kalerkantho

শুক্রবার । ১৯ জুলাই ২০১৯। ৪ শ্রাবণ ১৪২৬। ১৫ জিলকদ ১৪৪০

চবিতে দেশের প্রথম এক্সেসিবল ই-লার্নিং সেন্টার উদ্বোধন

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি   

৭ জানুয়ারি, ২০১৯ ২০:৩৬ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



চবিতে দেশের প্রথম এক্সেসিবল ই-লার্নিং সেন্টার উদ্বোধন

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) প্রথমবারের মতো দৃষ্টি প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের জন্য আধুনিক তথ্য প্রযুক্তি সমৃদ্ধ এ্যাক্সেসসিবল ই-লার্নিং সেন্টার উদ্বোধন করা হয়েছে।

আজ সোমবার সকাল সাড়ে ১০ টায় চবি কেন্দ্রীয় লাইব্রেরিতে উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী এ এ্যাক্সেসসিবল ই-লার্নিং সেন্টার উদ্বোধন করেন। এ উপলক্ষে কেন্দ্রীয় লাইব্রেরি মিলনায়তনে চবি উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. শিরীন আখতারের সভাপতিত্বে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন চবি উপাচার্য।

উপাচার্য বক্তব্যে বলেন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়কে বাংলাদেশের প্রথম ইনক্লুসিভ ইউনিভার্সিটি হিসেবে ঘোষণা দিয়ে তা বাস্তবায়নের যে ধারাবাহিক কার্যক্রম শুরু করেছি এ্যাক্সেসিবল ই-লার্নিং সেন্টার তার একটি অন্যতম উদ্যোগ। বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগে অধ্যয়নরত প্রায় ১১০ জন দৃষ্টি প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের পঠন-পাঠনের উপযোগী করে এ্যাক্সেসিবল ই-লার্নিং সেন্টার প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, এ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের জন্য আরো নানা কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া বর্তমানে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ভর্তি কার্যক্রম, লাইব্রেরিসহ বিভিন্ন শাখা এখন ডিজিটাল। বিশ্ববিদ্যালয়ে সকল কার্যক্রম অনলাইনে সম্পাদনের প্রক্রিয়াও শুরু হয়েছে।

এ ছাড়া অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন বাংলাদেশ সরকারের অতিরিক্ত সচিব এবং এ-টু-আই প্রকল্প পরিচালক মো. মোস্তাফিজুর রহমান এবং এ কে খান ফাউন্ডেশনের ট্রাস্টি সেক্রেটারি সালাউদ্দিন কাশেম খান, ইপসা’র প্রধান নির্বাহী মো. আরিফুর রহমানের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন খুরশিদ আলম এবং মো. আলহাজ উদ্দিন প্রমুখ।

উল্লেখ্য, ই-লার্নিং সেন্টারে প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের জন্য সকল ধরনের উপযোগী সফটওয়্যার ও হার্ডওয়্যার, এ্যাক্সেসসিবল ডিকশনারি, দুই শতাধিক ডিজিটাল টকিং বুক, তিনশ’ ই- বুক, ৫০ টিরও বেশী ব্রেইল বই এরং ১০০ জন শিক্ষার্থীদের জন্য ধারাবাহিকভাবে আইসিটি প্রশিক্ষণের কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে বাস্তবায়িত এই কার্যক্রমে কারিগরী ও আর্থিক সহযোগীতা প্রদান করেছে এটুআই, এ কে খান ফাউন্ডেশন এবং ইপসা।

মন্তব্য