kalerkantho

শনিবার । ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৪ ডিসেম্বর ২০২১। ২৮ রবিউস সানি ১৪৪৩

চিটাগং ইনডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটিতে ওয়েবিনার

বৈশ্বিক মহামারিতে আইনের চাকা সচল রাখতে চাই ডিজিটাল প্রযুক্তির ব্যবহার

অনলাইন ডেস্ক   

১৯ অক্টোবর, ২০২১ ১৯:২৪ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বৈশ্বিক মহামারিতে আইনের চাকা সচল রাখতে চাই ডিজিটাল প্রযুক্তির ব্যবহার

বৈশ্বিক মহামারি করোনায় থমকে গেছে পৃথিবীর পথচলা। বদলে যাওয়া বাস্তবতায় তাই প্রভাব পড়েছে প্রতিটি স্তরে। তবে সবকিছু থমকে গেলেও ডিজিটাল বাংলাদেশের প্রযুক্তিনির্ভর আদালতব্যবস্থা যেন খুলে দিল আইনি কার্যক্রমের নতুন দুয়ার। চিটাগং ইনডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটিতে (সিআইইউতে) অনুষ্ঠিত হলো 'উন্নয়নশীল দেশের আইন পেশায় প্রযুক্তির ব্যবহার' শীর্ষক জমজমাট ওয়েবিনার।

সিআইইউর স্কুল অব ল সম্প্রতি অনলাইনে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এতে মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধান বিচারপতি, সিআইইউর উপাচার্য, আইন অনুষদের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা অংশ নেন।

অনুষ্ঠানে বক্তারা জানান, বিশ্বে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হলে বাংলাদেশসহ অনেক উন্নয়নশীল দেশের আদালতের স্বাভাবিক কার্যক্রম একপ্রকার বন্ধ হয়ে যায়। সংকট মোকাবেলায় বিচার বিভাগকে সচল রাখতে ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করতে ডিজিটাল প্রযুক্তির ব্যবহার যুগান্তকারী পদক্ষেপ হিসেবে বিবেচিত হয় আইনপেশায়।

ওয়েবিনারে বক্তারা ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহারে ভার্চুয়াল আদালত, প্রাইভেসি, জুম অ্যাপের সহজ ব্যবহার, অডিওর গতিশীল প্রচার, ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে রিমান্ড শুনানি, ওয়েবসাইটে আদেশ বা রায় প্রচার, জামিন ব্যবস্থা, অনলাইন বিচারিক কার্যক্রমসহ করোনাকালীন সংকটে আইনের নানান বিষয়ের ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

অনুষ্ঠানে মালয়েশিয়ার সাবেক প্রধান বিচারপতি রিচার্ড মালানজুম নতুন আইনজীবীদের এই ধরনের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করার চমৎকার পরামর্শ দেন।

সিআইইউর উপাচার্য ড. মাহফুজুল হক চৌধুরী শুধু আইনপেশায় নয়, বরং সবক্ষেত্রে প্রযুক্তিকে জনকল্যাণে ব্যবহার করতে হবে বলে মন্তব্য করেন।

সিআইইউর স্কুল অব ল'র প্রভাষক সানজানা হকের প্রাণবন্ত সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন অনুষদের সহকারী ডিন মোহাম্মদ বেলায়েত হোসেন। এ ধরনের অনুষ্ঠান শিক্ষার্থীদের কর্মজীবনে প্রবেশের আগে প্রযুক্তিনির্ভর আদালতব্যবস্থার বিষয়ে ভিন্নকিছুর ধারণা দেবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।



সাতদিনের সেরা