kalerkantho

শুক্রবার । ২১ জুন ২০১৯। ৭ আষাঢ় ১৪২৬। ১৭ শাওয়াল ১৪৪০

জেনে নাও

ভাষার পাঁচ

ফয়সল আব্দুল্লাহ   

২০ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ভাষার পাঁচ

প্রোতো এলামাইটে লেখা একটি শিলালিপি। দেখো তো এর মর্ম উদ্ধার করতে পারো কি না

♦ সবচেয়ে বেশি বর্ণ আছে ক্যাম্বোডিয়ার খমের ভাষায়। মোট ৭৪টি বর্ণ নিয়ে এ ভাষা তৈরি। কম্বোডিয়ার প্রায় ৬০ লাখ মানুষ এ ভাষায় কথা বলে। মজার বিষয় হলো, খমের বর্ণমালায় পালি ও সংস্কৃতির প্রভাব বেশি বলে এদের বর্ণমালার সঙ্গে আমাদের বর্ণমালার দারুণ মিল পাওয়া যায়। যেমন খমের বর্ণমালাও শুরু হয়েছে ‘ক’, ‘খ’ দিয়ে। এরপর আছে ‘কো’, ‘খো’। তারপরই আবার পাওয়া যাবে ঞ, চ, ছ, জ, ঝ...ত, থ, দ, ধ—এগুলোও। অর্থাত্ দেশটির কোনো খমের শেখার স্কুলে বেড়াতে গেলে মনে হবে, যেন সেখানকার শিশুরা গোল হয়ে বসে বাংলা শিখছে!

হ    অন্যদিকে নিউ গিনি ও এর আশপাশের পাপুয়ান লোকদের ভাষা রোতোকাসে রয়েছে সবচেয়ে কম বর্ণমালা। এ ভাষায় সব মিলিয়ে অক্ষর আছে ১২টি।

♦ সবচেয়ে বড় ডিকশনারিটা হলো অক্সফোর্ড ইংলিশ ডিকশনারি। মানে নিজস্ব ও ধার করা মিলিয়ে সবচেয়ে বেশি শব্দ আছে ইংরেজিতে। এ পর্যন্ত প্রায় দুই লাখ ৮০ হাজার শব্দ ও বাক্যাংশ স্থান পেয়েছে অক্সফোর্ড অভিধানে। ১৯৮৯ সালে এতে ছিল প্রায় এক লাখ ৭১ হাজার শব্দ।

 

♦ বিজ্ঞানীদের মতে, বিশ্বের প্রাচীনতম পূর্ণাঙ্গ ভাষার আবির্ভাব ঘটে আজ থেকে প্রায় ৫০০০ বছর আগে। ওই সময়টার নাম হলো প্রোতো এলামাইট। তাই ওই সময়কার ভাষাটাকেও বলা হয় প্রোতো এলামাইট ভাষা। এখন যেখানে ইরান, সেখানেই উদ্ভব ঘটে এ ভাষার। ওই আমলে প্রোতো এলামাইটে লেখা প্রায় ১৬০০ নথিপত্র পাওয়া গেছে। তবে দু-একটি শব্দ ছাড়া কোনো নথিরই মর্ম উদ্ধার করতে পারেননি ভাষাবিদরা। মিসরীয় হায়ারোগ্লিফসের পাঠোদ্ধার করা গেলেও প্রোতো এলামাইট বলতে গেলে এখনো পুরোপুরি রহস্যে ঢাকা। গবেষকরা এ ভাষার ১২০০টি চিহ্ন আলাদা করতে পেরেছেন ঠিকই, তবে কোনোটির মানি বের করতে পারেননি।

 

♦ ভাষার সঙ্গে মস্তিষ্কের গঠন ও এর ক্ষমতা বৃদ্ধির একটা সম্পর্ক আছে। যে ভাষা যত জটিল, সেটা শিখতে মগজের খাটনিও হবে বেশি। গবেষণায় দেখা গেছে, নতুন একটা ভাষা শিখতে গেলে আমাদের স্মৃতিশক্তি বাড়ে ও শরীরে বয়সের ছাপও কম পড়ে। তাই দ্রুত বুড়িয়ে যেতে না চাইলে দ্রুত আরেকটা ভাষা শেখা শুরু করে দাও। আর যদি মস্তিষ্কটাকে দারুণ ব্যায়াম করাতে চাও, তবে শিখতে পারো চায়নিজ ভাষা মান্দারিন। কারণ গবেষণায় এটাও দেখা গেছে, চীনা ভাষায় কথা বলার সময় মগজের ডান ও বাঁ দুই পাশই সক্রিয় থাকে। ইংরেজিসহ অন্যান্য অপেক্ষাকৃত সহজ ভাষায় কথা বলার সময় সক্রিয় থাকে শুধু বাঁ পাশ।

 

মন্তব্য