kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২০ জুন ২০১৯। ৬ আষাঢ় ১৪২৬। ১৬ শাওয়াল ১৪৪০

ঈশ্বরগঞ্জে সড়ক ও সেতু ঝুঁকির মুখে

আঞ্চলিক প্রতিনিধি, ময়মনসিংহ   

২৪ মে, ২০১৮ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



ঈশ্বরগঞ্জে সড়ক ও সেতু ঝুঁকির মুখে

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জের উচাখিলা-মরিচারচর সড়ক ব্রহ্মপুত্রে নিশ্চিহ্ন হতে চললেও সেটি রক্ষার উদ্যোগ নেই। ছবি : কালের কণ্ঠ

প্রবল বর্ষণে সেতুর নিচ দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে দ্রুতবেগে। ধীরে ধীরে সেতুর নিচ থেকে মাটি সরে যাওয়ায় ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জের উচাখিলা-মরিচার চর সেতুটি ধসে পড়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

এ অবস্থায় সড়কটিও ব্রহ্মপুত্রের গর্ভে নিশ্চিহ্ন হতে চলেছে। এতে চরম দুর্ভোগে পড়বে ওই এলাকার অন্তত ২০ হাজার মানুষ।

ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার উচাখিলা ও রাজীবপুর ইউনিয়নের অবস্থান ব্রহ্মপুত্রের তীরে। এই তীরঘেঁষা চরাঞ্চলটি সবজি ভাণ্ডার হিসেবে খ্যাত। কিন্তু কয়েক বছর ধরে ব্রহ্মপুত্র নদ গতি পরিবর্তন করায় ভাঙন দেখা দিয়েছে। প্রতিবছর নতুন নতুন এলাকা ভাঙনের কবলে পড়ছে।

উচাখিলা বাজার থেকে মরিচার চর এলাকায় যাওয়ার সড়কের মুন্সীবাড়ি এলাকায় ভাঙন দেখা দিয়েছে কয়েক বছর আগেই।

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর কর্তৃক নির্মিত সড়কটি ঠেকাতে কয়েক বছর আগে বালুর বস্তা ফেলাসহ নানা উদ্যোগ নেওয়া হয়। কিন্তু কোনো কিছুতেই সড়কটি রক্ষা করা যাচ্ছে না ব্রহ্মপুত্রের করালগ্রাস থেকে। গত বছর সড়কটির মুন্সীবাড়ি এলাকায় ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। তাতে ঝুঁকি নিয়েই চলাচল করছিল গ্রামের লোকজন। ভেঙে সরু হয়ে যাওয়া সড়ক দিয়ে কোনোমতে চলাচল করলেও এটি রক্ষায় কোনো উদ্যোগ নেয়নি কেউ। ফলে চলতি বর্ষা মৌসুমে সড়কটি নিশ্চিহ্ন হয়ে কয়েক একর ফসলি জমিও নদের গর্ভে বিলীন হওয়ার শঙ্কা তৈরি হয়েছে।

সড়কটি যে এলাকায় ভাঙছে তার পাশেই ২০১৪-১৫ অর্থবছরে একটি সেতু নির্মাণ করা হয় অর্ধকোটি টাকা ব্যয়ে। ব্রহ্মপুত্র নদে যাতে পানি নেমে যেতে পারে সে জন্য দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে সেতুটি নির্মিত হয়। কিন্তু সেতুটির নিচ থেকে গত বছর মাটি সরে যেতে শুরু করে।

চলতি মৌসুমে গত কয়েক দিনের বৃষ্টির পানি সেতুটির নিচ দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় সেতুটি ঝুঁকির মুখে পড়েছে। পানিপ্রবাহে সেতুটির নিচ থেকে মাটি সরতে শুরু করায় সেতুটি যেকোনো সময় ধসে যেতে পারে বলে জানিয়েছে স্থানীয়রা। স্থানীয় কয়েকজন জানিয়েছে, যে সড়কের ওপর সেতুটির অবস্থান সেই সড়কটিও রক্ষায় কেউ উদ্যোগ নিচ্ছে না।

উচাখিলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, সড়কটি এলাকাবাসীর জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এটি নিশ্চিহ্ন হতে চললেও সড়কটি রক্ষায় কেউ কোনো উদ্যোগ নিচ্ছে না।

এ ছাড়া মুন্সীবাড়ি ঘাট এলাকায় সেতুটি নির্মাণের ত্রুটি থাকায় এটির নিচ থেকে মাটি সরে যাচ্ছে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

এ ব্যাপারে এলজিইডির উপসহাকারী প্রকৌশলী গোলাম মোস্তফা জানান, সড়কটি তাঁদের দপ্তরের হলেও এটি রক্ষায় পানি উন্নয়ন বোর্ড উদ্যোগ নেওয়ার কথা। তাঁরা এ বিষয়ে বিস্তারিত কিছু জানেন না।

এ বিষয়ে জানতে ময়মনসিংহ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপসহকারী প্রকৌশলী মো. ইউনুস আলীর সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তিনি ফোন রিসিভ না করায় তা সম্ভব হয়নি।

মন্তব্য