kalerkantho

রবিবার । ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৫ ডিসেম্বর ২০২১। ২৯ রবিউস সানি ১৪৪৩

বিশ্ববাজারে তুলার দাম দিন দিন বাড়ছে, ৪ সংগঠনের উদ্বেগ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৫ অক্টোবর, ২০২১ ১৬:৩৯ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বিশ্ববাজারে তুলার দাম দিন দিন বাড়ছে, ৪ সংগঠনের উদ্বেগ

দেশের  ৮৬ শতাংশ রপ্তানি আয়ের খাত তৈরি পোশাক শিল্পের প্রধান কাঁচামাল তুলার বিশ্ববাজার দিন দিন বাড়ছে।  এই অবস্থা চলতে থাকলে আগামীতে পুরো পোশাক ও বস্ত্র খাতে  বড় ধরনের সঙ্কটের আশঙ্কা করছেন এখান সংশ্লিষ্ট পাঁচ  সংগঠন বিজিএমইএ, বিকেএমইএ, বিটিএমএ, বিটিটিএলএমই ও বিসিএ। এ প্রেক্ষাপটে সরকারের নীতি সহায়তা চেয়েছেন উদ্যোক্তারা।

সোমবার রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে ‌‌তুলার অব্যাহত মূল্যের প্রেক্ষিতে বাংলাদেশ টেক্সটাইল ও পোশাক খাতে সৃষ্ট নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া সম্পর্কিত এক সংবাদ সম্মেলন আয়োজন করে বাংলাদেশ কটন অ্যাসোসিয়েশন (বিসিএ)।

এসময় বিসিএ সভাপতি মুহাম্মদ  আইয়ুব এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন তৈরি পোশাক খাতে শীর্ষ  সংগঠন বিজিএমইএ সহ-সভাপতি  মো. শহীদ উল্লাহ  আজীম, বিকেএমইএর নির্বাহী সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম, বিটি এমএ  সহ-সভাপতি মোঃ ফজলুল হক, টেরিটোরিয়াল এসোসিয়েশনের সভাপতি শাহাদাত হোসেন প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তেব্য মুহাম্মদ আইয়ুব বলেন,  গত কয়েক মাস ধরে বিশ্ব বাজারে তুলার দাম বাড়ছে। আন্তর্জাতিক বাজারের প্রাইস ইনডেক্স অনুসারে এই দর গত এক দশকে সর্বোচ্চ। এই প্রেক্ষাপটে তুলার মূল্য নির্ধারণ উৎপাদন প্রাপ্যতা এবং সাপ্লাই চেইন কি হতে পারে এ তথ্য জানাতে ৫ সংগঠন মিলে এ উদ্যোগ।

বিসিএ সভাপতি আরো বলেন,  এই অবস্থা থেকে উত্তরণে এই মুহুর্তে সরকারের নীতিসহায়তা ছাড়া  কোনো বিকল্প নেই। তবে দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা হিসেবে তুলা উৎপাদনকারী দেশ ব্রাজিল, যুক্তরাষ্ট্র, সাউথ আফ্রিকা,দক্ষিণ আফ্রিকা এসব দেশে সরকারি পর্যায়ে কূটনৈতিক সম্পর্ক বাড়িয়ে  তুলা উৎপাদনকারী দেশ থেকে আমদানির পরিকল্পনা নেওয়া যেতে পারে।

এদিকে ক্রান্ত্রিকালে বিটিএমইএ সদস্যরা তাদের কথা রাখছে না উল্লেখ করে বিকেএমইএ নির্বাহী সহ সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম বলেন, অনেক প্রতিষ্ঠার সুযোগে সুতার দাম বাড়িয়ে দিয়েছে। এই বিষয়ে বিটিএমএকে জানিয়েছেন তারা। এই বিষয়ে বিটিএমএর সহ সভাপতি ফজলুল হক বলেন, স্থানীয় বাজারে দাম স্থিতিশীল রাখতে বিটিএমএ তার সদস্যদের পরামর্শ দিয়েছেন। তবে কেউ কেউ কিছুটা দাম বেশি নিচ্ছেন এটা খুবই কম। তবে আমরা চাই দেশের বস্ত্র খাতের  সুরক্ষায় সবাই একসঙ্গে কাজ করবো।

শহীদ উল্ল্যাহ আজিম বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারে তুলার দাম বাড়বে কমবে; এজন্য রাতারাতি সুতার দাম বাড়ানোর সুযোগ নেওয়া ঠিক হবে না। বিষয়টি সবাইকে আমলে নিতে হবে। কারণ পরস্পর সহযোগীতার মনোভাব না থাকলে পুরো বস্ত্র খাতের সংকট হবে। এতেই কেউ লাভবান হবো না।

টেরি টাওয়েল অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি শাহাদাৎ হোসেন বলেন, সংকটকালীন সময়ে সরকার শিল্পকে সুরক্ষা দিয়ে সুতার উপর নিয়ন্ত্রণমূলক শুল্ক সাময়িক সময়ের জন্য প্রত্যাহার করা যেতে পারে। এতে করে স্থানীয় বাজারে সুতার দাম সহনয়ি পর্যায়ে থাকবে। একই সঙ্গে দেশের সুতা নির্ভর শিল্প সুরক্ষা পাবে।



সাতদিনের সেরা