kalerkantho

সোমবার ।  ২৩ মে ২০২২ । ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯ । ২১ শাওয়াল ১৪৪৩  

মাইলফলক অর্জন

১০০ ‘শিপ টু শিপ’ এলপিজি ট্রান্সফার করল বসুন্ধরা এলপি গ্যাস

বাণিজ্য ডেস্ক   

২০ জানুয়ারি, ২০২২ ১৪:৫৮ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



১০০ ‘শিপ টু শিপ’ এলপিজি ট্রান্সফার করল বসুন্ধরা এলপি গ্যাস

বসুন্ধরা এলপি গ্যাসের ১০০টি ‘শিপ টু শিপ’ এলপিজি ট্রান্সফার সম্পন্ন করার মাইলফলক অর্জন উপলক্ষে গতকাল বসুন্ধরা কনভেনশন সেন্টারের হেরিটেজ রেস্টুরেন্টে অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন বসুন্ধরা গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান সাফিয়াত সোবহান

১০০টি ‘শিপ টু শিপ’ এলপিজি ট্রান্সফার সম্পন্ন করল বসুন্ধরা এলপি গ্যাস। এ মাইলফলক অর্জন উপলক্ষে গতকাল বুধবার বসুন্ধরা কনভেনশন সেন্টারের হেরিটেজ রেস্টুরেন্টে অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে বসুন্ধরা শিপিং ইউনিটের প্রধান ক্যাপ্টেন রুহুল আমিন (সিওও, শিপিং অ্যান্ড লজিস্টিকস, সেক্টর-এ, বসুন্ধরা গ্রুপ) এবং তাঁর টিমকে আনুষ্ঠানিক ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন বসুন্ধরা গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান সাফিয়াত সোবহান।

এ সাফল্য অর্জন নিয়ে তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশে কেউ কখনো চিন্তা করেনি এলপিজি শিপ টু শিপ ট্রান্সফার করা যাবে।

বিজ্ঞাপন

বসুন্ধরা এলপিজি এমন দুঃসাহসিক কাজ শুধু শুরুই করেনি, বরং ১০০ বার শিপ টু শিপ ট্রান্সফার করেছে নিজস্ব ভিএলজিসি জাহাজের মাধ্যমে। এই কার্যক্রমটি শুধু আমাদের জন্যই মাইলফলক নয়, বরং বাংলাদেশের এলপিজি ইন্ডাস্ট্রির জন্য একটি দৃষ্টান্ত স্থাপনীয় অর্জন। আমাদের এই কার্যক্রম চলবেই এবং আমরা আশাবাদী অতি দ্রুত আমরা লক্ষাধিক শিপ টু শিপ ট্রান্সফার অর্জন করতে সক্ষম হব। ’

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন নাসিমুল হাই (সিনিয়র ইডি এবং কম্পানি সেক্রেটারি, কম্পানি অ্যাফেয়ার্স অ্যান্ড সেক্রেটারি ডিভিশন, বসুন্ধরা গ্রুপ), শওকত আকবর (সিওও, ব্যাংকিং ডিভিশন, সেক্টর-এ, বসুন্ধরা গ্রুপ), ক্যাপ্টেন শেখ এহ্সান রেজা (চিফ হিউম্যান রিসোর্স অফিসার, সেক্টর-এ, বসুন্ধরা গ্রুপ), এম এম জসীম উদ্দিন (সিওও, ব্র্যান্ড অ্যান্ড মার্কেটিং, সেক্টর-এ, বসুন্ধরা গ্রুপ), জাকারিয়া জালাল (হেড অব সেলস, বসুন্ধরা এলপি গ্যাস), চৌধুরী এ কে এম শামসুদ্দীন আহমেদ (হেড অব প্রজেক্ট অপারেশন, বসুন্ধরা এলপি গ্যাস), সরোয়ার হোসেন সোহাগ (জিএম, সাপ্লাই চেইন, বসুন্ধরা এলপি গ্যাস) এবং অন্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

‘বিএলপিজি ওয়ারিওর’ এবং ‘বিএলপিজি চ্যালেঞ্জার’ ভিএলজিসি (ভেরি লার্জ গ্যাস ক্যারিয়ার) নামে দুটি বিশেষ জাহাজে বাংলাদেশ সমুদ্রসীমায় বহির্নোঙরে বসুন্ধরার লাইটার ভেসেলে নামানো হয় এলপিজি। এই পদ্ধতিতে ব্যয়সংকোচন হওয়াতে পরিবহন খরচ যেমন হ্রাস পায়, পণ্যের দামও সহজলভ্য হয়। সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মধ্যস্বত্বভোগীরা এই পদ্ধতিতে সুবিধা ভোগ করতে পারে না।

ক্যাপ্টেন রুহুল আমিন বলেন, ‘পুরো বিশ্বে স্বল্পসংখ্যক ভিএলজিসির মধ্যে বাংলাদেশে আমরাই একমাত্র প্রতিষ্ঠান যাদের দুটি ভিএলজিসি ভেসেল বিদ্যমান। বিশ্বের বুকে আমাদের জন্য এ এক অনন্য অর্জন এবং সত্যিকার অর্থেই আজ ভাইস চেয়ারম্যান স্যারের দূরদর্শী সিদ্ধান্তের কারণে বসুন্ধরা এলপি গ্যাস শুধু নয়, বরং দেশের পরিচিতিতেও এক নতুন মাত্রা যোগ হয়েছে। ’

জাকারিয়া জালাল বলেন, ‘সাধারণ ভোক্তাদের কাছে সুলভ মূল্যে, সঠিক সময়ে গ্যাস পৌঁছে দেওয়ার যে অঙ্গীকার, তা অক্ষুণ্ন রাখতেই আমাদের এই সুবিশাল কর্মযজ্ঞ। যেহেতু বর্তমানে আমাদের দুটি ভিএলজিসি এবং এ ছাড়া কিছু নতুন প্রেশারাইজড ভেসেল যুক্ত হয়েছে, আমরা আশা করছি কয়েক দিনের মধ্যেই আরো অধিক কাজ আমরা সম্পন্ন করতে পারব। এ ছাড়া আমাদের রয়েছে ছয়টি ইনল্যান্ড বা অভ্যন্তরীণ ভেসেল, যেগুলোর সাহায্যে আমরা অতি দ্রুত এলপিজি পণ্য সরবরাহ করে থাকি। এসটিএস অপারেশন এখন দেশে এলপিজি পণ্য পরিবহন এবং অর্থনীতিতে গেম চেঞ্জার হতে চলেছে। ’



সাতদিনের সেরা