্ধের চেতনা নিয়ে ভাবে'

ঈশ্বরদী (পাবনা) প্রতিনিধি   

২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০৫:০৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



'সরকারি কর্মকর্তারা এখন মুক্তিযুদ্ধের চেতনা নিয়ে ভাবে'

ছবি: কালের কণ্ঠ

সাবেক ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরিফ ডিলু এমপি বলেছেন, সরকারী কর্মকর্তা, কর্মচারী ও বুদ্ধিজীবীরা যেভাবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, স্বাধীনতার সার্বভৌমত্ব ও বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে যেভাবে চিন্তা করছে; তাদের আমার মতো রাজনীতিবিদদের আর মাঠে বক্তব্য দিতে হবে না। দেশের বুদ্ধিজীবিদের সৃজনশীলতা শিখতে হবে, তাঁরা এখন শিখছে। শুক্রবার রাত ৯টায় মহান একুশ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে দুই জেলার সীমান্তবর্তী পাবনা ঈশ্বরদীর মুলাডুলি ও নাটোর বড়াইগ্রাম রাজাপুর উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ছয় দিনব্যাপী ২০তম একুশে বইমেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য কালে তিনি এসব কথা বলেন। 

মুলাডুলি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বইমেলা উৎযাপন কমিটির সভাপতি সেলিম মালিথার সভাপতিত্বে উদ্বোধনী আলোচনা সভায় ডিলু আরো বলেন, নিজেকে চিনতে হলে একুশে চেতনা, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ করতে হবে। কারণ একুশের ভাষা আন্দোলনই ৭১ সালে এদেশের মানুষকে স্বাধীনতা এনে দিয়েছে। কারণ পাকিস্তান এদেশের মানুষকে ধর্মের ভয় দেখিয়ে রাখার চেষ্টা করেছিল। আর তাই পরবর্তিতে ভাষা আন্দোলনই স্বাধীনতা আন্দোলনের রূপ নেয়।

একুশে গ্রন্থাগারের আয়োজনে মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে ঈশ্বরদী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আহমেদ হোসেন ভূঁইয়া, বড়াইগ্রাম উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা আনোয়ার পারভেজ গোপালপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুস সালাম খান, রাজাপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এবিএম আশরাফুজ্জমান স্বপন, একুশে গ্রন্থাগারের সাধারণ সম্পাদক শামসুর রহমান শাহিন প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। পরে রাতে মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। 

উল্লেখ্য, ঢাকার একুশে বইমেলার পরই দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তর এই বই মেলায় পাবনা ও নাটোর জেলাসহ আশেপাশের জেলা ও থানার কয়েক হাজার বই প্রেমি মানুষদের মিলনমেলা ঘটে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা