kalerkantho

বুধবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৯। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬। ১৩ রবিউস সানি     

জবিতে গীতিকবি আবদুল হাই মাশরেকী’র জন্মবার্ষিকী উদযাপিত

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

১ এপ্রিল, ২০১৯ ১৮:৩৮ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



জবিতে গীতিকবি আবদুল হাই মাশরেকী’র জন্মবার্ষিকী উদযাপিত

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে গীতিকবি আবদুল হাই মাশরেকী’র জন্মবার্ষিকী উদযাপন করা হয়েছে। এ উপলক্ষে আজ সোমবার বেলা ১২টায় আলোচনাসভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে ভারতের কবি সৈয়দ হাসমত জালাল বলেন, আবদুল হাই মাশরেকীকে অনেক ক্ষেত্রে খণ্ডিতভাবে উপস্থাপন করা হয়। তিনি ছিলেন সামগ্রকিভাবে বাঙালি জাতির কবি ও সাহিত্যিক। তিনি শুধু লোক কবিই ছিলেন না, গ্রাম বাংলার জীবনের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। তার কর্ম এখনও মানুষের মাঝে জীবন্ত। তাই তিনি আধুনিক কবি।

এ ছাড়া শিল্পী শংকর সাওজাল বলেন, রাষ্ট্রীয়ভাবে কবির স্বীকৃতি তুলে ধরতে হবে। কালের পরিক্রমায় যে সকল বাঙালি কবি-সাহিত্যকদের শিল্পকর্ম হারিয়ে যাচ্ছে এ ধরনের অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে তাদের কর্মকে স্মরণ করতে হবে।

সভাপতির বক্তব্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মীজানুর রহমান বলেন, সাংস্কৃতিক দিক দিয়ে বাঙালি জাতি অনেক সমৃদ্ধশালী। সাহিত্যে বাঙালি জাতির যতগুলো অনুষঙ্গ রয়েছে সবগুলো নিয়ে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। তবেই আমাদের সাহিত্য আরো সমৃদ্ধশালী হবে।

এ ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার অধ্যাপক মো. সেলিম ভূঁইয়া, কবি আবদুল হাই মাশরেকীর সন্তান শামীম মাশরেকী ও নঈম মাশরেকী এবং কবি আবদুল হাই মাশরেকী পরিষদের সভাপতি কবি মাহবুব আলম বক্তব্য প্রদান করেন। অনুষ্ঠানে সংগীত বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মাহমুদুল হাসানের সঞ্চালনায় গীতিকবি আবদুল হাই মাশরেকী’র জন্মবার্ষিকী উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. মো. আবুল হোসেন শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন।

এর আগে কবি আবদুল হাই মাশরেকী বিখ্যাত গান ‘আমায় এত রাতে ক্যানে ডাক দিলি’, ‘আল্লাহ মেঘ দে, পানি দে’ সহ বেশ কয়েকটি জনপ্রিয় গান পরিবেশনার মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সূচনা হয়।

এ সময় বিশিষ্ট চিত্রশিল্পী নাজমা আক্তার, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদের ডিন, ইনস্টিটিউটের পরিচালক, বিভাগের চেয়ারম্যান, শিক্ষক ও শিক্ষার্থীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা