kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৪ নভেম্বর ২০১৯। ২৯ কার্তিক ১৪২৬। ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪১     

ঢাকা-আরিচা সড়ক অবরোধ করে জাবি শিক্ষার্থীদের আন্দোলন

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

২০ মার্চ, ২০১৯ ১৭:৩৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঢাকা-আরিচা সড়ক অবরোধ করে জাবি শিক্ষার্থীদের আন্দোলন

সুপ্রভাত পরিবহনের বেপরোয়া বাসের চাপায় বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের (বিইউপি) ছাত্র আবরার আহমেদ চৌধুরী নিহতের ঘটনায় রাজধানীর অন্যান্য জায়গার ন্যায় নিরাপদ সড়কের দাবিতে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় (জাবি) শিক্ষার্থীরাও বুধবার সকাল ১১টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক অবরোধ করে রাখেন। এতে দুপারের যান চলাল বন্ধ হয়ে গেলে ভোগান্তিতে পরে সাধারণ মানুষ।

এর আগে বুধবার সকালে সড়ক দুর্ঘটনায় শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার প্রতিবাদে ও নিরাপদ সড়কের দাবিতে সাধারণ শিক্ষার্থীদের ব্যানারে প্রায় শতাধিক শিক্ষার্থী এক বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিলটি কলা ও মানবিকী অনুষদের সামনে থেকে শুরু হয়ে শহীদ মিনার, সমাজবিজ্ঞান অনুষদ প্রদক্ষিণ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকে গিয়ে শেষ হয়। মিছিল শেষে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের পাশে নিরাপদ সড়কের দাবিতে মানববন্ধন করেন শিক্ষার্থীরা।

মানববন্ধন শেষে ঢাকা-আরিচা অবরোধ করে আন্দোলন করেন তারা পরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল বডির অুনরোধে মহাসড়ক ছেড়ে দেন শিক্ষার্থীরা।

এ সময় শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে তাদের নয়টি দাবি তুলে ধরা হয়। দাবিগুলো হলো, সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত সকল হত্যাকারী চালকদের বিচারের আওতায় আনা, সুপ্রভাত ও জাবালে নূরের বাস সার্ভিসের রুট পারমিট বাতিল, বাস চালক ও হেল্পারদের নির্দিষ্ট বেতন কাঠামোতে আনা, প্রত্যেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সামনে বাস স্টপেজ, প্রত্যেক বাস চালকে ছবি ও লাইসেন্স ঝুলানো, প্রত্যেক শিক্ষার্থীদের হাফ ভাড়া কার্যকর, প্রত্যেকটি গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে ফুট ওভার ব্রিজ, প্রতিটি জেব্রা ক্রসিং এ সিসি ক্যামেরা থাকাসহ সকল সিটিং সার্ভিস বন্ধ করতে হবে।

এ সময় সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট (মার্ক্সবাদী) জাবি শাখার সাধারণ সম্পাদক মাহাথির মুহাম্মদ বলেন, ঘাতক চালকদের সর্বোচ্চ শাস্তি কার্যকর করতে হবে। প্রতিদিন দেশের কোথাও না কোথাও মানুষ নিহত হচ্ছে। কিছু দিন আগেও শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার ঘটনায় সারা দেশে আন্দোলন হয়েছে। তারপরো কারো টনক নড়েনি। এভাবে মানুষ মারা যেতেই থাকবে তা হতে পারে না। এ সকল হত্যার বিচার হওয়া উচিত। বিচারহীনতার সংস্কৃতির কারণে সড়কে হত্যা কমছে না।

কোটা সংস্কার আন্দোলনের জাবি শাখার মুখপাত্র শাকিল উজ্জামান বলেন, আর কত লাশের মিছিল বয়ে গেলে পাবো জীবনের নিরাপত্তা! নিরাপদ সড়কের প্রশ্নে কোনো ছাড় নেই।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা