kalerkantho

রবিবার । ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৮। ৫ ডিসেম্বর ২০২১। ২৯ রবিউস সানি ১৪৪৩

পুঁজিবাজারে বড় দরপতন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৮ অক্টোবর, ২০২১ ০৪:১৭ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



পুঁজিবাজারে বড় দরপতন

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ টাওয়ার। ছবি : লুৎফর রহমান

সপ্তাহের প্রথম কর্মদিবস গতকাল রবিবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) মূল্যসূচকের ব্যাপক পতনে লেনদেন শেষ হয়েছে। ডিএসই প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্স ৫৬ পয়েন্ট কমেছে। তবে এদিন ডিএসইতে লেনদেনের পরিমাণ কিছুটা বেড়েছে। অন্য বাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জেও (সিএসই) একই চিত্রে লেনদেন শেষ হয়েছে। ডিএসই ও সিএসই সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে।

গতকাল ডিএসইতে এক হাজার ৬৫৫ কোটি ৩৭ লাখ টাকার শেয়ার ও ইউনিট লেনদেন হয়েছে, যা আগের দিন থেকে ২২১ কোটি ৫০ লাখ টাকা বেশি। বৃহস্পতিবার লেনদেন হয়েছিল এক হাজার ৪৩৩ কোটি ৮৭ লাখ টাকার।

গতকাল ডিএসই প্রধান মূল্যসূচক ডিএসইএক্স ৫৬ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৭১৮৬ পয়েন্টে। অন্য দুই সূচকের মধ্যে ডিএসই৩০ সূচক ১৪ পয়েন্ট কমে এবং ডিএসইএস বা শরিয়াহ সূচক ২১ পয়েন্ট কমেছে। গতকাল ডিএসইতে ৩৭৬টি কম্পানির শেয়ার লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে দাম বেড়েছে ৬৫টির, কমেছে ২৮৭টির ও অপরিবর্তিত রয়েছে ২৪টি কম্পানির।

সিএসইতে সূচকের পতনে লেনদেন শেষ হয়েছে। সিএসই সার্বিক সূচক ১০৫ পয়েন্ট কমে ২১১১ পয়েন্টে অবস্থান করছে। সিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৬৩ কোটি ৮২ লাখ টাকার শেয়ার।

লেনদেনের শীর্ষ ১০ কম্পানি : ফরচুন শুজ, আইএফআইসি, ওরিয়ন ফার্মা, লাফার্জহোলসিম, এনআরবিসি ব্যাংক, বিএটিবিসি, ডেল্টা লাইফ, জেনেক্স ইনফোসিস, বেক্সিমকো লিমিটেড ও সোনালি পেপার।

দাম বাড়ার তালিকায় শীর্ষ ১০ কম্পানি : এসবিএসি ব্যাংক, ফরচুন শুজ, এনআরবিসি ব্যাংক, সোনালি পেপার, সুহৃদ ইন্ডাস্ট্রিজ, আইএফআইসি, প্রাইম লাইফ ইনস্যুরেন্স, বিএটিবিসি, আল-আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংক ও এবি ব্যাংক।

সবচেয়ে দর হারানো ১০ কম্পানি : ওরিয়ন ফার্মা, আইবিপি, ইমাম বাটন, পেপার প্রসেসিং, ফারইস্ট নিটিং, অ্যাডভেন্ট ফার্মা, ওরিয়ন ইনফিউশন, জিপিএইচ ইস্পাত, ফু-ওয়াং সিরামিকস ও জিবিবি পাওয়ার।

৯ কম্পানির অস্বাভাবিক দর বৃদ্ধি

কারণ খুঁজছে তদন্ত কমিটি : শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ৯ কম্পানির অস্বাভাবিক শেয়ারদর বাড়ায় কম্পানিগুলোর প্রতি নজর রাখছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা। বিষয়টি খতিয়ে দেখতে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

তদন্ত কমিটি সূত্রে জানা গেছে, কম্পানিগুলোর শেয়ার নিয়ে কারসাজি করার কিছু আলামত কমিটি খুঁজে পেয়েছে। আলামতগুলো আরো নিখুঁতভাবে যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। প্রয়োজনে কম্পানিগুলোর কারসাজিতে সম্পৃক্ত ব্যক্তিদের শুনানি করা হবে।

কম্পানিগুলো হচ্ছে আনোয়ার গ্যালভানাইজিং, ফু-ওয়াং সিরামিক, পেপার প্রসেসিং অ্যান্ড প্যাকেজিং লিমিটেড, ন্যাশনাল ফিড মিল, ঢাকা ডায়িং, জিবিবি পাওয়ার, এমারেল্ড অয়েল, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইনস্যুরেন্স লিমিটেড ও বিকন ফার্মাসিউটিক্যালস।

বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মোহাম্মদ রেজাউল করিম বলেন, হঠাৎ কম্পানিগুলোর শেয়ারদর অস্বাভাবিক বৃদ্ধির বিষয়টি বিএসইসির নজরে আসে। কম্পানিগুলোর শেয়ারের দাম বৃদ্ধিতে কারসাজি হয়েছে কি না তা খতিয়ে দেখতে কমিটি গঠন করে দেওয়া হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন হাতে পেলে বলা যাবে কারসাজি হয়েছে কি না।

গত ৩০ আগস্ট শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ৯ কম্পানির অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির কারণ খতিয়ে দেখতে চার সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে বিএসইসি। কমিটিকে ৬০ কার্যদিবসের মধ্যে তাদের তদন্ত প্রতিবেদন কমিশনের কাছে দাখিলের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।



সাতদিনের সেরা