kalerkantho

সোমবার । ৬ আশ্বিন ১৪২৭ । ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০। ৩ সফর ১৪৪২

যে কারণে বৈশ্বিক কম্পানিগুলো ভিয়েতনামমুখী

মুহাম্মদ শরীফ হোসেন    

২৯ জুলাই, ২০২০ ০৯:৩৯ | পড়া যাবে ৪ মিনিটে



যে কারণে বৈশ্বিক কম্পানিগুলো ভিয়েতনামমুখী

যুক্তরাষ্ট্র-চীন বাণিজ্যযুদ্ধ শুরু হওয়ার পর থেকেই অনেক বহুজাতিক কম্পানি উৎপাদনব্যবস্থা চীন থেকে ভিয়েতনামে সরিয়ে নিচ্ছে। করোনা মহামারি এ প্রবণতা আরো বাড়িয়ে দিয়েছে। স্যামসাং, নিক, অ্যাডিডাস, লভস্যাক, প্যানাসনিকসহ আরো অনেক বহুজাতিক কম্পানি ভিয়েতনামে কারখানা স্থাপন করেছে, অনেকের প্রক্রিয়াধীন। শুধু জাপানেরই অনেক কম্পানি ভিয়েতনামে কারখানা স্থানান্তর করছে। জাপান ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড অর্গানাইজেশন (জেট্রো) জানায়, চীন থকে তাদের ৫৭টি কারখানা জাপানে এসেছে। এ ছাড়া ১৫টি ভিয়েতনামে, ছয়টি থাইল্যান্ডে, চারটি মালয়েশিয়ায়, তিনটি ফিলিপাইনে, দুটি লাওসে, একটি ইন্দোনেশিয়ায় এবং একটি মিয়ানমারে যাচ্ছে।

উৎপাদন নৈপুণ্য আর পণ্যমান রক্ষায় একনিষ্ঠতার পরিচয় দেওয়ায় ভিয়েতনাম এরই মধ্যে ‘চায়না প্লাস ওয়ান’ (চীনে যা পাওয়া যায়, এরাও তা দিতে সক্ষম) বলে অভিহিত হতে শুরু করেছে। ফলে চীন ছাড়তে আগ্রহী অনেক কম্পানির কাছে তুলনামূলক অগ্রাধিকার পাচ্ছে ভিয়েতনাম। এসব কম্পানিকে টানতে তারা প্রশাসনিক প্রক্রিয়াও সহজ করে দিচ্ছে। ব্যবসা ও বিনিয়োগ সহজীকরণে গুরুত্ব দিচ্ছে।

চীনের অদূরে অবস্থিত হওয়ায় ভিয়েতনামে যন্ত্রপাতি স্থানান্তর ব্যয় কম। তা ছাড়া এ দেশে আগে থেকেই ব্যবসা-বাণিজ্য করছে আন্তর্জাতিকভাবে সুখ্যাত অনেক কম্পানি। সবচেয়ে বড় কথা, কভিড-১৯ নিয়ন্ত্রণে দ্রুত সাফল্য দেখিয়ে ভিয়েতনাম বিশ্বের প্রশংসা পেয়েছে। উন্নত ও উন্নয়নশীল দেশগুলো যখন করোনায় বিপর্যস্ত, অর্থনীতি খোলার সাহস পাচ্ছে না তখন ভিয়েতনাম সমন্বিত উদ্যোগে করোনা নিয়ন্ত্রণ করে অর্থনীতি খুলে দিয়েছে।

বহুজাতিক কম্পানি টানতে নানা রকম ছাড় ও সুবিধা দিচ্ছে ভিয়েতনাম। দেশটিতে করপোরেট করহার ২০ শতাংশ। অনগ্রসর এলাকায় বিনিয়োগের ক্ষেত্রে উৎপাদনের প্রথম ১০ বছরের জন্য রয়েছে শতভাগ কর অব্যাহতি সুবিধা। মূল্য সংযোজন করের (ভ্যাট) হারও মাত্র ৭ শতাংশ। যা বিদেশি কম্পানিগুলোর জন্য পছন্দসই অফার। এ ছাড়া চীন থেকে স্থানান্তরিত হওয়া বিনিয়োগ টানতে স্পেশাল টাস্কফোর্স গঠন করেছে ভিয়েতনাম।

জাতিসংঘের বাণিজ্য ও উন্নয়ন সংস্থা আংকটাডের হিসাব অনুযায়ী, করোনার প্রভাবে এ বছর বিশ্বব্যাপী বিদেশি বিনিয়োগ ৪০ শতাংশ কমতে পারে। অথচ বছরের প্রথম ভাগে শুধু ভিয়েতনামের রাজধানী হ্যানয়ে বিনিয়োগ প্রস্তাব এসেছে ২৬ বিলিয়ন ডলারের। জুন পর্যন্ত ছয় মাসে দেশটিতে বিদেশি বিনিয়োগ বেড়েছে ৩.১ শতাংশ। এমনকি মে মাসের চেয়ে জুন মাসে বেড়েছে ১৪.৯ শতাংশ। মূলত করোনা নিয়ন্ত্রণের পর থেকেই দেশটিতে বিদেশি বিনিয়োগ বাড়তে শুরু করেছে। যার বেশির ভাগ আসছে এশিয়ার দেশগুলো থেকে।

বিনিয়োগ আকর্ষণে ভিয়েতনামের এগিয়ে থাকার আরেকটি বড় কারণ বিভিন্ন দেশের সঙ্গে করা মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি। ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) সঙ্গে সম্প্রতি তারা মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি করেছে। গত ২০ বছরে আরো অনেক দেশ ও অঞ্চলের সঙ্গে তাদের মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি হয়েছে। আমেরিকার সঙ্গে মুক্ত বাণিজ্য চুক্তি রয়েছে। ফলে চীন থেকে যেসব কম্পানি ভিয়েতনামে কারখানা সরাচ্ছে তারা একসঙ্গে ইইউ ও আমেরিকায় শুল্ক সুবিধা পাচ্ছে।

হ্যানয়ের ভিয়েত ক্যাপিটাল সিকিউরিটিজের কর্মকর্তা লুয়ং হোয়াং বলেন, সাম্প্রতিক সময় স্থিতিশীল অর্থনীতি ভিয়েতনামের নতুন আকর্ষণ হয়ে উঠেছে। ডলারের তুলনায় ভিয়েতনামিজ ডং মোটামুটি স্থির রেখেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। ব্যাংকঋণের ক্ষেত্রে সীমাবদ্ধতা আরোপ করা হয়েছে। মুদ্রাস্ফীতি রয়েছে এক অঙ্কের ঘরেই। ২০০৭ সালে বিশ্ববাণিজ্য সংস্থায় যোগ দেয় ভিয়েতনাম। এরপর দক্ষিণ কোরিয়া ও জাপানের সঙ্গে চুক্তি করেছে তারা। এই দুটি দেশ ভিয়েতনামে অন্যতম প্রধান বিনিয়োগকারী। গত মাসে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গেও চুক্তি হয়েছে। চলতি বছর বড় বিনিয়োগ এসেছে চীন, হংকং ও সিঙ্গাপুর থেকে। এ ছাড়া চীন-যুক্তরাষ্ট্র বাণিজ্য ও প্রযুক্তি লড়াইয়ে ভুক্তভোগী প্রতিষ্ঠানগুলোরও অন্যতম গন্তব্যস্থল হয়ে উঠেছে ভিয়েতনাম।

বিশ্বব্যাংক ও ওয়াশিংটনভিত্তিক গবেষণা সংস্থা ব্রুকিংসের মতে, ভিয়েতনামের উন্নয়ন যাত্রায় তিনটি বিষয়ের অবদান রয়েছে। প্রথমত, দেশটি বাণিজ্য উদারীকরণ করেছে। দ্বিতীয়ত, নিয়ন্ত্রণ না করে এবং ব্যবসা শুরুর ব্যয় কমিয়ে অভ্যন্তরীণ সংস্কারের সঙ্গে বাহ্যিক উদারীকরণকে পরিপূরক করেছে। তৃতীয়ত, ভিয়েতনাম নিজেদের মানুষের জন্য ব্যাপক বিনিয়োগ করেছে। গড়ে তুলেছে মজবুত ভিত্তির অবকাঠামো।

প্রয়োজনীয় অবকাঠামো ও বাজারবান্ধব নীতির কারণে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বিদেশি বিনিয়োগ এবং উৎপাদনকেন্দ্র হিসেবে পরিণত হয়েছে ভিয়েতনাম। তৈরি পোশাক খাতের পাশাপাশি ইলেকট্রনিকস পণ্য তৈরির বড় বড় কম্পানিও ভিয়েতনামে কারখানা প্রতিষ্ঠা করেছে। সূত্র : রয়টার্স, ব্যাংকক পোস্ট, ভিয়েতনামপ্লাস।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা