kalerkantho

সোমবার  । ১২ আশ্বিন ১৪২৮। ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১। ১৯ সফর ১৪৪৩

গাউছুল আজম মাইজভাণ্ডারী

মেধা বৃত্তি পরীক্ষা ও মেধা বিকাশ কার্যক্রম ২০২১ সম্পন্ন

অনলাইন ডেস্ক   

৭ আগস্ট, ২০২১ ১৬:১৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



মেধা বৃত্তি পরীক্ষা ও মেধা বিকাশ কার্যক্রম ২০২১ সম্পন্ন

শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান - এ ত্রয়ী একে অপরের সাথে ওতোপ্রোতভাবে জড়িত। কোভিড-১৯ অতিমারির কারণে শিক্ষা ব্যবস্থা আজ বিপর্যস্ত। কোভিড-১৯ অতিমারি পূর্বের সময়ে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের নিয়ে সরাসরি অংশগ্রহণের মাধ্যমে গাউছুল আজম মাইজভাণ্ডারী মেধা বৃত্তি পরীক্ষা ও মেধা বিকাশ কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হয়েছিল। বর্তমান কোভিড-১৯ অতিমারির সময়ে সকল প্রকার শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যায় এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়। মাইজভাণ্ডার দরবার শরীফের বর্তমান পীরে তরিকত আওলাদে রাসূল, সাজ্জাদানশীনে দরবারে গাউছুল আজম আলহাজ্ব শাহ ছুফী সৈয়দ এমদাদুল হক মাইজভাণ্ডারী (ম:) এর দূরদর্শী চিন্তার ফসল হিসাবে বিগত ২০২০ সালে পরীক্ষামূলক বৃত্তি পরীক্ষা অনলাইন প্লাটফর্মে নেবার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছিলেন।

ধারাবাহিকতার অংশ হিসেবে চলতি ২০২১ সালে যেহেতু বিদ্যায়তন অদ্যাবধি বন্ধ রয়েছে, সেহেতু কোমলমতি শিক্ষার্থীদের শিক্ষা কার্যক্রম থেকে দূরে সরে যাওয়া ও ঝরে পড়া পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে এবং গৃহবন্দী অবস্থায় কোমলমতি শিক্ষার্থীদের মানসিক চাপের মধ্যে পতিত হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে; তাই কোমলমতি শিক্ষার্থীদের শিক্ষা কার্যক্রমের সাথে সম্পৃক্ত রাখা এবং মানসিকভাবে উজ্জীবিত রাখতে সংশ্লিষ্ট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসমূহের শিক্ষকবৃন্দের সহায়তায় শিক্ষার্থীদের নিয়মিত পাঠদান, বিভিন্ন বিষয়ে নমুনা পরীক্ষা গ্রহণ ও সর্বোপরি চূড়ান্ত মেধা বৃত্তি পরীক্ষা ও মেধা বিকাশ কার্যক্রম ২০২১ নায়েব সাজ্জাদানশীন শাহজাদা সৈয়দ ইরফানুল হক মাইজভাণ্ডারীর সার্বিক তত্ত্বাবধানে মাইজভাণ্ডারী ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে আয়োজন করা হয়।

চলতি সালে দেশের মোট ২৮ টি জেলার, ৮৮ টি উপজেলার, ৪৪৭ টি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ২৯৭ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, ৬৮ টি ইবতেদায়ী মাদ্রাসা ও ৭৫ টি দাখিল মাদ্রাসাসহ সর্বমোট ৮৮৭ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ব্যাপক অংশগ্রহণের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ বছর এ পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী ৮ টি শ্রেণির সর্বমোট ৪৪৩২ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে রয়েছে - প্রাইমারি স্কুল ৪র্থ শ্রেণি থেকে ৬৩৮ জন, ও ৫ম শ্রেণি থেকে ৮৪৫ জন, মাধ্যমিক স্কুল ৬ষ্ঠ শ্রেণি থেকে ১০৬২ জন ও ৭ম শ্রেণি থেকে ৯৬২ জন, ইবতেদায়ী মাদ্রাসা ৪র্থ শ্রেণি থেকে ১৯৫ জন ও ৫ম শ্রেণি থেকে ২৩৯ জন, দাখিল মাদ্রাসা ৬ষ্ঠ শ্রেণি থেকে ২৪৯ জন ও ৭ম শ্রেণি থেকে ২৪২ জন। উল্লেখ্য, অংশগ্রহণকারী মোট শিক্ষার্থীর মধ্য হতে শতকরা ১০ জনকে বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে শিক্ষাবৃত্তি ও সনদ প্রদান করা হবে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি।



সাতদিনের সেরা