kalerkantho

সোমবার । ৬ আশ্বিন ১৪২৭ । ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০। ৩ সফর ১৪৪২

৯% সুদ কার্যকরে গড়িমসি

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৮ জুলাই, ২০২০ ১১:১৫ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



৯% সুদ কার্যকরে গড়িমসি

ঋণের সুদের হার ৯ শতাংশে নামিয়ে আনতে গড়িমসি করছে বেশ কয়েকটি ব্যাংক। বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্দেশনা মেনে গত জুনেও অন্তত সাতটি ব্যাংক ৯ শতাংশের নিচে সুদ নামাতে ব্যর্থ হয়েছে। এর সবকয়টিই বেসরকারি খাতের ব্যাংক। মে মাসে ব্যর্থের তালিকায় ছিল ১৩টি। আর এপ্রিলে ছিল ১৫টি ব্যাংক। বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদন পর্যালোচনায় এসব তথ্য পাওয়া গেছে।

ঋণের সুদের হার ৯ শতাংশে নামিয়ে আনার নির্দেশনা দিয়ে গত ২৪ ফেব্রুয়ারি সার্কুলার জারি করে বাংলাদেশ ব্যাংক। এতে বলা হয়, ১ এপ্রিল থেকে ক্রেডিট কার্ড ছাড়া সব ধরনের ঋণ ও বিনিয়োগের সর্বোচ্চ সুদের হার হবে ৯ শতাংশ। গ্রাহক কোনো কারণে খেলাপি হলে ওই সময়ের জন্য ঋণের কিস্তির বিপরীতে ৯ শতাংশের বাইরে অতিরিক্ত আরো ২ শতাংশ দণ্ডসুদ আরোপ করা যাবে। এর বাইরে ঋণের বিপরীতে অন্য কোনো সুদ বা মুনাফা আরোপ করা যাবে না।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনে দেখা যায়, ক্রেডিট কার্ড ও ভোক্তা ঋণ ছাড়া জুন মাসে ব্যাংক খাতের গড় সুদহার নেমেছে ৭.৮৬ শতাংশে। গত মে মাসে যা ছিল ৮.০৯ শতাংশ। এ সময়ে আমানতের গড় সুদহার ৫.০৬ শতাংশে নেমেছে, যা মে মাসে ছিল ৫.২৪ শতাংশ। ফলে জুনে ব্যাংকগুলোর ঋণ ও আমানতের সুদের স্প্রেড দাঁড়িয়েছ ২.৮০ শতাংশে। মে মাসে ছিল ২.৮৫ শতাংশ।

অন্যদিকে ক্রেডিট কার্ড ও ভোক্তা ঋণসহ ব্যাংকিং খাতে জুন মাসে গড় সুদহার নেমেছে ৭.৯৫ শতাংশে। গত মে মাসে যা ছিল ৮.১৮ শতাংশ। এ সময়ে আমানতের গড় সুদহার ৫.২৪ শতাংশে নেমেছে, যা এপ্রিলে ছিল ৫.৩৭ শতাংশ। ফলে ব্যাংকগুলোর সুদের গড় স্প্রেড দাঁড়িয়েছে ২.৮৯ শতাংশে, যা এপ্রিলে ছিল ২.৯৪ শতাংশ।

প্রতিবেদন অনুযায়ী, ক্রেডিট কার্ড ও ভোক্তা ঋণ ছাড়া জুন মাসে বেসরকারি ব্যাংকের ঋণের গড় সুদহার ছিল ৮.২৩ শতাংশ। আর আমানতে ছিল ৫.৪২ শতাংশ। ফলে তাদের গড় স্প্রেড নেমেছে ২.৮১ শতাংশ। এ সময়ে বিদেশি ব্যাংকগুলো গড়ে ২.৭৩ শতাংশ সুদে আমানত এবং ৭.৬৩ শতাংশ সুদে ঋণ দিয়েছে। ফলে এসব ব্যাংকের স্প্রেড নেমেছে ৪.৯০ শতাংশে। সরকারি মালিকানার বিশেষায়িত ব্যাংকগুলো গড়ে ৫.৬১ শতাংশ সুদে আমানত এবং ৭.৭৬ শতাংশ সুদে ঋণ দিয়েছে। ফলে তাদের স্প্রেড নেমেছে ২.১৫ শতাংশে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা