kalerkantho

 ৪ ফাল্গুন ১৪২৬ । সোমবার । ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০। ২২ জমাদিউস সানি ১৪৪১

বইমেলায় সাঈদ আজাদের 'বিষণ্ন জোছনা'

কালের কণ্ঠ অনলাইন   

১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ১২:৪১ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



বইমেলায় সাঈদ আজাদের 'বিষণ্ন জোছনা'

তরুণ কথাশিল্পী সাঈদ আজাদ। সমাজের অবহেলিত প্রান্তিক মানুষের দুঃখ-দুর্দশা, আশা-হতাশা, স্বপ্ন-ভালোবাসা নিয়ে লিখেন তিনি। তাঁর গদ্যশৈলী ইতোমধ্যে পাঠকের মন কেড়েছে। তাঁর প্রথম উপন্যাস ‘অগ্নিপ্রভাত’। উপন্যাসটি তরুণ কথাশিল্পীদের নিয়ে অপ্রকাশিত প্রথম উপন্যাস হিসেবে শব্দঘর-অন্যপ্রকাশের কথাশিল্পী অন্বষণে সেরা নির্বাচিত হয়েছিল। 

চলতি বইমেলায় প্রকাশিত হয়েছে তাঁর দ্বিতীয় উপন্যাস ‘বিষণ্ন জোছনা’। এ প্রসঙ্গে কথাশিল্পী সাঈদ আজাদ বলেন, ‘বিষণ্ন জোছনা মূলত মানুষের আদিম প্রবৃত্তির প্রচ্ছন্ন বিবরণ। প্রেম, পরকীয়া, সমপ্রেম নিয়ে লেখা। মানুষের চরিত্রের একটি দিক হলো মাটির প্রতি লোভ। যার কারণে ভাইয়ে ভাইয়ে, প্রতিবেশীর সাথে প্রতিবেশীর বিবাদ হয়। মারামারি, খুনাখুনি হয়। যৌনতার মতো মাটির লোভও যেন মানুষের আদিমতম। বিষন্ন জোছনা মানুষের এসব আদিমতম তাড়নাকে ভেবেই লেখা। 

লেখক বলেন, উপন্যাসটি প্রায় নয় মাসে একটানা লিখেছি। চেষ্টা করেছি, বর্তমান গ্রামীণ সমাজের পরিবর্তিত অবস্থাকে ধরতে। এখানে উঠে এসেছে যাত্রাশিল্পের দুদর্শার বর্ণনা। এসেছে সম্পত্তি থেকে বোনদের বঞ্চিত করার বিষয়টিও। সীমিত পরিসরে হলেও ধর্মীয় কিছু কুসংস্কারের প্রসঙ্গও এসেছে। বিষণ্ন জোছনা স্বামী পরিত্যক্ত নিঃসন্তান আম্বিয়ার কাহিনি। যে কিনা একজন ধাত্রীও। যৌবনের দিনগুলোতে যে আম্বিয়া সন্তান প্রসবে সহায়তা করে, প্রৌঢ়ত্বে সে সন্তানহীন হয়ে, অবহেলায় পরের দয়ায় দিন কাটায়। 

বিষণ্ন জোছনায় জোনাকি আর তৌফিক কি নিজেদের যৌথ স্বপ্নে ঘর বাঁধতে পারবে? পারবে কি আবারো কোনো জোছনা রাতে, চাঁদের আলোয় নদী তীরের জোছনামাখা বালুতে হাঁটতে?’ এ উপন্যাসে বর্ণিত হয়েছে কিছু মানুষের মনোবেদনার আখ্যান। এর মূল উপজীব্য ভালোবাসার অদেখা অমূল্য অনুভূতি। ভাগ্যবান সে, সত্যিকারের ভালোবাসা জীবনে যে পায়। মানুষ মাত্রই ভালোবাসার কাঙাল। কেউ বুঝতে শেখার পর থেকে খুঁজতে থাকে ভালোবাসা। কেউ ভালোবাসা পেয়েও অবহেলায় এড়িয়ে যায়। কেউ বুকের মধ্যে প্রবল তৃষ্ণা নিয়ে প্রতীক্ষায় দিন গোনে, কখন ভালোবাসা তার বুকের দরজায় কড়া নাড়বে। 

বিষন্ন জোছনা হয়তো ভালোবাসার গল্প। হয়তো স্বার্থের গল্প। হয়তো পাওয়া না পাওয়ার হিসাব মিলানোর উপাখ্যান। বিষণ্ন জোছনার আলোতে ভালোবাসার স্বরূপ খুঁজে বেড়ায় বায়জিদ। জামান। ভালোবাসার অপেক্ষায় দিন কাটে জোনাকির। সায়রার। অম্বিয়ার। তৌফিকের। তারা কি পায় তাদের আকাঙ্খিত সেই আস্বাদ? কজন অসুখী মানুষের গল্প সুচারুভাবে তুলে ধরা হয়েছে বিষণ্ন জোছনায়। 

বইটি প্রকাশ করেছে বায়ান্ন প্রকাশনী। প্রচ্ছদ : তৃত। ৩৮৪ পৃষ্ঠার বইটির দাম ৬০০ টাকা। পাওয়া যাচ্ছে বইমেলায় ৩৬৩ নম্বর স্টলে।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা