kalerkantho

সোমবার । ১৬ ফাল্গুন ১৪২৭। ১ মার্চ ২০২১। ১৬ রজব ১৪৪২

ডেমো ডে দিয়ে শেষ হলো তিন মাসব্যাপী জিপি এক্সপ্লোরার ১.০ এর যাত্রা

অনলাইন ডেস্ক   

৩০ নভেম্বর, ২০২০ ১৫:৫৫ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ডেমো ডে দিয়ে শেষ হলো তিন মাসব্যাপী জিপি এক্সপ্লোরার ১.০ এর যাত্রা

জিপি এক্সপ্লোরার ব্যাচ ১.০ গ্র্যাজুয়েটদের নিয়ে ভার্চুয়াল মাধ্যমে রবিবার ডেমো ডে’র আয়োজন করে গ্রামীণফোন। জিপি এক্সপ্লোরার ১.০ -এ ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজির (আইইউটি) শিক্ষার্থীদের নিয়ে এ ডেমো ডে আয়োজন করা হয়। ডিজাইন থিংকিং স্কিলের পাশাপাশি এ প্রোগ্রামে অংশগ্রহণকারীরা ইন্ডাস্ট্রির কাজের ধরণ ও ক্ষেত্র নিয়েও নানা বিষয় জানতে পারে।

জিপি এক্সপ্লোরার ১.০ -এর গ্র্যাজুয়েট ব্যাচে ছিলেন সাদাত, রাফিদ, আসীর, শফি, জাহিন, আফতাব, শারারা, আফরিন, সাদ ও আফরা। এ প্রোগ্রাম থেকে শিক্ষার্থীরা নানা দক্ষতা অর্জন করে, যার মধ্যে ছিলো ইউজার রিসার্চ মেথড ও প্রবলেম স্টেটমেন্ট সংশ্লিষ্ট ধারণা, ক্রেতাদের নিয়ে সম্ভাব্য সল্যুশন খুঁজে বের করা, প্রস্তাবিত সল্যুশনের কুইক অ্যান্ড ডার্টি প্রোটোটাইপ তৈরি এবং গ্রাহক অভিজ্ঞতার উন্নয়ন প্রভৃতি।

এক্ষেত্রে, গ্রামীণফোনের এ প্রোগ্রাম থেকে অর্জিত জ্ঞান ও দক্ষতা শিক্ষার্থীরা যেকোনো খাতে ক্যারিয়ারের বিকাশ ও উৎকর্ষে সহায়তা করবে। এছাড়াও, গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে এ প্রোগ্রাম থেকে শিক্ষার্থীরা নানা সফট স্কিল ও আত্মবিশ্বাস অর্জন করে এবং ইন্ডাস্ট্রি এক্সপার্টদের সাথে কিভাবে কমিউনিকেট করতে হয় সে সম্পর্কে জানতে পারে।

ডেমো ডে’তে চূড়ান্ত পর্যায়ে অংশগ্রহণকারীরা বিভিন্ন এক্সপার্টদের সামনে তাদের অর্জিত দক্ষতার প্রদর্শন করে। এসব এক্সপার্টদের মধ্যে ছিলেন ইউনিভার্সিটি অব লিবারেল আর্টসের স্কুল অব বিজনেসের ডিন অধ্যাপক ইমরান রহমান, ইউনিভার্সিটি অব লিডসের ইনস্টিটিউট ফর ট্রান্সপোর্ট স্টাডিজ অ্যান্ড স্কুল অব সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং -এর সহযোগী অধ্যাপক ড. কারিশমা চৌধুরী, ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজির ইনস্টিটিউট অব এনার্জি অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টের প্রধান এবং ইলেক্ট্রিকাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. খন্দকার হাবিবুল কবীর, গ্রামীণফোনের চিফ ডিজিটাল অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজি অফিসার সোলায়মান আলম, প্রতিষ্ঠানটির হেড অব ইনোভেশন ফারহানা ইসলাম এবং এর হেড অব কমিউনিকেশনস খায়রুল বাশার।

অনুষ্ঠানে কি নোট স্পিকার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী ইয়াসির আজমান। তিনি বলেন, ‘আমরা চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের দ্বারপ্রান্তে রয়েছি। এ শিল্প বিপ্লব আমাদের জীবনযাপন, কাজ ও একে অন্যের সাথে যোগাযোগের ধরণে আমূল পরিবর্তন নিয়ে আসবে। এ রূপান্তর মানব ইতিহাসেই সম্পূর্ণ নতুন অভিজ্ঞতা নিয়ে আসবে। তাই, পরিবর্তনশীল এ বিশ্বের সাথে মানিয়ে নিতে গ্রামীণফোন তরুণদের দক্ষতার উন্নয়ন ও কর্মসংস্থানের বিষয় গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করছে, কেননা নতুন পরিস্থিতিতে মূলধন নয় মেধাই প্রাধান্য বিস্তার করবে। আমাদের তরুণদের দক্ষতার বিকাশের যাত্রায় জিপি এক্সপ্লোরার ১.০ ক্ষুদ্র একটি প্রয়াস। আমি এক্সপ্লোরার ১.০ এর ব্যাচ ১ এর গ্র্যাজুয়েটদের অভিনন্দন জানাই। আমার প্রত্যাশা ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে নিজেদের ক্যারিয়ার ও কাজে তারা তাদের অর্জিত দক্ষতা কাজে লাগাতে পারবে।’

গ্র্যাজুয়েটরা তাদের ক্যারিয়ার শুরু করতে গ্রামীণফোন থেকে এন্ডোর্সমেন্ট, সার্টিফিকেট ও রেকমেন্ডেশন লেটার পাবে। এছাড়াও, প্রশিক্ষক হিসেবে ভবিষ্যৎ ব্যাচসমূহের সাথে তারা সম্পৃক্ততার সুযোগ পাবে। এবং তারা ভবিষ্যতে নানা প্রজেক্টের জন্য রিসার্চার হিসেবে কাজ করতে পারবে বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানা গেছে।

ইতিমধ্যেই জিপি এক্সপ্লোরার ২.০ -এর যাত্রা শুরু হয়েছে। এ প্রোগ্রামে গ্রামীণফোনের পরিকল্পনা রয়েছে তিনটি খাত যথা- কমিউনিকেশন, এন্টারপ্রনারশিপ ও ডিজিটাল মার্কেটিংয়ে দেশজুড়ে ৩শ’ তরুণের দক্ষতা বৃদ্ধির।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা