kalerkantho

বৃহস্পতিবার  । ১৭ অক্টোবর ২০১৯। ২ কাতির্ক ১৪২৬। ১৭ সফর ১৪৪১       

মঠবাড়িয়ায় প্রতিপক্ষের হামলায় চার নারীসহ আহত ৭

অবরুদ্ধ করে ঘর তুলে জমি দখল!

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, পিরোজপুর   

১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ১৯:৫৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



মঠবাড়িয়ায় প্রতিপক্ষের হামলায় চার নারীসহ আহত ৭

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় হিন্দু পরিবারের সাত সদস্যকে পিটিয়ে আহত করে অবরুদ্ধ করে বিরোধীয় জমিতে ঘর তুলে দখল করেছে প্রতিপক্ষরা। জমির মালিকানা নিয়ে বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় একই হিন্দু পরিবারের ৪ নারীসহ আহত ৭ জন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

আজ শনিবার ভোর ৫ টার দিকে উপজেলার সাপলেজা ইউনিয়নের ঝাটিবুনিয়া গ্রামের একটি হিন্দু কৃষক পরিবারের ওপর এ হামলার ঘটনা ঘটে। এতে আহতরা হলেন, রেনু বালা, স্বপন হাওলাদার, সাথী রানী, হাসি রানী, মাধবী রানী খোকন হাওলাদার পিযুষ হাওলাদার।

আহত পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার সাপলেজা ইউনিয়নের ঝাটিবুনীয়া গ্রামের কৃষক সন্তোষ হাওলাদারের পরিবারের সাথে একই গ্রামের শাহজাহান মাতুবাবরের দীর্ঘ দিন ধরে জমির মালিকানা নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। এর জের ধরে শনিবার ভোর রাতে প্রতিপক্ষ শাহজাহান ৫০/৬০ জনের দলবলসহ লাটিসোটা ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে সন্তোষ হাওলাদারের বাড়িতে হামলা চালায়। এরপর হামলাকারীরা লাঠি দিয়ে ওই পরিবারটিকে বেধড়ক পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। হামলাকারীরা ওই পরিবারের ঘরের মালামাল তছনছ করে। পরে ওই পরিবারটিকে আহত অবস্থায় ঘরে অবরুদ্ধ করে রেখে বিরোধীয় জমিতে ঘর তুলে দখল নেয়।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মিরাজ মিয়া ঘটনা নিশ্চিত করে বলেন, হামলার খবর পেয়ে থানা পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে গেলে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে প্রতিপক্ষরা পালিয়ে যায়। পরে আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে ভার্ত করা হয়ং। এ ছাড়া দখলে নেওয়া জমির ঘর অপসারণ করা হয়।

এ ব্যাপারে প্রতিপক্ষ শাজাহান মাতুব্বর ওই জমির ওয়ারিশ রনজিৎ, বাবুল ও প্রমথদের কাছ থেকে  ক্রয় সূত্রে ওই জমির মালিকানা দাবি করে বলেন, হামলা-লুটপাটের ঘটনা মিথ্যা ও হয়রানিমূলক।

মঠবাড়িয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মো. শওকত আনোয়ার বলেন, জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে এ হামলার ঘটনা ঘটেছে। ঘটনা স্থল পরিদর্শন করা হয়েছে। 

মঠবাড়িয়া সার্কেল এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হাসান মোস্তফা স্বপন সরোজমিন পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের জানান, হামলার ঘটনাটি অমানবিক। এ ঘটনার সাথে জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর আইন গত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা