kalerkantho

শনিবার । ১৬ নভেম্বর ২০১৯। ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ভালোবাসায় গড়া শহীদ মিনার

সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি   

২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ২৩:০৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ভালোবাসায় গড়া শহীদ মিনার

ফেব্রুয়ারি মাস এলেই মনের গহীন থেকে ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে ব্যাকুল হয়ে পড়েন। কোনো শহীদ মিনারে নয় নিজের মনের রংতুলিতে আঁকা শহীদ মিনার তৈরি করতে ব্যস্থ হয়ে পড়েন। এরপর ধীরে ধীরে বাঁশ, কাঠ, ককশিট দিয়ে তৈরি করেন অনন্য এক শহীদ মিনার। একুশের প্রথম প্রহরে ভাষা শহীদদের জানান বিনম্র শ্রদ্ধা।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের আদলে তৈরি ছোট্ট শহীদ মিনারটিতে ভাষা শহীদদের জয়ের তৃপ্তি লেগে আছে। মিনারের লাল সূর্য যেন মাতৃবাষার প্রভা ছড়াচ্ছে বিশ্বময়। শহীদ বেদিটি পরম যত্নে আল্পনা করা হয়েছে উপরে রঙিন কাগজের কারুকাজ যেন ভালবাসার রং ছড়িয়ে দিয়েছে। ভোর সকালে এলাকার কোমলমতি শিশুদের ভালবাসায় ফুলে ফুলে ভরে ওঠে শহীদ মিনারের বেদি।

এভাবেই আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ও শহীদ দিবস পালন করেন সোনারগাঁও পৌরসভার দক্ষিণ ষোলপাড়া গ্রামের তিন বোন মাহমুদা, রিয়া ও ঋতু এবং স্থানীয় শিশু কিশোররা।

শহীদ মিনারটি সম্পর্কে মাহমুদা বলেন, রফিক, জব্বার, সালাম, বরকতসহ আরো অনেক বীর বাঙালি মায়ের ভাষা রক্ষায় নিজেদের জীবন উৎসর্গ করেছেন। তাদের রক্তের ঋণ কখনো শোধ করা সম্ভব না। প্রতি বছর ২১ ফেব্রুয়ারি এলে বাজার থেকে ফুল কিনে সারা বছর অবহেলিত থাকা শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জানাতে আমার ভালো লাগে না। তাই নিজ হাতে যত্নে গড়া শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানিয়ে পরম তৃপ্তি পাই।

মাহমুদার কলেজ পড়ুয়া বোন ঋতু জানান, নিজেদের তৈরি শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদনের আনন্দ আর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধার বহিঃপ্রকাশ অকৃত্রিম। 

ফুল দিতে আসা পাশের গ্রামের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী রিহা জানান, এখানে ফুল দিয়ে বাজারের (সোনারগাঁ উপজেলা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার) শহীদ মিনার থেকে বেশী আনন্দ পাই।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা