kalerkantho

শনিবার । ২১ ফাল্গুন ১৪২৭। ৬ মার্চ ২০২১। ২১ রজব ১৪৪২

দেশজুড়ে নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণে ইডটকো ও বাংলালিংকের চুক্তি

অনলাইন ডেস্ক   

১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০২১ ২১:৪৩ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



দেশজুড়ে নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণে ইডটকো ও বাংলালিংকের চুক্তি

দেশে মোবাইল নেটওয়ার্ক সংযোগকে আরও শক্তিশালী করতে শীর্ষস্থানীয় সমন্বিত টেলিযোগাযোগ অবকাঠামো সেবা সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান ইডটকো বাংলাদেশের সাথে চুক্তি স্বাক্ষর করেছে অন্যতম শীর্ষস্থানীয় টেলি-অপারেটর কোম্পানি বাংলালিংক। দেশে পরবর্তী-প্রজন্মের টেলি-অবকাঠামো সুবিধা গড়ে তোলাই এই চুক্তির লক্ষ্য, যার মাধ্যমে ক্রমবর্ধমান সংযোগ চাহিদা মেটানোও সম্ভব হবে।

চুক্তি স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে ইডটকো বাংলাদেশের কান্ট্রি ম্যানেজিং ডিরেক্টর রিকি স্টেইন এবং বাংলালিংকের অ্যাক্টিং চিফ টেকনোলজি অফিসার হাসনাত রেজা মাহবুব আলম সহ উভয় প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বিশ্বমানের টেলিযোগাযোগ অবকাঠামো সেবা, অত্যাধুনিক প্রযুক্তি সমাধান এবং নতুন নতুন উদ্ভাবনের মাধ্যমে যোগাযোগ ব্যবস্থাকে আরও শক্তিশালী করার যে প্রতিশ্রুতি ইডটকোর রয়েছে, এই চুক্তিটি তারই প্রতিফলন। চুক্তিটির ফলে দেশের টাওয়ার শিল্পে শেয়ারিংয়ের ভিত্তিতে আরও সাশ্রয়ী ও শক্তিশালী টেলি-অবকাঠামো গড়ে উঠবে, যা নির্বিঘ্ন ও নিরবচ্ছিন্ন সংযোগ নিশ্চিত করবে।

সবার জন্য উচ্চ গতিসম্পন্ন নেটওয়ার্ক গড়ে তোলার গুরুত্ব তুলে ধরে ইডটকো বাংলাদেশের কান্ট্রি ম্যানেজিং ডিরেক্টর রিকি স্টেইন বলেন, ''আমাদের সকল প্রচেষ্টার মূলেই রয়েছে উন্নত নেটওয়ার্ক সংযোগ এই কার্যক্রম পরিচালনার ক্ষেত্রে বাংলালিংককে অংশীদার হিসেবে পাওয়াটা ইডটকোর জন্য অবশ্যই আনন্দের। দেশজুড়ে গ্রাহকদের জন্য টেকসই মোবাইল নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ নিশ্চিত করার লক্ষ্যেই আমরা যথাযথ উপায়ে অবকাঠামো ভাগাভাগি করতে চাই, যা জাতি গঠনে আমাদের দেয়া প্রতিশ্রুতি পূরণেরই অংশ। একই সাথে সংযোগ ও সক্ষমতা ব্যবস্থা জোরদারের মাধ্যমে বাংলাদেশের ডিজিটাল খাতে প্রবৃদ্ধি অর্জনকে ত্বরান্বিত করতে আমরা বিনিয়োগ অব্যাহত রাখব। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তোলার ক্ষেত্রে আমরা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে চাই।''

গ্রাহকদের ক্রমবর্ধমান চাহিদা মেটানোর ক্ষেত্রে উন্নততর ও নির্বিঘ্ন নেটওয়ার্কের ওপর জোর দিয়ে বাংলালিংকের অ্যাক্টিং চিফ টেকনোলজি অফিসার হাসনাত রেজা মাহবুব আলম বলেন, ''নতুন এই অংশীদারিত্ব দেশে একটি টেকসই এবং ভাগাভাগির মাধ্যমে ব্যবহারযোগ্য টেলি-

অবকাঠামো গড়ে তোলার ক্ষেত্রে বড় ভূমিকা পালন করবে। আমরা ভীষণ আশাবাদী যে, এতে গ্রাহকদের নির্বিঘ্ন সংযোগের ক্রমবর্ধমান চাহিদাও পূরণ হবে। আমরা বাংলাদেশে দ্রুততম ফোর জি মোবাইল নেটওয়ার্ক প্রতিষ্ঠার জন্য ওকলার কাছ থেকে প্রশংসাপত্র পেয়েছি। তাছাড়া ইতোমধ্যেই আমরা গ্রাহকদের জন্য সর্বোত্তম মানের ডিজিটাল সার্ভিস নিশ্চিত করেছি। ইডটকোর সাথে এই অংশীদারিত্ব সারা দেশে বাংলালিংকের সেবামানকে আরও উন্নত করবে এবং অধিকসংখ্যক গ্রাহক নিরবচ্ছিন্ন সেবা পাবেন।''

অনুষ্ঠানে দেশের টেলিযোগাযোগ শিল্পের প্রবৃদ্ধি নিশ্চিতে অব্যাহত প্রচেষ্টা ও নির্দেশনার জন্য ইডটকো বাংলাদেশ এবং বাংলালিংক উভয় প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)-কে ধন্যবাদ প্রদান করা হয়।

ইডটকো বাংলাদেশ ২০১৩ সাল থেকে এদেশের টেলিযোগাযোগ টাওয়ার স্থাপনে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে আসছে। ইডটকো এদেশের টাওয়ার সেবা খাতে বিভিন্ন ধরনের সলিউশন প্রদানের পাশাপাশি টাওয়ার লিজিং, কো-লোকেশন, বিল্ড-টু-স্যুইট টাওয়ার নির্মাণ, জ্বালানি ব্যবস্থাপনা, ট্রান্সমিশন, পরিচালনা ও রক্ষণাবেক্ষণ ইত্যাদি সেবা প্রদান করে আসছে। ইডটকো বাংলাদেশ তার নিজস্ব মালিকানায় বর্তমানে সারা দেশে ১১ হাজারেরও বেশি টেলিযোগাযোগ টাওয়ার পরিচালনা করছে। এছাড়া যে আটটি দেশে ইডটকোর কার্যক্রম রয়েছে, সেগুলোতে ইডটকোর মালিকানায় ও পরিচালনায় সব মিলিয়ে প্রায় ৩১ হাজার ৮২০টি টাওয়ার রয়েছে। সংবাদ বিজ্ঞপ্তি।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা