kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ১৮ জুলাই ২০১৯। ৩ শ্রাবণ ১৪২৬। ১৪ জিলকদ ১৪৪০

বাংলাদেশি মসলা ও কৃষিপণ্যের প্রচুর চাহিদা ব্রিটেনে

বাণিজ্য ডেস্ক   

১৮ জুন, ২০১৯ ১১:৩২ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



বাংলাদেশি মসলা ও কৃষিপণ্যের প্রচুর চাহিদা ব্রিটেনে

বর্তমানে ব্রিটেনে ১২ হাজার রেস্টুরেন্ট রয়েছে, যেখানে প্রতিবছর ৫০০ কোটি (পাঁচ বিলিয়ন) পাউন্ডের লেনদেন হয় এবং এ রেস্টুরেন্টগুলোতে বাংলাদেশে উৎপাদিত মসলা ও কৃষিপণ্যে রপ্তানির প্রচুর সুযোগ রয়েছে। ইউকে বাংলাদেশ ক্যাটালিস্টস অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি বজলুর রশিদ এসব কথা জানান। ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (ডিসিসিআই) এবং বাংলাদেশ সফররত ইউকে বাংলাদেশ ক্যাটালিস্টস অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির প্রতিনিধিদলের মধ্যে নেটওয়ার্কিং সভায় তিনি এসব কথা জানান।

গতকাল সোমবার ডিসিসিআইয়ে অনুষ্ঠিত এই সভায় তিনি আরো বলেন, বর্তমানে প্রায় ২৪০টি ব্রিটিশ কম্পানি বাংলাদেশে বিনিয়োগ করেছে এবং বাংলাদেশ বংশোদ্ভূত তরুণ ব্রিটিশ নাগরিকরা বাংলাদেশে বিনিয়োগে অত্যন্ত আগ্রহী, যা খুবই আশাব্যঞ্জক একটি বিষয়। দুই দেশের মধ্যকার বাণিজ্য সম্পর্ক আরো বৃদ্ধির জন্য ঢাকা চেম্বারের সঙ্গে একযোগে কাজ করতে আগ্রহী।

তাঁর মতে, ব্রেক্সিট-পরবর্তী সময়ে ব্রিটেনে বিনিয়োগ ও বাণিজ্য সম্প্রসারণের সুযোগ তৈরির সম্ভাবনা রয়েছে এবং এ সুযোগে বাংলাদেশি উদ্যোক্তাদের ব্রিটেনে বিনিয়োগের আহ্বান জানান।

ডিসিসিআইয়ের সভাপতি ওসামা তাসীরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় ডিসিসিআই ঊর্ধ্বতন সহসভাপতি ওয়াকার আহমেদ চৌধুরী, ইউকে বাংলাদেশে ক্যাটালিস্টস অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির চেয়ারম্যান ইকবাল আহমেদ ওবিই ডিবিএ এবং সভাপতি বজলুর রশিদ এমবিই উপস্থিত ছিলেন।

স্বাগত বক্তব্যে ওসামা তাসীর বলেন, এ মুহূর্তে বাংলাদেশে প্রায় ২০০টির মতো ব্রিটিশ কম্পানি ব্যাংকিং, জ্বালানি, অবকাঠামো, কনসালট্যান্সি, শিক্ষা প্রভৃতি খাতে বিনিয়োগ করেছে। তিনি ব্রিটেনের উদ্যোক্তাদের বাংলাদেশে তৈরি পোশাক, জাহাজ নির্মাণ, ওষুধশিল্প, কৃষি ও কৃষিজাত পণ্য, চামড়াজাত পণ্য, তথ্য-প্রযুক্তি, পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের আহ্বান জানান। অনুষ্ঠানে ঢাকা চেম্বারের পরিচালক ও কান্ট্রি কম্পিটিটিভনেস স্ট্যান্ডিং কমিটির সমন্বয়কারী পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার আকবর হাকিম বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্যের মধ্যকার দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য সম্ভাবনার ওপর একটি তথ্যচিত্র উপস্থাপন করেন। তিনি বলেন, সরকার দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণ করার জন্য ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপন করার পাশাপাশি, কর সুবিধার পাশাপাশি ওয়ান স্টপ সার্ভিস প্রদান করছে এবং এ সুযোগ গ্রহণ করে যুক্তরাজ্যের উদ্যোক্তাদের বাংলাদেশে আরো বেশি হারে বিনিয়োগের আহ্বান জানান।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা