kalerkantho

শুক্রবার । ১৫ নভেম্বর ২০১৯। ৩০ কার্তিক ১৪২৬। ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ইউএনওর হস্তক্ষেপে বাল্যবিয়ে বন্ধ, বরের এক মাসের জেল

ত্রিশাল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি   

২১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০১:৩৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ইউএনওর হস্তক্ষেপে বাল্যবিয়ে বন্ধ, বরের এক মাসের জেল

অষ্টম শ্রেণিতে পড়ুয়া কিশোরীকে সাজানো হয়েছিল বধূর সাঁজে। বর ও বরযাত্রীরা তখন ব্যস্ত ভুরিভোজে। এমন সময় বিয়ে বাড়িতে গিয়ে হাজির হন উপজেলা বাল্যবিয়ে ও যৌন হয়রানি প্রতিরোধ ব্রিগেড টিমের সমন্বয়ক ও পুলিশ। পরে বাল্যবিয়ের অপরাধে বরকে আটক করে এক মাসের জেল দেয় ভ্রাম্যমাণ আদালত। ঘটনাটি ময়মনসিংহের ত্রিশাল উপজেলার সদর ইউনিয়নের কোনাবাড়ী গ্রামে গতকাল বুধবার বিয়ের দিনে। 

ত্রিশাল নজরুল বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থীর বিয়ে ঠিক হয় পার্শ্ববর্তী ইউনিয়নের নওপাড়া গ্রামের আবদুল বারেকের ছেলে আশরাফুলের সঙ্গে। পূর্ব নির্ধারিত তারিখ অনুযায়ী বুধবার মেয়ের বাড়িতে চলছিল বিয়ের উৎসব। ওকে সাজানোও হয়েছিল বধূর সাঁজে। বাল্যবিয়ের খবর পৌঁছে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে। খবর পাওয়ার পর তিনি উপজেলা বাল্যবিয়ে ও যৌন হয়রানি প্রতিরোধ ব্রিগেড টিমের সমন্বয়ক রফিকুল আলম ও থানা পুলিশকে পাঠান ঘটনাস্থলে। যখন ভুরিভোজে ব্যস্ত বর ও বরযাত্রীরা, এমন সময় বিয়ে বাড়িতে গিয়ে হাজির হন ব্রিগেড টিমের সমন্বয়ক ও পুলিশ। 

পরে বাল্যবিয়ের অপরাধে বর আশরাফুল ও বাল্যবিয়ের আয়োজক মেয়ের ফুফা আবদুল কাদিরকে আটক করে নিয়ে আসে পুলিশ। পরে সন্ধ্যায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল জাকির ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে আশরাফুলকে এক মাসের জেল দেয় এবং বাল্যবিয়ের আয়োজক মেয়ের ফুফা আবদুল কাদিরকে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন। 

ত্রিশাল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল জাকির বলেন, বাল্য বিয়ের অভিশাপ থেকে দেশকে মুক্ত রাখতে এ ধরনের কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা