kalerkantho

মঙ্গলবার । ১১ কার্তিক ১৪২৭। ২৭ অক্টোবর ২০২০। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

বন্ড সুবিধার অপব্যবহার, লাইসেন্স স্থগিত চার প্রতিষ্ঠানের

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা    

২০ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ১০:২০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বন্ড সুবিধার অপব্যবহার, লাইসেন্স স্থগিত চার প্রতিষ্ঠানের

বাগেরহাট-মোংলার চারটি রপ্তানিমুখী প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে বন্ড সুবিধায় আনা পণ্য অবৈধভাবে বাজারে বিক্রির অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই অভিযোগে প্রতিষ্ঠান চারটির বন্ড লাইসেন্স স্থগিত করেছে মোংলা কাস্টম হাউস কর্তৃপক্ষ। রাজস্বের টাকা আদায়ের জন্য কারণ দর্শানোর নোটিশও দেওয়া হয়েছে। আর কর্তব্যে অবহেলার জন্য বিভাগীয় মামলা হয়েছে চার শুল্ক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে।

মোংলা কাস্টম হাউসের কমিশনার হোসেন আহমেদ জানান, সম্প্রতি ‘আলফা অ্যাক্সেসরিজ অ্যান্ড অ্যাগ্রো এক্সপোর্ট লিমিটেড’ পরিদর্শন করা হয়। পরিদর্শনকালে বন্ড গুদামের ডুপ্লেক্স বোর্ড, পলিথিন দানা, বিওপিপি ফিল্ম, ক্রাফট লাইনার পেপার, পেস্টিং গামসহ বিভিন্ন পণ্যের হিসাব-নিকাশে গরমিল পাওয়া যায়। হিসাব করে প্রমাণ হয় যে প্রতিষ্ঠানটি ২৪ কোটি ১২ লাখ ৩৬ হাজার টাকার শুল্ক ফাঁকি দিয়েছে।

একইভাবে মোংলা ইপিজেডের ‘মুনস্টার পলিমার এক্সপোর্ট লিমিটেড’ পাঁচ কোটি ৫২ লাখ ৪৩ হাজার টাকার, ‘ইস্টার্ন পলিমার লিমিটেড’ আট কোটি ৪০ লাখ ২২ হাজার টাকা এবং ‘বাংলাদেশ পলি প্রিন্টিং ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেড’ ১৪ কোটি ৫৩ লাখ ৭২ হাজার টাকার শুল্ক ফাঁকি দিয়েছে। আলফা অ্যাক্সেসরিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আরজান জানান, তিনি শুল্ক ফাঁকির কারণ দর্শানোর নোটিশ পেয়েছেন।

মোংলা বন্দর গতিশীল করতে সেখানে রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ এলাকা (ইপিজেড) প্রতিষ্ঠা করা হয়। কিন্তু অনেক অসাধু প্রতিষ্ঠান বন্ড সুবিধায় পণ্য এনে ঢাকায় বিক্রি করে দেয়। এমনকি পণ্য রপ্তানির জন্য বছরে যে পরিমাণ কাঁচামাল প্রয়োজন, বন্ড সুবিধায় তার চেয়ে শতগুণ বেশি পণ্য আমদানি করা হয়। এসব পণ্য অবৈধভাবে বাজারে বিক্রি করে রাজস্ব ফাঁকি দেওয়া হয়। শ্রমিকরা করোনায় আক্রান্ত—এমন যুক্তি দেখিয়ে দুটি প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হয়েছে। দুটি প্রতিষ্ঠানই বন্ড সুবিধায় পণ্য আমদানি করে। কাস্টম কর্তৃপক্ষের আশঙ্কা, ওই প্রতিষ্ঠান দুটিতেও বন্ডসংক্রান্ত দুর্নীতি রয়েছে। আর এ কারণে প্রতিষ্ঠান দুটি বন্ধ রাখা হয়েছে।

মোংলা কাস্টম হাউসের কমিশনার হোসেন আহমেদ স্বীকার করেন, মাত্র কয়েক মাসের মধ্যে তিনি ১৮৪টি শুল্ক ফাঁকি কিংবা চেষ্টার অভিযোগ পেয়েছেন। এসব ঘটনায় ২০ কোটি টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা