kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৫ অক্টোবর ২০১৯। ৩০ আশ্বিন ১৪২৬। ১৫ সফর ১৪৪১       

বোদা উপজেলা

টবির পথের কাঁটা কেবল সবুজ

পঞ্চগড় প্রতিনিধি    

১৮ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ২০:৪০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



টবির পথের কাঁটা কেবল সবুজ

পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলায় প্রতিদ্বন্দ্বী তিন প্রার্থীর মধ্যে দুজন মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নেওয়ায় এক প্রকার বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফারুক আলম টবি।

আজ সোমবার তার প্রতিদ্বন্দ্বী দুই প্রার্থী তাদের প্রার্থীতা প্রত্যাহার করে নেওয়ায় এমনটাই মনে করা হচ্ছে। যদিও মনোনয়ন বাতিল হওয়া আওয়ামী লীগের আরেক প্রার্থী মনোনয়ন ফিরে পেতে উচ্চ আদালতের আশ্রয় নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। উচ্চ আদালতে তার আপিল খারিজ হলে ফারুক আলম টবি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হবেন। এদিকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়ায় বোদায় মিষ্টি বিতরণও করেছে ফারুক আলম টবির সমর্থকরা।

জানা যায়, গত ১১ ফেব্রুয়ারি মনোনয়ন জমা দেওয়ার নির্ধারিত শেষ সময়ের বোদা উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র জমা দেন ৫ জন প্রার্থী। আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনীত প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ফারুক আলম টবি, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সাকোয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান সায়েদ জাহাঙ্গীর আলম সবুজ, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও বোদা বণিক সমিতির সভাপতি আজাহার আলী, আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ও ময়দানদীঘি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল জব্বার ও বোদা পৌর যুবদলের সাবেক আহ্বায়ক জাকির হোসেন মনোনয়নপত্র জমা দেন।

পরদিন মনোনয়ন যাচাই বাছাইয়ে এদের মধ্যে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী সাকোয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান সায়েদ জাহাঙ্গীর আলম সবুজ ও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ও ময়দানদীঘি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল জব্বার ইউপি চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদত্যাগ না করেই মনোনয়ন জমা দেওয়ায় তাদের মনোনয়নপত্র বাতিল করে যাচাই বাছাই কমিটি। বাকি ৩ জন প্রার্থীর মধ্যে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি ও বোদা বণিক সমিতির সভাপতি আজাহার আলী ও বোদা পৌর যুবদলের সাবেক আহ্বায়ক জাকির হোসেন সোমবার সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে তাদের মনোনয়ন পত্যাহারের আবেদন করেন।

এখন চেয়ারম্যান পদে কেবল আওয়ামী লীগের প্রার্থী ফারুক আলম টবি ছাড়া আর কোনো প্রার্থী প্রতিদ্বদ্বিতায় নেই। তাই স্থানীয়রা ধরেই নিয়েছেন ফারুক আলম টবি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন। যদিও আওয়ামী লীগের আরেক প্রার্থী সাকোয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান সায়েদ জাহাঙ্গীর আলম সবুজ প্রার্থীতা ফিরে পেতে উচ্চ আদালতের আশ্রয় নিবেন বলে জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, আমি উচ্চ আদালতে আপিল করার জন্য বর্তমান ঢাকায় রয়েছি। আমার অনুকূলে রায় পেলে নিশ্চয়ই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবো। যেহেতু কেন্দ্র থেকে দলীয় প্রার্থীর বিপরীতে নির্বাচনে এখন আর কোনো বাঁধা নেই।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং অফিসার আশরাফুল আলম জানান, বোদা উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে তিনজন প্রার্থীর মধ্যে দুই জন প্রার্থীতা প্রত্যাহারের আবেদন করায় মাত্র একজন প্রার্থী রয়েছেন। তবে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণার ক্ষেত্রে আমাদের সময় ও কিছু আনুষ্ঠানিকতা রয়েছে। তারপরেই তা ঘোষণা করা যাবে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা