kalerkantho

মঙ্গলবার । ২২ অক্টোবর ২০১৯। ৬ কাতির্ক ১৪২৬। ২২ সফর ১৪৪১              

আক্কেলপুরে স্কুল ছাত্রীকে আটকে রাখার অভিযোগ

আক্কেলপুর (জয়পুরহাট) প্রতিনিধি   

১৫ জানুয়ারি, ২০১৯ ১৭:৪৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



আক্কেলপুরে স্কুল ছাত্রীকে আটকে রাখার অভিযোগ

জয়পুরহাটের আক্কেলপুরে স্কুলের ছাদ থেকে বরই পাড়ার অভিযোগে আয়েশা সিদ্দিকা (১২) নামে সপ্তম শ্রেণির এক ছাত্রীকে মাহফুজ আহম্মেদের বাড়িতে দেড় ঘণ্টা আটকে রাখার অভিযোগ উঠেছে।

ঘটনাটি ঘটেছে গত সোমবার দুপুরে জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলার তিলকপুর আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে। ওই ঘটনায় মঙ্গলবার বিকেলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সালাহ্উদ্দিন আহমেদের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছে স্কুল কর্তৃপক্ষ।

তিলকপুর আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের আয়েশা সিদ্দিকার সহপাঠিরা জানান, আয়েশা সিদ্দিকা সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী। ক্লাসে তার রোল নম্বর ৬৩। সোমবার দুপুর ১টায় স্কুলের দুপুরের বিরতির জন্য টিফিন দেয় স্কুল কর্তৃপক্ষ। এসময় আয়েশা সিদ্দিকা একা স্কুলের ছাদের উপর উঠে বরই পাড়তে। স্কুলের পাশে মাহফুজ আহম্মেদ এর বরই গাছের একটি বড় ডাল স্কুলের ছাদের উপরেই পড়েছিল। সেখান থেকে কয়েকটি বরই আয়েশা সিদ্দিকা পাড়ার সময় মাহফুজ আহম্মেদের স্ত্রী দুলালী বেগম দেখে ফেলে।

এর পরে কৌশলে দুলালী বেগম আয়েশাকে তাদের বাড়ির ভিতরে ডেকে নেয়। একপর্যায়ে তাকে বাড়ির একটি ঘরের মধ্যে শাস্তি হিসেবে আটকে রাখে। ওই দিন দুপুর ২টায় স্কুলের টিফিনের সময় শেষ হলে আয়েশা সিদ্দিকার সহপাঠিরা তাকে খোঁজ করে। তাকে ক্লাসে না পেয়ে বিষয়টি স্কুলের প্রধান শিক্ষক আমিরুল ইসলামকে জানায়।

পরে স্কুলের শিক্ষক ও তার সহপাঠিরা স্কুলের আশে পাশে খোঁজ করতে শুরু করে। এক পর্যায়ে আয়েশার সহপাঠি লিমা আক্তার, জাকিয়া, সুমি আক্তা, মিমসহ আরো কয়েকজন ছাত্রী স্কুলের পাশের ওই বাড়ির ভিতরে আয়েশাকে দেখতে পায়। এর পর তারা স্কুলের প্রধান শিক্ষক ও স্কুল পরিচালনা কমিটির সভাপতি সহিদুল ইসলামকে সঙ্গে নিয়ে ওই বাড়ির ভেতর থেকে আয়েশাকে উদ্ধার করে স্কুলে নিয়ে আসে। ওই ঘটনার পর থেকে ভয়ে মঙ্গলবার আয়েশা সিদ্দিকা স্কুলে আসেনি।    

স্কুল ছাত্রী আয়েশা সিদ্দিকার বাবা আবু বক্কর সিদ্দিক বলেন, আমার মেয়ে খুব সহজ সরল। স্কুলের ছাদের উপরে আসা বরই পাড়ার অপরাধে আমার মেয়েটিকে আটকিয়ে রাখা হয়েছিল নাকি অন্য কোনো উদ্দেশ্য ছিল আমি জানি না। মেয়েটিকে যদি তার সহপাঠি ও শিক্ষকেরা খুঁজে যদি না পাওয়া যেত তাহলে আমার মেয়েটির বড়ধরনের ক্ষতি হতে পারতো। আমি এর বিচার চাই।
 
তিলকপুর আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আমিরুল ইসলাম কালের কণ্ঠকে বলেন, স্কুলটির পাশে মাহফুজ আহম্মেদ এর একটি বরই গাছ আছে। সেই গাছের ডাল বিদ্যালয় ভবনের ছাদের উপর এসেছে। সেখানে সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী আয়েশা সিদ্দিকা গত সোমবার দুপুরে কয়েকটি বরই পেড়েছিল। এই অপরাধে তাকে কৌশলে বাড়ির ভিতর ডেকে নিয়ে আটকে রাখা হয়েছিল। খোঁজা খুঁজির দেড় ঘণ্টা পরে তাকে উদ্ধার করা হয়েছে। ওই ঘটনার পরে মেয়েটি ভয়ে আজ মঙ্গলবার স্কুলে আসেনি।

এ ব্যাপারে বরই গাছের মালিক মাহফুজ আহম্মেদের সাথে মুঠোফোনে মঙ্গলবার দুপুরে যোগাযোগ করে হলে তিনি এ বিষয়ে কালের কণ্ঠের কাছে কোনো বক্তব্য দিতে রাজি হননি।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার সালাহউদ্দিন আহমেদ বলেন, বরই পাড়া নিয়ে এক স্কুল ছাত্রীকে আটকে রাখার ঘটনায় একটি লিখিত অভিযোগ আজ মঙ্গলবার বিকেলে পেয়েছি। বিষয়টি দেখে দ্রুত ব্যবস্থা নিচ্ছি।

 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা