kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৭ জুন ২০১৯। ১৩ আষাঢ় ১৪২৬। ২৩ শাওয়াল ১৪৪০

জেনে নাও

ক্লাস ক্যাপ্টেনের অনেক কাজ

ফয়সল আবদুল্লাহ   

১ মে, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ক্লাস ক্যাপ্টেনের অনেক কাজ

আমাদের দেশে অনেক অনেক আগে ক্লাসের রোল নম্বর যাদের এক থেকে তিনের মধ্যে থাকত, তারাই হতো ক্লাস ক্যাপ্টেন। এখন আর সেই সুযোগ নেই। এখন ঘটা করে নির্বাচন করে বাছাই করা হয় কে হবে ক্লাসরুমের নেতা, ছাত্রদের প্রতিনিধি। তবে নিয়মটি হুট করে একদিনে আসেনি। ব্রিটিশ রাজপ্রথা চালু ছিল যখন, তখন থেকেই স্কুল ক্যাপ্টেন নির্বাচন শুরু।

তবে যুক্তরাষ্ট্রের মতো আরো কিছু দেশে আছে স্টুডেন্ট গভর্নমেন্ট প্রেসিডেন্ট। তারা আবার গোটা স্কুলের শিক্ষার্থীদের প্রতিনিধিত্ব করবে। আমাদের দেশের মতো প্রতিটি ক্লাসের আলাদা করে ক্যাপ্টেন সেখানে না-ও থাকতে পারে।

বাংলাদেশ ছাড়াও অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, নিউজিল্যান্ড, সাউথ আফ্রিকার মতো উন্নত কিছু দেশে আবার স্কুল ক্যাপ্টেন নির্বাচন হয় জাতীয় নির্বাচনের মতো করেই। সেখানে ক্যাপ্টেন পদপ্রার্থীকে চালাতে হয় প্রচারণা। শেষ মুহূর্তে সবার সামনে হাজির করতে হয় নির্বাচনী ইশতেহার। নির্বাচনে জেতার পর তার ইউনিফর্মে পরিয়ে দেওয়া হয় সম্মানসূচক ব্যাজ।

নির্বাচনে জিতলেই কাজ শেষ নয়; বরং ক্যাপ্টেন হওয়ার পর থেকে শুরু হয় আসল কাজ। ক্লাসরুমের শৃঙ্খলা বজায় রাখা, প্রয়োজনে শিক্ষার্থীদের সমস্যা কিংবা অভিযোগ নিয়ে শিক্ষকদের সঙ্গে মিটিং, অন্য কোনো স্কুল বা কলেজের সঙ্গে নিজের ক্লাসের প্রতিনিধি হিসেবে যোগাযোগ করা, বক্তব্য রাখা; এমন অনেক অনেক দায়িত্ব এসে বর্তায় ক্লাস ক্যাপ্টেনের কাঁধে। তাই যারা শুধু বই নিয়েই পড়ে থাকতে চায়, তারা এসব পদ থেকে ১০০ দূরে থাকে। আর যারা চায় পাঠ্য বইয়ের বাইরে আগে থেকেই নিজের একটা কর্মব্যস্ত গণ্ডি তৈরি হোক, নিজের ভেতর গড়ে উঠুক নেতৃত্বের গুণ; তারাই মরিয়া হয়ে ওঠে ক্লাস ক্যাপ্টেন হতে।


খবরটি ইউনিকোড থেকে বাংলা বিজয় ফন্টে কনভার্ট করা যাবে কালের কণ্ঠ Bangla Converter দিয়ে

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা