kalerkantho


জামালপুরে ১৫ লাখ টাকার বালু জব্দ, নিলামে বিক্রির আদেশ

জামালপুর প্রতিনিধি    

১৯ জুন, ২০১৮ ২১:২৩



জামালপুরে ১৫ লাখ টাকার বালু জব্দ, নিলামে বিক্রির আদেশ

জামালপুরে ব্রহ্মপুত্র নদের দুটি স্থানে অভিযান চালিয়ে অবৈধভাবে তোলা ১৫ লাখ ৪৫ হাজার টাকা মূল্যের বালু জব্দ করেছে জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত। একইসঙ্গে আদালত জব্দ করা বালু সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন ভূমি অফিসের জিম্মায় রেখে নিলামে বিক্রি করে রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা দেওয়ার আদেশ দিয়েছেন। আজ মঙ্গলবার সদর উপজেলার হামিদপুর বানারপাড় বালু মহালে এবং গতকাল সোমবারে খড়খড়িয়া পালপাড়া বালু মহালে এ অভিযান পরিচালনা করেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. মেহেদী হাসান। 

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, আজ মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১২টার দিকে সদর উপজেলার রানাগাছা ইউনিয়নের খড়খড়িয়া পালপাড়া বালু মহালে গিয়ে ব্রহ্মপুত্র নদ থেকে অবৈধভাবে ড্রেজার দিয়ে তোলা ২ লাখ ৪৭ হাজার ঘনফুট বালুর স্তূপ দেখতে পায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট মো. মেহেদী হাসান। এ সময় স্থানীয়রা কারা এই বালু তুলেছে তা নিশ্চিত করতে না পারায় আনুমানিক ১২ লাখ ৩৫ হাজার টাকা মূল্যের ওই বালু জব্দ করা হয়। পরে জব্দ করা বালু রানাগাছা ইউনিয়ন ভূমি অফিসের জিম্মায় রাখা হয়।

এর আগের দিন গতকাল সোমবার দুপুরে একই ভ্রাম্যমাণ আদালত শরিফপুর ইউনিয়নের বানারপাড় বালু মহালে গিয়ে ব্রহ্মপুত্র নদ থেকে অবৈধভাবে ড্রেজার দিয়ে তোলা ৬২ হাজার ঘনফুট বালুর স্তূপ দেখতে পায়। তাৎক্ষণিক বালু ব্যবসার সাথে যুক্ত কোনো দাবিদার না পাওয়ায় প্রায় ৩ লাখ ১০ হাজার টাকা মূল্যের বালু জব্দ করা হয়। পরে জব্দ করা বালু শরিফপুর ইউনিয়ন ভূমি অফিসের জিম্মায় রাখা হয়। এই দুই দিনে জব্দ করা বালু দ্রুত সময়ের মধ্যে প্রকাশ্যে নিলামে বিক্রি করে নিলাম ডাকের খরচ বাদে বাকি টাকা রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা দেওয়ার জন্য আদেশ জারি করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।
 
এ ব্যাপারে ভ্রাম্যমাণ আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট মো. মেহেদী হাসান কালের কণ্ঠকে বলেন, 'ব্রহ্মপুত্র নদ থেকে অবৈধভাবে ড্রেজার দিয়ে বালু তোলার ফলে নদের তীর ভাঙনের শিকার হয়, যা বালু মহাল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইন-২০১০ এর ৪ এর ‘গ’ ধারার লঙ্ঘন হয়েছে। এ কারণেই খড়খড়িয়া পালপাড়া ও বানারপাড় বালু মহালের বালু জব্দ করা হয়েছে।' 

তিনি আরো বলেন, 'জব্দ করা বালু প্রকাশ্যে নিলামে বিক্রি করে রাষ্ট্রীয় কোষাগারে টাকা জমা দেওয়ার জন্য সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) এস এম মাজহারুল ইসলামকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।'



মন্তব্য