kalerkantho

শনিবার । ১৬ শ্রাবণ ১৪২৮। ৩১ জুলাই ২০২১। ২০ জিলহজ ১৪৪২

চুল পড়ার সমস্যা সমাধানে চুলে সুষম পুষ্টির ভূমিকা

অনলাইন ডেস্ক   

২৩ মে, ২০২১ ১৭:৩৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



চুল পড়ার সমস্যা সমাধানে চুলে সুষম পুষ্টির ভূমিকা

সুন্দর চুল মানেই আত্মবিশ্বাসে পরিপূর্ণ সৌন্দর্য্য। প্রিয় চুল সুস্থ ও সুন্দর রাখতে প্রয়োজন নিয়মিত যত্নের মাধ্যমে চুলে পুষ্টি নিশ্চিত করা। কিন্তু ব্যস্ত জীবনে চুলের দিকে নজর দেওয়ার সময় হয়ে ওঠে না প্রায়ই। যত্নের অভাবে বাইরের রোদে-গরমে, ধুলা-বালিতে চুল হারায় তার প্রয়োজনীয় পুষ্টি। ফলাফল, চুল পড়া!

হেয়ার স্টাইলিং বা চুলে বিভিন্ন কেমিক্যালযুক্ত প্রডাক্ট ব্যবহার করা এখন জীবনের নিত্যসঙ্গী। বিশেষত শহরের মেয়েরা প্রতিদিন বাইরে বের হওয়ার আগে চুল সেট করতে ব্যয় করেন বেশ কিছুটা সময়। বাইরের এসব প্রডাক্ট ব্যবহারের ফলে চুল রুক্ষ হওয়া থেকে শুরু করে নিয়মিত চুল পড়ার সমস্যাও দেখা দেয়। বর্তমান সময়ে একটি বড় সমস্যার নাম এই চুল পড়া। কম বয়সেই ভুগতে হয় চুল নিয়ে দুশ্চিন্তায়। প্রতিবার চুল আঁচড়ানোর সময় চিরুনিতে উঠে আসা চুলগুলো আরো বাড়িয়ে দেয় সেই দুশ্চিন্তাকে।

শরীরের সুস্বাস্থ্যে যেমন সুষম পুষ্টিকর খাদ্যের দরকার, তেমনই চুল ভালো রাখতে চুলেরও চাই সুষম পুষ্টি। অস্বাস্থ্যকর জীবনযাপন, ধুলা-বালি, দূষণ, হেয়ার স্টাইলিং প্রডাক্টের ব্যবহার চুলকে রুক্ষ করে এবং চুলের গোড়া দুর্বল করে ফেলে। যার ফলে শুরু হয় চুল পড়া। আর এই সমস্যা সমাধানে প্রাকৃতিক উপাদানের ব্যবহারই সবচেয়ে কার্যকরী এবং নিরাপদ। কিন্তু শুধুমাত্র একটি খাবারে যেমন শরীরে সুষম পুষ্টি আসে না, তেমনই শুধু নারিকেল তেল চুলের পুষ্টির পুরোটা চাহিদা পূরণ করতে পারে না। অনেকেই চুলের যত্নে হেয়ার অয়েল ম্যাসাজ করে থাকেন, যা চুলের জন্য ভালো। কিন্তু শুধু নারিকেল তেল দিয়ে ম্যাসাজ করলে চুল প্রয়োজনীয় সুষম পুষ্টি পায় না।

নারিকেল তেলের পাশাপাশি চুলের যত্নে চাই আরো কিছু পুষ্টি উপাদান।

নারিকেল তেল যেমন চুল কালো মসৃণ করে, মাথার ত্বককে রাখে কোমল আর নমনীয়।

তেমনই ব্রাহ্মীলতা চুলে বাড়তি পুষ্টি জুগিয়ে চুল পড়া নিয়ন্ত্রণ করে, নতুন চুলও বেড়ে উঠতে সাহায্য করে।

মেথি গোড়ায় পুষ্টি জুগিয়ে চুলকে মজবুত আর সিল্কি করে তোলে।

আমলা চুলের গোড়া শক্ত করে চুল পড়া নিয়ন্ত্রণ, আর চুলকে করে ঘন কালো ঝলমলে।

এবং অ্যালোভেরা চুলে আর মাথার ত্বকে আর্দ্রতা জুগিয়ে চুলকে করে কোমল, মসৃণ করে।

এই সব উপাদানের সংমিশ্রণই চুলে সুষম পুষ্টি জুগিয়ে চুল পড়া লক্ষণীয়ভাবে কমাবে। আর এসব উপাদানের মিশ্রণে তৈরি হেয়ার অয়েল স্টিকি হয় না, ফলে চুলে ব্যবহার করা যায় সহজেই।

প্রাকৃতিক এসব উপাদান চুলের জন্য ভালো হলেও এই ব্যস্ত জীবনে আছে সময়স্বল্পতা, যার কারণে এসব উপাদান খুঁজে বের করে ব্যবহার করা ঝামেলার মনে হতে পারে। ভালো সংবাদ হলো, এই উপাদানগুলোর সংমিশ্রণে কিছু রেডিমেড হেয়ার অয়েল আছে, যা চুলে সুষম পুষ্টি জোগাবে এবং ঝামেলাও কমাবে। বিদেশি কিছু হেয়ার অয়েলে আছে প্রয়োজনীয় এই উপাদানগুলোর মিশ্রণ। বর্তমানে বাংলাদেশে পাওয়া যাচ্ছে কুমারিকা হেয়ারফল কন্ট্রোল অয়েল, যাতে এই সবগুলো প্রাকৃতিক উপাদানই আছে।

নিজেকে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করতে, আত্মবিশ্বাস বাড়াতে ঘন ও সুন্দর চুলের প্রয়োজনীয়তা অনস্বীকার্য। তাই নিজের স্বাস্থ্যের পাশাপাশি চুলেরও যত্ন নেওয়া হোক দৈনন্দিন জীবনেরই একটি অংশ। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি।



সাতদিনের সেরা