kalerkantho

বুধবার । ২১ আগস্ট ২০১৯। ৬ ভাদ্র ১৪২৬। ১৯ জিলহজ ১৪৪০

ধামরাইয়ে বিজয় দিবসে মুক্তিযোদ্ধাদের অবমূল্যায়ন করায় অনুষ্ঠান বর্জন

ধামরাই প্রধিনিধি   

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮ ১৯:৫০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঢাকার ধামরাইয়ে মহান বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল কালাম তার লিখিত বক্তব্যে বিভিন্ন শ্রেনি-পেশাজীবিদের নাম স্মরন করলেও মুক্তিযোদ্ধাদের যথাযথ মূল্যায়ন না করায় তারা ক্ষিপ্ত হয়ে অনুষ্ঠান বর্জন করেছে। তবে ইউএনও পরে মাইকে ঘোষণা দিয়ে তার বক্তব্যের কারনে দুঃখ প্রকাশ করেন। 

মুক্তিযোদ্ধা ও অনুষ্ঠানে উপস্থিত অতিথিদের কাছ থেকে জানা গেছে, ধামরাই হার্ডিঞ্জ সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজ মাঠে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে মহান বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানের সভাপতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল কালাম তার স্বাগতিক বক্তব্যে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশাজীবিদের নাম স্মরণ করলেও মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণে যারা শহীদ হয়েছে এবং যারা দেশ স্বাধীন করেছে তাদের মূল্যায়ন না করায় মুক্তিযোদ্ধারা অসন্তোষ প্রকাশ করে হৈচৈ করে উঠে সভাস্থল ত্যাগ করার চেষ্টা করে। এ সময় বর্তমান সংসদ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা এম এ মালেক ও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা বেনজীর আহমেদের হস্তপেক্ষে মুক্তিযোদ্ধারা শান্ত হয়। পরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল কালাম তার বক্তব্যের কারণে ত্রুটি হলে মাইকে ঘোষণা দিয়ে দুঃখ প্রকাশ করেন। পরবর্তীতে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী, পুলিশ ও আনসার বাহিনীর সদস্যরা তাদের কুচকাওয়াজ শুরু করলে অভিবাদন মঞ্চে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিনিধি না রাখায় পুনরায় অনুষ্ঠান বর্জন করে চলে যান প্রায় সাড়ে চারশত মুকিযোদ্ধা। 

এ বিষয়ে ধামরাই উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের কমান্ডার আবদুর রহমান বলেন, যাদের জন্য দেশ স্বাধীন হয়েছে তাদের অব্যমূল্যায়ন করেছে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল কালাম। এছাড়া তিনি বলেন, মহান বিজয় দিবসে মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা দেওয়ার কথা বলে উপজেলার প্রতিটি প্রতিষ্ঠান থেকে লাখ লাখ টাকা চাঁদা তুলেছে অথচ সেই ইউএনও আমাদের মূল্যায়নই করল না। 

এদিকে বর্তমান সংসদ সদস্য এমএ মালেক ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আমি ২৮ ডিসেম্বর পর্যন্ত সংসদ সদস্য পদে আছি। আর আমি যেহেতু নির্বাচন করছি না তাহলে আমাকে বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি করা উচিত ছিল ই্উএনও’র। 

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল কালাম বলেন, আমার বক্তব্যে কেউ অসন্তোষ হলে তার জন্য আমি দুঃখ প্রকাশ করেছি। 
এদিকে পৌরসভায় মেয়র গোলাম কবিরের নেতৃত্বে বিজয় মিছিল ও বিজয় দিবস পালন করেছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা