kalerkantho

শনিবার । ৯ মাঘ ১৪২৭। ২৩ জানুয়ারি ২০২১। ৯ জমাদিউস সানি ১৪৪২

নতুন চার রুটে ফ্লাইটের পরিকল্পনা

ইউএস বাংলার বহরে আসছে আরো চার উড়োজাহাজ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৩ নভেম্বর, ২০২০ ১৮:৩৪ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ইউএস বাংলার বহরে আসছে আরো চার উড়োজাহাজ

নতুন বছরের শুরুতে মধ্যপ্রাচ্যের অন্যতম গন্তব্য দুবাই ও আবুধাবীতে ফ্লাইট চালু করবে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনস। সেই সঙ্গে শ্রীলংকার রাজধানী কলম্বো ও মালদ্বীপের রাজধানী মালেতে ফ্লাইট চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিমান সংস্থাটি। বর্তমান ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার আন্তর্জাতিক রুটগুলোকে নির্বিঘ্ন করতে ইউএস-বাংলার বিমান বহরে আরো দু’টি বোয়িং ৭৩৭-৮০০ এয়ারক্রাফট যুক্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে এয়ারলাইন্স কর্তৃপক্ষ। এছাড়া বিমান বহরে দু’টি ব্র্যান্ডনিউ এটিআর ৭২-৬০০ যুক্ত কওে যশোর-চট্টগ্রাম, সৈয়দপুর-কক্সবাজার, সিলেট-চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন অভ্যন্তরীণ রুটের পরিকল্পনার কথা জানিয়েছেন ইউএস-বাংলার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) ক্যাপ্টেন শিকদার মেজবাহউদ্দিন আহমেদ।

কক্সবাজারের একটি হোটেলে রবিবার এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ তথ্য জানান। এসময় বিমান সংস্থাটির পরিচালক ফ্লাইট অপারেশনস ক‍্যাপ্টেন নুরুদ্দিন মাসুদ, ক‍্যাপ্টেন সাদাত, মহাব‍্যবস্থাপক (জনসংযোগ) কামরুল ইসলামসহ অন্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বর্তমান ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনসের বিমান বহরে চারটি বোয়িং ৭৩৭-৮০০, ৬টি ব্র্যান্ডনিউ এটিআর ৭২-৬০০সহ মোট তেরটি এয়ারক্রাফট আছে। ৬টি ব্যান্ডনিউ এটিআর ৭২-৬০০ ও তিনটি ড্যাশ৮-কিউ৪০০ এয়ারক্রাফট দিয়ে ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, সিলেট, যশোর, সৈয়দপুর, রাজশাহী ও বরিশাল রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করছে ইউএস-বাংলা। এছাড়া বোয়িং ৭৩৭-৮০০  দিয়ে ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার রুটেও ফ্লাইট পরিচালনা করছে।

সংবাদ সম্মেলন জানানো হয়, করোনা ভাইরাসের করাল গ্রাসে এভিয়েশন ও ট্যুরিজম ইন্ডাস্ট্রি চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সারাবিশ্বের আকাশপথ অনেকটা লক ডাউন অবস্থায় ছিলো। গত ফেব্রুয়ারী-মার্চ মাস থেকে এভিয়েশন ইন্ডাস্ট্রিজ ক্ষতির সম্মুখিন হয়েছে। জুন-জুলাই পর্যন্ত প্রায় সকল ধরনের আকাশ পথের যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ ছিলো। বর্তমানে স্বল্প পরিসরে আন্তর্জাতিক রুট গুলোতে নানাবিধ স্বাস্থ্যবিধির নির্দেশনা মেনে ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করেছে অন্যান্য এয়ারলাইনসের মতো ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনসও।

ক্যাপ্টেন শিকদার মেজবাহউদ্দিন আহমেদ বলেন, গত ২৮ অক্টোবর থেকে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে এয়ার বাবল চুক্তির অধীনে আমরা ঢাকা থেকে কলকাতা ও চেন্নাই এবং চট্টগ্রাম থেকে চেন্নাই রুটে ফ্লাইট পরিচালনা শুরু করেছি। আপনারা জেনে খুশি হবেন গত ১৭ নভেম্বর থেকে প্রথমবারের মতো সিলেট থেকে সপ্তাহে দু’টি ফ্লাইট মাস্কাটে পরিচালনা শুরু করেছে ইউএস-বাংলা। বর্তমানে ঢাকা থেকে কলকাতা, চেন্নাই ছাড়াও মাস্কাট, দোহা, সিঙ্গাপুর, কুয়ালালামপুর ও গুয়াংজু রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করছে। এছাড়া চট্টগ্রাম থেকে মাস্কাট, দোহা ও চেন্নাই রুটে ফ্লাইট পরিচালনা অব্যাহত রেখেছে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইনস।

করোনা ভাইরাসের মহামারির সময় বিভিন্ন দেশে আটকে পড়া বাংলাদেশীদের ফিরিয়ে আনতে দুবাই, আবুধাবী, দিল্লী, চেন্নাই, মালে, কুয়ালালামপুর, ব্যাংকক, সিঙ্গাপুর, হ্যানয়, ফ্রান্সের প্যারিসসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ১০০ টির অধিক স্পেশাল ফ্লাইট পরিচালনা করেছে।

ক্যাপ্টেন শিকদার মেজবাহউদ্দিন আহমেদ বলেন, নানা সমস্যায় জর্জরিত এভিয়েশন ও ট্যুরিজম ইন্ডাস্ট্রিজ। বিভিন্ন সময়ে বাংলাদেশের এভিয়েশন খাতকে বাঁচিয়ে রাখতে সরকারের সহায়তার জন্য আবেদন করেছে বেসরকারী এয়ারলাইনস। বিশেষ করে এ্যারোনটিক্যাল ও নন-এ্যারোনটিক্যাল চার্জকে সহনীয় পর্যায়ে নিয়ে আসা, জেট ফুয়েল কস্টকে আন্তর্জাতিক মানদন্ডে নিরূপন করা, প্যাসেঞ্জার এয়ারলাইন্স এর জন্য হ্যাঙ্গার সুবিধা ইত্যাদি ইত্যাদি। প্রতিযোগিতার স্বার্থে জাতীয় বিমান সংস্থার সাথে বেসরকারী এয়ারলাইন্স এর জন্য লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড তৈরী করা।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা