kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১১ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ২৬ নভেম্বর ২০২০। ১০ রবিউস সানি ১৪৪২

বড় শিল্প ও সেবা খাতে প্রণোদনা তহবিলের আকার বাড়ল

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৯ অক্টোবর, ২০২০ ১৯:৪৯ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বড় শিল্প ও সেবা খাতে প্রণোদনা তহবিলের আকার বাড়ল

দ্বিতীয়বারের মতো বাড়ানো হলো বড় শিল্প ও সেবা খাতে ঘোষিত প্রণোদনা তহবিলের আকার। এবার সাত হাজার কোটি টাকা বাড়িয়ে ৪০ হাজার কোটি টাকায় উন্নীত করা হয়েছে এ তহবিলটি। বাড়তি এই ৭ হাজার কোটি টাকা বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা), বাংলাদেশ রপ্তানী প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেপজা) এবং বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষ-তে অবস্থিত ‘এ’, ‘বি’ ও ‘সি’ টাইপ শিল্প প্রতিষ্ঠানের চলতি মূলধন হিসেবে ঋণ সুবিধা প্রদানের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ ব্যাংকের ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করা হয়েছে।

করোনাভাইরানের প্রাদুর্ভাবের কারণে বাংলাদেশে সম্ভাব্য অর্থনৈতিক প্রভাব মোকাবেলায় দেশের অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড পুনরুজ্জীবিতকরণ, শ্রমিক-কর্মচারীদের কাজে বহাল এবং উদ্যোক্তাদের প্রতিযোগিতার সক্ষমতা অক্ষুন্ন রাখার লক্ষ্যে স্বল্প সুদে ঋণ সুবিধা প্রদানের লক্ষ্যে গত ৫ এপ্রিল ক্ষতিগ্রস্ত বড় শিল্প ও সেবা খাতের প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য চলতি মূলধন ঋণ সুবিধা দিতে ৩০ হাজার কোটি টাকার আর্থিক সহায়তা প্যাকেজ ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পরবর্তীতে সচল রপ্তানীমূখী শিল্প-প্রতিষ্ঠানে কর্মরত শ্রমিক কর্মচারীদের জুলাই মাসের বেতন-ভাতা প্রদানের জন্য ৩০ হাজার কোটি টাকার আর্থিক সহায়তা প্যাকেজটি ৩ হাজার কোটি টাকা বৃদ্ধি করে ৩৩ হাজার কোটি টাকায় উন্নীত করা হয়। এখন আর্থিক সহায়তা প্যাকেজটি ৩৩ হাজার কোটি টাকা হতে বৃদ্ধি করে ৪০ হাজার কোটি টাকায় উন্নীত করা হয়েছে। 

সার্কুলারে বলা হয়, করোনাভাইরাস (কভিড-১৯)-এর কারণে দেশীয় মালিকানাধীন শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলোর পাশাপাশি সামগ্রিকভাবে দেশে কার্যরত বিদেশি মালিকানাধীন এবং যৌথ মালিকানাধীন শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় এ সকল প্রতিষ্ঠানের আর্থিক সক্ষমতা বৃদ্ধির মাধ্যমে উৎপাদন ও কর্মসংস্থান অব্যাহত রাখার লক্ষ্যে এ প্যাকেজের আওতায় বর্ধিত ৭ হাজার কোটি টাকা বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা), বাংলাদেশ রপ্তানী প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেপজা) এবং বাংলাদেশ হাই-টেক পার্ক কর্তৃপক্ষ-তে অবস্থিত ‘এ’, ‘বি’ ও ‘সি’ টাইপ শিল্প প্রতিষ্ঠানের চলতি মূলধনব ঋণ সুবিধা প্রদানের জন্য প্রযোজ্য হবে। এ ঋণের সুদের হারও হবে ৯ শতাংশ, যার মধ্যে ৪.৫০ শতাংশ ভর্তুকি বাবদ প্রদান করবে সরকার।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা