kalerkantho

শনিবার । ৫ আষাঢ় ১৪২৮। ১৯ জুন ২০২১। ৭ জিলকদ ১৪৪২

অগ্নিকান্ডের ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য ব্র্যাক-এর বিশেষ উদ্যোগ

রোহিঙ্গা শিবিরে পুনর্বাসনসহ জরুরি কার্যক্রম জোরদার

অনলাইন ডেস্ক   

২৯ মার্চ, ২০২১ ২১:০৭ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



রোহিঙ্গা শিবিরে পুনর্বাসনসহ জরুরি কার্যক্রম জোরদার

কক্সবাজারের উখিয়ার রোহিঙ্গা শিবিরে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর জন্য পুনর্বাসন কার্য্ক্রম অব্যাহত রয়েছে। সরকারের সহায়তায় ব্র্যাকসহ অন্যান্য বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ও দাতা সংস্থাগুলোর সমন্বিত উদ্যোগে এগিয়ে চলছে খাবার বিতরণ, বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ, শেল্টার নির্মাণসহ অন্যান্য জরুরি কার্যক্রম।

আজ সোমবার (২৯শে মার্চ ২০২১) উখিয়ার কুতুপালংয়ের বালুখালি এলাকার রোহিঙ্গা শিবিরের ৮ ও ৯ নম্বর ক্যাম্প ঘুরে এই চিত্র পাওয়া যায়। এদিকে ব্র্যাক এর পক্ষ থেকে আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত রোহিঙ্গাদের সহায়তায় ইতিমধ্যে (গত ২৮শে মার্চ, ২০২১ পর্যন্ত) ৩৪ হাজার লিটার খাবার পানি বিতরণ, ৪৯ টি গভীর নলকূপ, ২৩৯ টি অগভীর নলকূপ সংস্কার, ৩১৯ টি ল্যাট্রিন মেরামত করা হয়েছে।

এদিকে গত শনিবার (২৭শে মার্চ, ২০২১) বালুখালিতে অবস্থিত আগুনে ক্ষতিগ্রস্ত ৯ নম্বর ক্যাম্প পরিদর্শন করেছেন ব্র্যাকের মানবিক সহায়তা কর্মসূচি (এইচসিএমপি)-এর এরিয়া ডিরেক্টর হাসিনা আখতার হকসহ কর্মসূচির উদ্ধতন কর্মকর্তাবৃন্দ। এর আগে গত ২৪শে মার্চ ওই ক্যাম্প পরিদর্শন করেন ব্র্যাকের এইচসিএমপি-এর কর্মসূচি প্রধান (ভারপ্রাপ্ত) রবার্টস সিলা মুথিনিসহ সংশ্লিষ্টরা। আজ সোমবার (২৯শে মার্চ, ২০২১) ক্ষতিগ্রস্ত বিভিন্ন ক্যাস্প পরিদর্শন করেন ব্র্যাকের এইচসিএমপি-এর অপারেশন হেড সাহানা হায়াতসহ সংশ্লিষ্ট্র প্রতিনিধিবৃন্দ।

ব্র্যাকের মানবিক সহায়তা কর্মসূচির এরিয়া ডিরেক্টর হাসিনা আখতার হক বলেন, সম্প্রতি রোহিঙ্গা শিবিরে আগুন লাগার ঘটনা একটা বড় দুর্যোগ। এই রকম দুর্যোগে ব্র্যাক শুরু থেকে সরকারের সহযোগিতায় অন্যান্য সংস্থার সঙ্গে সমন্বয় করে কার্য়ক্রম পরিচালনা করে আসছে। আমরা খাবার বিতরণ, বিশুদ্ধ পানি সরবরাহসহ বিভিন্ন ধরণের জরুরি কার্য়ক্রম অব্যাহত রেখেছি। এর পাশাপাশি নারী ও শিশু সুরক্ষার বিষয়টি বেশি গুরুত্ব দিচ্ছি।

জাতিসংঘের শরণার্থী-বিষয়ক সংস্থা ইউএনএইচসিআর সূত্র জানায়, অগ্নিকান্ডের পূর্বে ক্ষতিগ্রস্ত রোহিঙ্গা শিবিরে বাস করছিল প্রায় ১ লাখ, ২৬ হাজার ৩৮১ জন মানুষ। এনজিওদের সমন্বয়কারী সংস্থা ইন্টার সেক্টর কো-অর্ডিনেশন গ্র্প (আইএসসিজি)-এর সূত্র অনুযায়ী, রোহিঙ্গা শিবিরে অগ্নিকান্ডের ঘটনায় প্রায় ১০ হাজার ঘর পুড়ে গেছে। গৃহহীন হয়েছে প্রায় ৪৫ হাজার মানুষ।

উল্লেখ্য, এর আগে গত ২২শে মার্চ বিকালে ২০২১ তারিখে কক্সবাজারের বালুখালির রোহিঙ্গা শিবিরে ৮ ডব্লিও, ৮ই, ৯ ও ১০ নম্বর রোহিঙ্গা শিবিরে আগুন লাগার ঘটনা ঘটে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি।



সাতদিনের সেরা