kalerkantho

শনিবার । ৮ কার্তিক ১৪২৭। ২৪ অক্টোবর ২০২০। ৬ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

লেখকের মেলা

বুদ্ধিবৃত্তিক এক অনন্যসাধারণ উৎসব বইমেলা

মোহাম্মদ সাদিক   

২৬ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ১৩:০২ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বুদ্ধিবৃত্তিক এক অনন্যসাধারণ উৎসব বইমেলা

১৯৫২-র ২১শে ফেব্রুয়ারি বাঙালির রক্তদানের ইতিহাস বাঙালিকে একটি স্বাধীন জাতিসত্তার মর্যাদা দিয়েছে। স্বাধীনতাসংগ্রামের পথ প্রশস্ত করেছে। এই দিনটি ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ হিসেবে স্বীকৃতি পাওয়ায় পৃথিবীর সব মানুষের, সব ভাষার জন্য একটি অনুপ্রেরণার উৎস হিসেবে আপন স্থান করে নিয়েছে। এ আমাদের গর্বের, গৌরবের, রক্ত দিয়ে রচনা করা ইতিহাসের অনন্য এক অধ্যায়।

শহীদ দিবস এবং আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসকে কেন্দ্র করেই বাংলা একাডেমির মাসব্যাপী বইমেলা। এই মেলা বাংলা একাডেমিসহ বিভিন্ন প্রকাশক কর্তৃক শুধু বই প্রকাশ কিংবা বিক্রির মহড়া নয়। বরং সারা দেশে এবং দেশের বাইরে সৃজনশীল-মননশীল জ্ঞানচর্চার এক আলোকোজ্জ্বল অধ্যায়, যাকে বাঙালির রেনেসাঁর সঙ্গে তুলনা করা যায়। বুদ্ধিবৃত্তিক এক অনন্যসাধারণ উৎসব এই বইমেলা; যা বাঙালির জন্য প্রতিবছর অসামান্য এক অর্ঘ্য হিসেবে হাজির হয়। বাঙালির প্রজ্ঞা ও দূরদৃষ্টি একে অন্যকে দেখার ও দেখানোর যে প্রবাহ উন্মোচন করেছে, তাকে সাধুবাদ জানাই।

শুধু সাহিত্য নয়, জ্ঞান-বিজ্ঞানের প্রতিটি শাখা এই ফেব্রুয়ারি ঘিরে নবজন্মের বন্দনা গায়। শুধু বই নয়, বাঙালি হৃদয়ের যে ব্যাকুলতা এই বইমেলা ঘিরে, তার নেপথ্যে আমাদের প্রভাতফেরি, ভাইয়ের জন্য ভাইয়ের ভালোবাসা, রক্তে রাঙানো দেশপ্রেম, হৃদয় থেকে উৎসারিত বর্ণমালা—আমাদের দেশপ্রেমকে নতুন মাত্রায় পৌঁছে দিয়েছে।

ইতিহাসের বাঁকে বাঁকে আমাদের ভাষাকে ‘পক্ষীর ভাষা’, ‘ম্লেচ্ছদের ভাষা’, ‘ভেতোদের ভাষা’ বলে চিহ্নিত করার হীন ষড়যন্ত্র বাঙালি তার বুকের রক্ত দিয়ে রুখে দিয়েছে। ভাষা আন্দোলনের প্রেরণাকে বাঙালির মধ্যে সঞ্চারিত করে যে মহামানব বাঙালিকে একটি জাতিরাষ্ট্র উপহার দিয়েছেন, তাঁর শততম জন্মবার্ষিকী সামনে রেখে বাঙালির এই আয়োজন এক অনির্বচনীয় আবেগ ও ভালোবাসার স্বতঃস্ফূর্ততাকে উজ্জীবিত করছে। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা বাস্তবায়নের পথে একুশ আমাদের চিরকালীন প্রেরণা। আমরা জানি, স্বয়ং জাতির পিতা ছিলেন ভাষা আন্দোলনের উষালগ্নের মহানায়ক।

আঞ্চলিক ভাষা ও লিপির প্রতি আমাদের মনোযোগ সম্প্রসারিত করা প্রয়োজন। পৃথিবীর সব মাতৃভাষার প্রতি প্রকৃত শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য সব ভাষা ও বর্ণের প্রতি মমতায় মনোযোগী হওয়া আজ সময়ের দাবি। যে রক্ত, অশ্রু, দীর্ঘশ্বাস দিয়ে আমাদের পূর্বপুরুষরা আমাদের মাতৃভাষার সম্মান পুনরুদ্ধার করেছিলেন—আমরা যেন আমাদের কর্মে ও চিন্তায় কখনো তা ভুলে না যাই।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা