kalerkantho

রবিবার । ৯ মাঘ ১৪২৮। ২৩ জানুয়ারি ২০২২। ১৯ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

দক্ষিণ কোরিয়ায় ইপিএস অ্যাওয়ার্ড ও উদ্যোক্তা প্রগ্রাম ২০২১

অনলাইন ডেস্ক   

২২ নভেম্বর, ২০২১ ১৬:১৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



দক্ষিণ কোরিয়ায় ইপিএস অ্যাওয়ার্ড ও উদ্যোক্তা প্রগ্রাম ২০২১

দক্ষিণ কোরিয়ায় গতকাল ইপিএস বাংলা কমিউনিটি ইন কোরিয়ার উদ্যোগে দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানী সিউলস্থ ফরেইন ওয়ার্কার্স সাপোর্ট সেন্টারে তরুণদের স্বপ্ন বাস্তবায়নের উদ্দেশ্য নিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে ইপিএস অ্যাওয়ার্ড ও উদ্যোক্তা প্রগ্রাম-২০২১। অনুষ্ঠানে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে মোট ১১ জনকে সম্মাননা প্রদান করা হয়।  

সেরা ইপিএস কর্মী ক্যাটাগরিতে তিনজন; মো. নাসির উদ্দীন, মোহাম্মদ রাসেল ও মোহাম্মদ দেলোয়ার হোসেন।
সর্বোচ্চ রেমিট্যান্স প্রেরণকারী ক্যাটাগরিতে তিনজন; আমির হামজা, শেখ টিটুল ও মো. মেহেরাব হোসেন।

বিজ্ঞাপন


সেরা ইপিএস উদ্যোক্তা ক্যাটাগরিতে তিনজন; মো. হাবিবুর রহমান, মো. মাজহারুল ইসলাম ও মেহেদী হাসান।
বিশেষ সম্মাননায় কোরিয়ান নাগরিকত্ব অর্জনকারী হিসেবে কামরুল হাসান রাজ এবং সেরা সহযোগী প্রতিষ্ঠান হিসেবে বিডি হাউসের স্বত্বাধিকারী রাসেল বিন সোলায়মান বিজয়ী হিসেবে সম্মাননা গ্রহণ করেন।  

অনুষ্ঠানে সিউলস্থ বাংলাদেশ দূতাবাসের প্রতিনিধি, ফরেইন ওয়ার্কার্স সাপোর্ট সেন্টার প্রতিনিধি, কোরিয়ার বাংলাদেশি ব্যবসায়ীবৃন্দ ও বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়াও কোরিয়ার বিভিন্ন এলাকা থেকে নিবন্ধনকৃত সর্বমোট ১১০ জন বাংলাদেশি তরুণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে বক্তারা নতুন উদ্যোক্তা তৈরির লক্ষ্যে এজেন্ট ব্যাংকিং সম্পর্কিত প্রেজেন্টেশন, অনলাইন ব্যবসা সম্পর্কিত প্রেজেন্টেশন; সেই সাথে কোরিয়ায় বিজনেস ভিসা অর্জনের যোগ্যতা ও নিয়মনীতিসংক্রান্ত বিষয়ে আলোচনা করেন।  

এ ছাড়াও অনুষ্ঠানে ইপিএস বাংলা কমিউনিটি ইন কোরিয়ার উদ্যোগে উদ্যোক্তাবিষয়ক ট্রেনিং কার্যক্রম চালু করার বিষয়ে তথ্য ও উপাত্ত তুলে ধরা হয়।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে অনুষ্ঠানকে সুন্দর ও সফল করে তোলার জন্য আগত প্রত্যেকের নিকট ইপিএস বাংলা কমিউনিটি ইন কোরিয়ার নেতৃবৃন্দ ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। যারা বিজয়ী হয়েছেন তাদের অভিনন্দন জানিয়ে ইপিএসে আসা সকলকে তাদের অনুসরণ করতে পরামর্শ দেন। তারা মনে করেন, সফল উদ্যোক্তা হিসেবে নিজেকে গড়ে তুলতে তাদের অনুষ্ঠান যদি সামান্য অবদান রাখতে পারে, সেটাই হবে ইপিএস বাংলা কমিউনিটি ইন কোরিয়ার সার্থকতা।  

আয়োজনের স্পন্সর হিসেবে সহযোগিতায় ছিল জি-মানি ট্রান্স, বিডি হাউস, এস এন ফুড, মাই ট্রিপ কে আর, অলটপ শিপিং ও কোরিয়া ফরেন ওয়ার্কার্স সাপোর্ট সেন্টার।



সাতদিনের সেরা