kalerkantho

বুধবার । ২২ মে ২০১৯। ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৬ রমজান ১৪৪০

হুয়াওয়ের ‘সিডস ফর দ্য ফিউচার’ উদ্বোধন

উদ্ভাবনের লড়াইয়ে বেইজিংয়ে বাংলাদেশের ১০ মেধাবী

বাণিজ্য ডেস্ক    

২২ এপ্রিল, ২০১৯ ২৩:০৯ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



উদ্ভাবনের লড়াইয়ে বেইজিংয়ে বাংলাদেশের ১০ মেধাবী

বেইজিংয়ে হুয়াওয়ের ‘সিডস ফর দ্য ফিউচার-২০১৯’-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের মেধাবী ১০ জন আইসিটি শিক্ষার্থীদের সঙ্গে চীনের বেইজিংয়ে বাংলাদেশি দূতাবাসে নিয়োজিত রাষ্ট্রদূত এম ফজলুল করিম, দূতাবাসের কমার্শিয়াল কাউন্সিলর মো. মাহফুজুল আলম খান এবং হুয়াওয়ের অন্যা কর্মকর্তারা। ছবি: কালের কণ্ঠ

উদ্ভাবনের লড়াইয়ে সফলতা দেখিয়ে বাংলাদেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাছাই করা ১০ মেধাবী শিক্ষার্থী বেইজিং পৌঁছেছেন। তারা বিশ্বের শীর্ষ প্রযুক্তি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ের সবচেয়ে বড় সিএসআর প্রোগ্রাম ‘সিডস ফর দ্য ফিউচার-২০১৯-এর প্রতিযোগিতায় উত্তীর্ণ হয়ে প্রশিক্ষণ ও শিক্ষা সফরে চীনে গেছেন। চীনে প্রায় দুই সপ্তাহের সফরে তারা সর্বশেষ সেনজেনে হুয়াওয়ের প্রধান কার্যালয়ে বিশ্বের ১০৮টি দেশের তরুণদের সঙ্গে তারাও সামিল হবেন। 

গতকাল চীনের বেইজিংয়ে হুয়াওয়ের এক্সিকিউটিভ ব্রিফিং সেন্টারে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বাংলাদেশি ১০ জন আইসিটি মেধাবী শিক্ষার্থীকে স্বাগত জানায় বেইজিং হুয়াওয়ে কর্তৃপক্ষ। অনুষ্ঠানে চীনের বেইজিংয়ে নিয়োজিত বাংলাদেশ দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত এম ফজলুল করিম প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া চীনে বাংলাদেশ দূতাবাসের কমার্শিয়াল কাউন্সিলর মো. মাহফুজুল আলম খান এবং অন্যান্য হুয়াওয়ে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এ সময় তারা বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের ভূয়সী প্রশংসার মাধ্যমে উদ্বুদ্ধ করেন।

সিডস ফর দ্য ফিউচার প্রতিযোগিতাটি ২০০৮ সালে বিশ্বব্যাপী শুরু হয়। ২০১৮ সাল পর্যন্ত বিশ্বের ১০৮টি দেশ ও অঞ্চলে প্রতিযোগিতাটি হয়েছে। এখনো পর্যন্ত বিশ্বের ৩৫০টির বেশি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ৩০ হাজারের অধিক শিক্ষার্থী এই প্রতিযোগিতার মাধ্যমে উপকৃত হয়েছেন, যাদের মধ্যে ৩৬০০-এর বেশি শিক্ষার্থী চীনে হুয়াওয়ের হেডকোয়ার্টারে গিয়ে হাতে কলমে কাজের অভিজ্ঞতা অর্জন করেছেন বলে জানিয়েছে হুয়াওয়ে বাংলাদেশ।

বাংলাদেশে চলতি বছরের ১৭ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় ওয়েস্টিন হোটেলে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সিডস ফর দ্য ফিউচার-২০১৯ প্রতিযোগিতা শুরু হয়। পরবর্তীতে দেশের শীর্ষ ৫টি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী বাছাই প্রক্রিয়া চলে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলো হলো-বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট), ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (রুয়েট), খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (কুয়েট) এবং চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (চুয়েট)। চূড়ান্তভাবে ১০ জন শিক্ষার্থীকে বাছাই করা হয়।

চীনের বেইজিংয়ে বাংলাদেশি দূতাবাসে নিয়োজিত রাষ্ট্রদূত এম ফজলুল করিম বলেন, ‘১৯৯৮ সাল থেকে হুয়াওয়ে বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করছে। এই বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক সরকারের নেওয়া ‘ভিশন-২০২১’ বাস্তবায়নে বাংলাদেশকে এগিয়ে দিচ্ছে। সরকারের এই ভিশন যুবকদের জন্য নতুন নতুন সম্ভাবনার সৃষ্টি করেছে। বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে সিডস ফর দ্য ফিউচার ইতোমধ্যে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। সবাইকে নিয়ে একটি সংযুক্ত বিশ্ব গড়তে তারা গবেষণা ও উন্নয়ন খাতে বেশি বেশি বিনিয়োগ করছে।’

হুয়াওয়ে টেকনোলজিস (বাংলাদেশ) লিমিটেডের সিইও ঝাং জেংজুন বলেন, ‘হুয়াওয়ে এসব মেধাবী শিক্ষার্থীদের সামনে এগিয়ে নিতে চায়, যাতে তারা এই খাতের গুরুত্বপূর্ণ চালিকাশক্তি হতে পারে। হুয়াওয়ের প্রধান লক্ষ্য নতুন নতুন উদ্ভাবন করা, আর এই লক্ষ্যই কম্পানিটিকে সাফল্যের চূড়ায় আরোহনে সহায়তা করেছে। অ্যাডভ্যান্সড টেকনোলজি, গবেষণা ও উন্নয়নে বেশি বেশি বিনিয়োগ এবং সর্বোচ্চমানের সেবা সরবরাহই হুয়াওয়ের সাফল্যের মূলমন্ত্র। আমি আশা করি এই প্রোগ্রাম শিক্ষার্থীদের প্রযুক্তিগত অভিজ্ঞতা ও কাজের দক্ষতা বাড়াতে সহায়তা করবে।’

যেকোনো দেশের আইসিটি মেধাবী শিক্ষার্থীদের পরিচর্যা করতে এবং আইসিটি টেকনোলজির বিষয়ে জানাতে ও চীনের সংস্কৃতির বিষয়ে অভিজ্ঞতা অর্জন করতে শিক্ষার্থীদের সুযোগ করে দিতে চায় হুয়াওয়ে। প্রতিবছরই বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে হুয়াওয়ে মেধাবী শিক্ষার্থীদের বাছাই করে। 

মন্তব্য