kalerkantho

সোমবার । ১৮ নভেম্বর ২০১৯। ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

চলে গেছেন শিক্ষার ফেরিওয়ালা এবিএম ইব্রাহিম মাস্টার

রায়পুরা (নরসিংদী) প্রতিনিধি   

১৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১৩:১৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চলে গেছেন শিক্ষার ফেরিওয়ালা এবিএম ইব্রাহিম মাস্টার

দিন তিনেক আগে শনিবার ভোর ৪টা ৪০ মিনিটে সবাইকে কাঁদিয়ে চলে যান প্রবীণ রাজনীতিবিদ আলহাজ্ব এবিএম ইব্রাহিম মাস্টার। তিনি নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলার চরাঞ্চলের সর্বজনশ্রদ্ধেয় এক গুণী শিক্ষক। বার্ধক্যজনিত কারণে ৮৫ বছর বয়সে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। বাঁশগাড়ি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জানাযা শেষে তাঁকে পারিবারিক কবরস্থানে চিরনিন্দায় শায়িত করা হয়েছে।

আলহাজ্ব এবিএম ইব্রাহিম মাস্টার পহেলা জানুয়ারি ১৯৩৪ সালে রায়পুরা উপজেলার বাঁশগাড়ি ইউনিয়নের বালুয়াকান্দি গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। গুণী এই ব্যক্তি গোটা উপজেলাতে ছোট-বড় সবার কাছে ইব্রাহিম মাস্টার নামেই পরিচিত ছিলেন। তিনি লেখাপড়া শেষ করে শিক্ষকতা পেশায় কর্মজীবন শুরু করেন। দীর্ঘ সময় ধরে শিক্ষকতা করছেন। চরাঞ্চলে  আলোর গতিতে ছড়িয়ে দিয়েছেন শিক্ষার আলো। তাঁর ছাত্র-ছাত্রীরা দেশ বিদেশে এখন প্রতিষ্ঠিত। যিনি শিক্ষার ফেরিওয়ালা তাঁকে কী এ থেকে দূরে রাখা সম্ভব! ১৯৯১ সালে শিক্ষকতা থেকে অবসর গ্রহণের পরও তিনি আমৃত্যু জড়িত ছিলেন বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সঙ্গে।

এবিএম ইব্রাহিম মাস্টার ছাত্রাবস্থায় জড়িয়ে পরেন রাজনীতির সঙ্গে। সক্রিয় ছিলেন তৎকালিন বাংলাদেশ মুসলিম লীগের রাজনীতিতে। ভালোবাসতেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর দল আওয়ামী লীগকে। তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মণ্ডলীর সদস্য ও টানা তিনবার ছিলেন বাঁশগাড়ি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি। পরে রাজনীতি থেকে স্বেচ্ছায় অবসর নেন।

ব্যক্তি জীবনে তিনি অত্যন্ত ধার্মিক ও পরোপকারী ছিলেন। তাঁর সহযোদ্ধা ছিলেন মুক্তিযোদ্ধের অন্যতম দুই সংগঠক চর এলাকার কৃত্বি সন্তান বীরমুক্তিযোদ্ধা সাইদুর রহমান ছন্দু মিয়া ও ইসলামপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা মুক্তিযোদ্ধা গয়েছ আলী মাস্টার।

এবিএম ইব্রাহিম মাস্টার শিক্ষকতা পেশায় বহুবার পদক ও সম্মানে ভূষিত হয়েছেন। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো ১৯৭৮ সালে শ্রেষ্ঠ শিক্ষক সম্মামনা পুরস্কার, ১৯৮৬ সালে উপজেলার শ্রেষ্ঠ শিক্ষক পদক।

তাঁর মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন নরসিংদী ৫ আসনের মাননীয় সংসদ সদস্য ও সাবেক ডাক ও যোগাযোগ মন্ত্রী রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজু। এছাড়া বিভিন্ন রাজনীতিক, সামাজিক সংগঠন ও সমাজের নানা শ্রেণীর মানুষ তাঁর মৃত্যুতে জানান গভীর শোক ও সমবেদনা। তাঁর অসংখ্য ছাত্র-ছাত্রী অশ্রুসিক্ত নয়নে প্রিয় শিক্ষাগুরুকে শেষ বিদায় জানান।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা