kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৩ আশ্বিন ১৪২৮। ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১। ২০ সফর ১৪৪৩

বিবিসির প্রতিবেদন

শিল্প-কারখানা খুলছে না, যা বলছে বিজিএমইএ

অনলাইন ডেস্ক   

২৭ জুলাই, ২০২১ ২০:১৯ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



শিল্প-কারখানা খুলছে না, যা বলছে বিজিএমইএ

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান জানিয়েছেন, লকডাউনের মধ্যে কারখানা খোলা রাখার জন্য শিল্প মালিকদের অনুরোধ তারা রাখতে পারছেন না। আজ মঙ্গলবার ঢাকায় সচিবালয়ে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের এক বৈঠকের পর তিনি এই তথ্য জানান।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেন, ‘আমাদের বৈঠকে সিদ্ধান্ত এসেছে যে, এখন লকডাউন চলছে, ৫ আগস্ট পর্যন্ত তা চলবে। যদিও আমাদের শিল্পপতিরা এবং অনেকেই কারখানা খোলার অনুরোধ করেছিলেন, আমরা সেই অনুরোধ গ্রহণ করতে পারছি না।

সরকারের পক্ষ থেকে আবারও ঘোষণা করা হলো, ৫ অগাস্ট পর্যন্ত চলমান লকডাউনে গার্মেন্টসসহ সব শিল্পকারখানা বন্ধ রেখে বিধিনিষেধ কঠোরভাবে বাস্তবায়ন করা হবে। সরকারের এমন অবস্থানে সতর্ক প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন গার্মেন্টস মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ'র নেতারা। তারা বলেছেন, তারা কারখানা খোলার তাদের দাবি পুনর্বিবেচনার করার জন্য আবারও সরকারের কাছে অনুরোধ জানাবেন।

বিজিএমইএসহ পোশাক খাতের মালিকদের বিভিন্ন সংগঠন সরকারের কাছে লকডাউনের মধ্যেই পহেলা আগস্ট থেকে কারখানা খুলে দেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছিল। তাদের বড় যুক্তি ছিল, বিদেশি ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী আগস্টের প্রথম সপ্তাহ থেকে পণ্য সরবরাহ শুরু করা সম্ভব না হলে বড় সংকট সৃষ্টি হবে।

শিল্প কারখানার মালিকরা এই অনুরোধ জানিয়েছেন এমন এক সময় যখন দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ এবং মৃত্যু বেড়েই চলেছে। এই পরিস্থিতিতে মঙ্গলবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নেতৃত্বে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে একটি বৈঠক হয়েছে। তাতে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা এবং পুলিশ বিজিবিসহ বিভিন্ন বাহিনীর প্রধানরা অংশ নেন। এই বৈঠকে চলমান লকডাউন এবং সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ে পর্যালোচনা করে শিল্প মালিকদের কারখানা খোলার অনুরোধ নাকচ করা হয়েছে।

কর্মকর্তারা বলেছেন, সংক্রমণ এবং মৃত্যু এখনও কমছে না। সেকারণে এমুহূর্তে জীবন রক্ষার বিষয়কে অগ্রাধিকার দিয়ে ৫ আগস্ট পর্যন্ত লকডাউনে কোন ছাড় না দেয়া সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তবে ৫ আগস্টের পর লকডাউন থাকবে নাকি শিথিল করা হবে-সে ব্যাপারে পরিষ্কার কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছেন, বিষয়টিতে তারা পরে সিদ্ধান্ত নেবেন।

এদিকে, বিজিএমইএ'র সভাপতি মো. ফারুক হাসান বলেছেন, তারা সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করার জন্য আবারও সরকারকে অনুরোধ জানাবেন। তিনি বিদেশি ক্রেতাদের চাহিদা অনুযায়ী দ্রুত পণ্য সরবরাহের তাদের পুরোনো যুক্তিই আবার তুলেছেন। একইসাথে তিনি উল্লেখ করেছেন, কারখানা খোলা রেখে শ্রমিকদের টিকা দেওয়া নিশ্চিত করা সম্ভব হবে। এখন এসব যুক্তি নিয়েই তারা সরকারের সাথে আবারও আলোচনা করবেন।



সাতদিনের সেরা