kalerkantho

শনিবার । ২৪ আগস্ট ২০১৯। ৯ ভাদ্র ১৪২৬। ২২ জিলহজ ১৪৪০

চবি শিক্ষক সমিতির নির্বাচনে হলুদ দলের নিরঙ্কুশ জয়

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

২৯ মার্চ, ২০১৯ ০০:৪৯ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



চবি শিক্ষক সমিতির নির্বাচনে হলুদ দলের নিরঙ্কুশ জয়

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) শিক্ষক সমিতির নির্বাচনে টানা সপ্তম বারের মতো নিরঙ্কুশ জয়লাভ করেছে আওয়ামী-বামপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন (হলুদ দল)।

বৃহস্পতিবার বিশ্ববিদ্যালয় সমাজ বিজ্ঞান অনুষদ মিলনায়তনে সকাল ১০টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত এ ভোট গ্রহণ চলে। বিকাল সাড়ে ৫টায় প্রধান নির্বাচন কমিশনার অধ্যাপক ড. এম. আবদুল গফুর এ নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করেন।

মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ শিক্ষক সমাজ ‘হলুদ দল’ ৫টি সম্পাদকমণ্ডলী ও ৬টি কার্যনির্বাহী সদস্যপদসহ সর্বমোট ১১টি পদে জয়লাভ করেছে। হলুদ দলের সঙ্গে এ নির্বাচনে জাতীয়তাবাদী শিক্ষক ফোরাম প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছে।

নির্বাচন কমিশনার ড. এম. আবদুল গফুর জানান, নির্বাচনে ৮৭৪ জন ভোটারের মধ্যে ৬৪৯ শিক্ষক তাদের ভোট প্রদান করেছেন। নির্বাচনে আইন বিভাগের অধ্যাপক মো. জাকির হোসেন ৪২১ ভোট পেয়ে সভাপতি, তাঁর  প্রতিদ্বন্দ্বী মার্কেটিং বিভাগের অধ্যাপক ড. তৈয়ব চৌধুরী পেয়েছেন ১৬২ ভোট। যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ সহিদ উল্লাহ (লিপন) ৩৯৬ ভোট পেয়ে সহ-সভাপতি, তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী ইনস্টিটিউট অব মেরিন সায়েন্সেস-এর অধ্যাপক ড. মো. শাহাদাত হোসেন পেয়েছে ১৬৭ ভোট। একাউন্টিং বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মুহাম্মদ আলী আরশাদ চৌধুরী ৩৮৬ ভোট পেয়ে কোষাধ্যক্ষ, তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী নৃবিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মো. আনোয়ার হোসেন পেয়েছেন ১৭০ ভোট।

জামাল নজরুল ইসলাম গণিত ও ভৌত বিজ্ঞান গবেষণা কেন্দ্রের অধ্যাপক ড. অঞ্জন কুমার চৌধুরী ৩৩৪ ভোট পেয়ে সাধারণ সম্পাদক, তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ মোশারফ হোসেন পেয়েছেন ১২৯ ভোট। প্রাণ রসায়ন ও অণুপ্রাণ বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ সাইদুল ইসলাম (সোহেল) ৪২৫ ভোট পেয়ে যুগ্ম-সম্পাদক, তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী ইনস্টিটিউট অব মেরিন সায়েন্সেস-এর সহযোগী অধ্যাপক মোহাম্মদ জাহেদুর রহমান চৌধুরী পেয়েছেন ১৩৬ ভোট।

সদস্য পদে নির্বাচিতরা হয়েছেন অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আবুল হোসাইন, কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. ইকবাল আহমেদ, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সুলতানা সুকন্যা বাশার, মৃত্তিকা বিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মাজহারুল ইসলাম, ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক বকুল চন্দ্র চাকমা এবং একাউন্টিং বিভাগের  অধ্যাপক ড. রনজিত কুমার চৌধুরী। 

উল্লেখ্য, এবারের নির্বাচনে অংশ নেয়নি দীর্ঘ ৩৩ বছর ধরে নির্বাচন করে আসা জায়ামাত ও বিএনপি সমর্থিত সাদা দল। তবে গত বছর সাদা দল থেকে বের হয়ে আসা বিএনপি পন্থীদের একাংশের সংগঠন জাতীয়তাবাদী শিক্ষক ফোরাম প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে আওয়ামী-বামপন্থী শিক্ষকদের সংগঠন হলুদ দলের বিপক্ষে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা