kalerkantho

শুক্রবার । ৪ আষাঢ় ১৪২৮। ১৮ জুন ২০২১। ৬ জিলকদ ১৪৪২

রাগ করে বরিশাল ছাড়লেন মির্জা ফখরুল

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

২৬ জুলাই, ২০১৭ ২০:৪৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



রাগ করে বরিশাল ছাড়লেন মির্জা ফখরুল

ফাইল ছবি

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরে সাথে অসদাচারণের অভিযোগ উঠেছে বরিশাল সার্কিট হাউজ কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। বিএনপি এই শীর্ষ নেতা সেখানে ওঠার পরপরই স্যাটেলাইট টেলিভিশন সংযোগ বন্ধ করে দেওয়া হয়। এমনকি নিয়মমাফিক তাকে খাবারও পরিবেশন করা হয়নি। তাছাড়া ডাইনিংয়ে বসতেও তাকে নিষেধ করা হয়েছিল বলে বরিশাল বিএনপির পক্ষ থেকে সাংবাদিকদের কাছে অভিযোগ করা হয়েছে।

অভিযোগে বলা হয়, ওই সব কারণে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর নির্ধারিত সময়ের আগেই ঢাকার উদ্দেশে বরিশাল ছেড়েন। আজ বুধবার বেলা ১টার পরপরই তিনি সড়ক পথে বরিশাল ছাড়েন। দলীয় কর্মসূচি অনুযায়ী, ফখরুলের নৌপথে (লঞ্চযোগে) বরিশাল ছাড়ার কথা ছিল বুধবার রাত ৮টায়। সন্ধ্যায় হোটেল গ্রান্ডপ্রার্কে বরিশাল সিটি মেয়র আহসান হাবিব কামাল আয়োজিত নৈশভোজেও অংশ নেওয়ার কথা ছিল ফখরুলের।

বরিশাল জেলা (দক্ষিণ) বিএনপির সভাপতি এবায়দুল হক চাঁন জানিয়েছেন, সকালে যথা সময়ে মহাসচিবকে নাস্তা দেওয়া হয়নি। তাছাড়া দুপুরেও তার খাবারের আয়োজন করেনি সার্কিট হাউজ কর্তৃপক্ষ। যে কারণে রাগ করে সার্কিট হাউজ থেকে বেড়িয়ে আসেন মহাসচিব। গতকাল মঙ্গলবার মহাসচিব আসার পর রাতে টেলিভিশন সংযোগটি বন্ধ করে দেওয়া হয়। 

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের একাধিক নেতা বলেছেন, বরিশাল সার্কিট হাউজে গিয়েই অব্যবস্থাপনা দেখে নেতাদের প্রতি বিরুপ হন। ফখরুলের থাকার ব্যবস্থা অভিজাত হোটেলে নির্ধারন করা হয়েছিল। শেষমেষ শীর্ষ পর্যায়ের নেতারা সার্কিট হাইজে ব্যবস্থা করেন। তারা বলেন, সরকার দলীয় নেতারা সার্কিট হাউজে অবস্থান করলে সরকারি কর্মকর্তারা সব সময় সহযোগিতা করেন। কিন্তু বিএনপির কারনে তারা সহযোগিতা করেননি। 

তবে এসব অভিযোগ অস্বীকার করে সার্কিট হাউজের সহকারি নাজির মামুন অর রশিদ বলছেন, টেলিভিশন সংযোগ বন্ধ করা হয়নি। গতকাল মঙ্গলবার রাতে বিদ্যুত চলে যাওয়ার কারণে সাময়িক সমস্যা ছিল। আজ বুধবার সকালে ঠিক হয়ে গেছে। তাছাড়া খাবার পরিবেশনের ক্ষেত্রে কোন ধরনের অবহেলা বা অনিময়ম করা হয়নি। 

এ প্রসঙ্গে সার্কিট হাইজের দায়িত্বে থাকা রেভিনিউ ডেপুটি কালেক্টর (আরডিসি) নাহিদুল করিম সাংবাদিকদের বলেন, বিএনপির মহাসচিবকে আপ্যায়নের পর্যাপ্ত ব্যবস্থা করা হয়েছিল। দলীয় কর্মীরাই তা করেছেন। সকালের খাবার থেকে দুপুরের লাঞ্চ করার দৃশ্য সিসিটিভি ফুটেজে রয়েছে। সেটি দেখলেই যে কেউ বুঝবেন তাকে যথাযথভাবে সন্মানিত করা হয়েছে। তাছাড়াও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া যে কক্ষে ছিলেন, সেইটিতেই মহাসচিবকে থাকতে দেয়া হয়েছে। কিন্তু তিনি কেন চলে গেলেন তা আমাদের বোধগম্য নয়। 

 



সাতদিনের সেরা