kalerkantho

সোমবার । ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৭। ৩০ নভেম্বর ২০২০। ১৪ রবিউস সানি ১৪৪২

হিমাগারের কারসাজিতে আলুর দাম কমছে না

রোকন মাহমুদ   

২০ অক্টোবর, ২০২০ ০৩:০৩ | পড়া যাবে ৫ মিনিটে



হিমাগারের কারসাজিতে আলুর দাম কমছে না

আলুর অতি উচ্চ দামে বিপাকে ভোক্তারা। সরকার ২৫ টাকা কেজি দর বেঁধে দিলেও বাজারে তার বাস্তবায়ন নেই। প্রশাসনের অভিযানের মুখে বিক্রেতারা অনেকে আলু বিক্রি করাই বন্ধ করে দিয়েছেন। তাঁদের দাবি, পাইকারি বাজারে দাম বেশি হওয়ায় তাঁরাও বেশি দামে বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন।

পাইকারি বিক্রেতারা বলছেন, অনেক ব্যাপারী সরকার নির্ধারিত দামে আলু সরবরাহ করতে নারাজ। এ জন্য তাঁরা হিমাগার থেকে আলু সরবরাহ করছে না। ফলে পাইকারি বাজারগুলোতে সরবরাহ কমে গেছে। বেশি দামে কিনতে হচ্ছে বলে তাঁরাও সরকার নির্ধারিত দরে আলু বিক্রি করতে পারছেন না। বাজারে আলুর দাম কমাতে হলে হিমাগার পর্যায় থেকেই কমাতে হবে।

আলুর দাম বেঁধে দিয়ে গত ৭ অক্টোবর জেলা প্রশাসকদের চিঠি দেয় কৃষি বিপণন অধিদপ্তর। সেই সিদ্ধান্ত কার্যকর হওয়ার বিষয়টি এরই মধ্যে তদারকি শুরু করেছে স্থানীয় প্রশাসন। স্থানীয় ব্যবসায়ীদের সঙ্গে আলোচনা, সতর্ক করাসহ বিভিন্ন উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন বাজারে অভিযান পরিচালনা করছে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। কৃত্রিমভাবে দাম বৃদ্ধিকারীদের জরিমানাও করা হচ্ছে। তার পরও আলুর বাজারে অস্থিরতা চলছে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে আজ মঙ্গলবার ঢাকায় সমন্বয় বৈঠক হতে যাচ্ছে। ব্যাপারী, কৃষক ও হিমাগার মালিকদের নিয়ে অনুষ্ঠেয় এই বৈঠক থেকে আলুর দর বেঁধে দেওয়া নিয়ে নতুন কোনো সিদ্ধান্ত আসতে পারে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে আভাস মিলেছে।

রাজধানীর কারওয়ান বাজারে গতকাল সোমবার পাইকারিতে আলু বিক্রি হয়েছে ৩৫ থেকে ৩৮ টাকা কেজি। বিক্রেতারা বলেন, ‘বাজারের ২২টি আড়তের মধ্যে মাত্র তিনটিতে আলু আছে। তাও পর্যাপ্ত নয়। সরকার নির্ধারিত মূল্যে আলু বিক্রি করলে আমাদের বড় অঙ্কের লোকসান গুনতে হবে। মুন্সীগঞ্জ জেলায় হিমাগার পর্যায়ে আলুর দাম চাওয়া হচ্ছে ৩৫ টাকা কেজি। সেখান থেকে আড়তে আসতে আরো দুই টাকা খরচ পড়বে। আমরা আছি উভয় সংকটে। বেশি দামে বিক্রি করলে জরিমানা গুনতে হবে। আবার দাম কম বললে হিমাগার থেকে আলু দেয় না।’

কোল্ড স্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশনের নেতারা বলছেন, সরকার দাম বেঁধে দেওয়ায় মুন্সীগঞ্জ, কুমিল্লা, রাজশাহীসহ বিভিন্ন অঞ্চলের কোল্ড স্টোরেজ থেকে ব্যাপারীরা আলুর সরবরাহ বন্ধ করে দিয়েছেন। বেশি দামে বিক্রি করলে সরকারের নির্দেশ অমান্য করা হয়। আবার সরকার নির্ধারিত দরে আলু বিক্রি করতেও নারাজ কৃষক ও ব্যাপারীরা। এ অবস্থায় তাঁরা কোল্ড স্টোরেজ থেকে আলু বিক্রিই বন্ধ রেখেছেন। এতে করে বিভিন্ন পাইকারি বাজারে আলু সরবরাহে ঘাটতি দেখা দিয়েছে। গত পাঁচ থেকে ছয় দিন ধরে এই অবস্থা চলছে।

বাংলাদেশ কোল্ড স্টোরেজ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মোজাম্মেল হক কালের কণ্ঠকে গতকাল বলেন, ‘হিমাগারে যেসব ব্যাপারী আলু রেখেছেন তাঁরা আলু বের করছেন না। আবার তাঁদের পক্ষ থেকে আলুর দাম বাড়ানোর মতো কোনো দাবিও আমাদের কাছে আসেনি।’

আলুর বাজারের এ পরিস্থিতিতে আজ কৃষি বিপণন অধিদপ্তরে সমন্বয় বৈঠক করতে যাচ্ছে সরকার। এতে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের ব্যাপারী, কৃষক ও হিমাগার মালিকরা উপস্থিত থাকবেন। বৈঠকে সরকারের বেঁধে দেওয়া দামের যৌক্তিকতা, বাজারে আলুর সরবরাহ বৃদ্ধির উপায় ইত্যাদি নিয়ে আলোচনা হবে। কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বৈঠকে সভাপতিত্ব করতে পারেন।

গতকাল সোমবার রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন পাইকারি বাজারে আলুর দাম কিছুটা কমে আসার চিত্র দেখা গেছে। তবে খুচরা বাজারে এর সঙ্গে ব্যবধান অনেক বেশি। কৃষি বিপণন অধিদপ্তর প্রতিদিন যে পাইকারি মূল্য সংগ্রহ করে, সেই তালিকা অনুসারে গতকাল রাজধানীর বিভিন্ন বাজারে আলু বিক্রি হয়েছে ২৭ থেকে ২৮ টাকা কেজি। তবে বাস্তবে ভিন্ন চিত্র দেখা গেছে। বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার গেট কাঁচাবাজারে এদিন আলুর সর্বোচ্চ দাম ছিল ৫০ টাকা। বেশ কয়েকটি দোকানে ৪৫ টাকায়ও বিক্রি হয়। বিক্রেতা আবুল হোসেন বলেন, ‘পাইকারিতে দাম বেশি হওয়ায় আমাদেরও বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে।’ ভাটারার ঢালিবাজারের বিক্রেতা মেহেদি হাসান বলেন, ‘আমাদের কেনা পড়েছে ৪২ টাকা কেজি। ফলে ৪৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি করাও কষ্টকর।’

উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বাজার স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনতে ২৫ টাকা কেজি দরে আলু বিক্রি করবে ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশ-টিসিবি। টিসিবি ও ডিলার সূত্রে জানা গেছে, আগামী বৃহস্পতিবার থেকে আলু বিক্রি শুরু হতে পারে। প্রতি ট্রাকে প্রাথমিকভাবে ১০০ কেজি করে দেওয়া হতে পারে।

টিসিবির মুখপাত্র হুমায়ুন কবির বলেন, ‘নির্দিষ্ট একটি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে আলু সংগ্রহ করতে হবে। তারপর ট্রাকে দেওয়া যাবে। আমরা সাধ্যমতো চেষ্টা করছি, যেন চলতি সপ্তাহ থেকে দিতে পারি।’

টিসিবির ডিলার রাজধানীর মাহিরা ট্রেডার্সের মালিক মো. মামুন বলেন, ‘আমাদের নির্দিষ্ট করে কিছু বলা হয়নি। তবে বৃহস্পতিবার দেওয়া হবে বলে একটা ধারণা দেওয়া হয়েছে।’

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা