kalerkantho

শনিবার । ২৪ আগস্ট ২০১৯। ৯ ভাদ্র ১৪২৬। ২২ জিলহজ ১৪৪০

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

অনুষ্ঠিত হয়ে গেল স্বাধীনতা দিবস বিতর্ক প্রতিযোগিতা

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

৩০ মার্চ, ২০১৯ ০০:০৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



অনুষ্ঠিত হয়ে গেল স্বাধীনতা দিবস বিতর্ক প্রতিযোগিতা

ছবি: কালের কণ্ঠ

আনন্দমুখর পরিবেশে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল স্বাধীনতা দিবস বিতর্ক প্রতিযোগিতা। শুক্রবার বিকেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনার মুক্তমঞ্চে প্রতিযোগিতার সমাপনী অনুষ্ঠিত হয়। এ ধরনের অনুষ্ঠান বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের বিতর্ক চর্চায় উদ্বুদ্ধ করবে বলে প্রত্যাশা আয়োজকদের। 

সংগঠনের সভাপতি মো. শাকিল বলেন, ‘আমরা বিভিন্ন দিবসকে কেন্দ্র করে এ ধরনের আয়োজন করে থাকি। আমাদের এ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যান্য শিক্ষার্থীরা বিতর্ক চর্চায় উদ্বুদ্ধ হবে এবং অন্যান্য হলেও বিতর্ক চর্চা শুরু হবে এমনটাই প্রত্যাশা।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ সোহরাওয়ার্দী হল বিতর্ক পাঠশালার উদ্যোগে গত বৃহস্পতিবার (২১ মার্চ) ‘মহান স্বাধীনতা দিবস বিতর্ক প্রতিযোগিতা’ শিরোনামে এ প্রতিযোগিতা শুরু হয়। দুইটি ক্যাটাগরিতে ৯ দিনব্যাপী এ প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। এতে আন্তঃক্লাব ক্যাটাগরিতে রাবি বিজনেস ফ্যাকাল্টি ডিবেটিং ফোরাম (বিএফডিএফ) এবং আন্তঃহল ক্যাটাগরিতে রাবির বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে।

বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে অনাড়ম্বরপূর্ণ আয়োজনের মধ্যে দিয়ে প্রতিযোগিতার সমাপনী অনুষ্ঠিত হয়। এতে ‘স্বাধীনতা অর্জনে পুরুষের চেয়ে নারীর অধিকার বেশি’ বিষয়ক আন্তঃহল ক্যাটাগরির বিতর্কে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল প্রতিযোগিতা করে। এর আগে গত ২৭ মার্চ বিএফডিএফ এবং রাবি ডিবেটিং সোসাইটির মধ্যে আন্তঃক্লাব ক্যাটাগরির ‘শিক্ষাক্ষেত্রে বিনিয়োগই টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করতে পারে’ বিষয়ে বিতর্ক করে। 

সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন রাবি উপ-উপাচার্য অধ্যাপক চৌধুরী মো. জাকারিয়া। বক্তব্য শুরুর পূর্বে তিনি মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা এবং বঙ্গবন্ধুর পরিবারের নিহতদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন। তিনি বলেন, ‘আদর্শ মানুষ হতে হলে চাই যোগ্যতা, যা শিক্ষা, জ্ঞান ইত্যাদির মাধ্যমে অর্জন করতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রত্যেক শিক্ষার্থী দেশ ও দশের প্রতি দায়বদ্ধ। নিজেকে সেভাবে তৈরি করার জন্য তোমাদেরকে বিভিন্ন অঙ্গনে অংশগ্রহণ করতে হবে। সমাজে যখন তোমরা নিজেদের বিতার্কিক হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে পারবে সেদিনই এসব আয়োজন স্বার্থক হবে।’

প্রতিযোগিতায় আন্তঃক্লাব ক্যাটাগরিতে সাধন মুখার্জী এবং আন্তঃহল ক্যাটাগরিতে তানভীর খন্দকার সেরা তার্কিক নির্বাচিত হন।

অনুষ্ঠানে আরো বক্তৃতা দেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী হলের প্রাধ্যক্ষ রবিউল ইসলাম, সৈয়দ আমীর আলী হলের প্রাধ্যক্ষ আমিনুল ইসলাম, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের পরিচালক হাসিবুল আলম প্রধান। সভাপতিত্ব করেন বিতর্ক পাঠশালার সভাপতি মো. শাকিল। 

প্রতিযোগিতায় আন্তঃক্লাব ক্যাটাগরিতে রাজশাহী অঞ্চলের বিভিন্ন কলেজের ৩০টি দল এবং আন্তঃহল ক্যাটাগরিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০টি দল অংশগ্রহণ করে। 

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা