kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ২৭ জুন ২০১৯। ১৩ আষাঢ় ১৪২৬। ২৩ শাওয়াল ১৪৪০

ঈদে রসুইঘরে দরকারি

ঈদের রান্নাঘর মানেই বিশাল কর্মযজ্ঞ। একেক মেন্যুর জন্য একেক রকম প্রস্তুতি। কাজ সহজ করতে চুলার পাশাপাশি ব্যবহার করুন বিভন্ন ধরনের কিচেন এপ্লায়েন্স, যা আপনার কাজে আনবে গতি। বাজার ঘুরে তেমনি কিছু যন্ত্রপাতি নিয়ে লিখছেন এ এস এম সাদ

২০ মে, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ২ মিনিটে



ঈদে রসুইঘরে দরকারি

মাইক্রোওভেন

ঝটপট খাবার গরম করতে মাইক্রোওভেনের চেয়ে ভালো বন্ধু আর কে। রমজানে ইফতারি কিংবা ঈদের নাশতা, ঝটপট ওভেনে গরম করে পরিবেশন করা যায়। বাড়িতে আগেই রেডিমেড নাশতা তৈরি করে ফ্রিজে রেখে দিন। হতে পারে চিকেন রোল বা ভেজিটেবল রোল। মেহমান এলে হুটহাট গরম করে পরিবেশন করুন। এতে যেমন দুশ্চিন্তা কমবে, তেমনি সময়ও সাশ্রয় হবে। বাজারে বিভিন্ন ধরনের মাইক্রোওভেন পাওয়া যাচ্ছে ১০০০০ থেকে ৩০০০০ টাকার মধ্যে।

 

ব্লেন্ডার

গরমে ফলের জুসে প্রশান্তি আর পুষ্টি দুটিই মেলে; কিন্তু লেবু কচলিয়ে আর কত! বাড়িতে নিয়ে আসুন ব্লেন্ডার। এতে সহজেই আম, মাল্টা, কলা, কমলা হয়ে যাবে জুস। কিংবা দুধ, কফি আর বরফ কুচি দিয়ে বানিয়ে ফেলুন ঝটপট কোল্ড কফি। এখানেই শেষ নয়, বিভিন্ন মসলা গুঁড়া করতেও জুড়ি নেই ব্লেন্ডার মেশিনের। বাজারের দেশি-বিদেশি বিভিন্ন ব্র্যান্ডের ব্লেন্ডার পাওয়া যাচ্ছে ১০০০ থেকে ১৫০০০ টাকার মধ্যে।

 

রাইস কুকার

হঠাত্ বাড়িতে বাড়তি মেহমানের আগমন। রাইস কুকার থাকলে চিন্তা নেই, ঝটপট চড়িয়ে দিন ভাত-খিচুড়ি কিংবা পোলাও। আবার সাহরিতে ধোঁয়া ওঠা গরম গরম ভাত চাইলেও সহজ সমাধান রাইস কুকার। রাইস কুকার পাওয়া যাবে ১৫০০ থেকে ১৫০০০ হাজার টাকার মধ্যে।

ইন্ডাকশন কুকার

খুব দ্রুত রান্না করতে ইন্ডাকশন কুকার ব্যবহার করুন। কম বিদ্যুত্ খরচ আর আগুনের ঝামেলা না থাকায় মানুষ ইন্ডাকশন চুলা ব্যবহার করছে। বিশেষ করে যেসব এলাকায় গ্যাস থাকে না তাদের জন্য এটি বিপদের বন্ধু। এতে সব ধরনের রান্না করা যায় এবং তাপমাত্রা প্রয়োজনমতো বাড়ানো ও কমানো যায়। রয়েছে বিশেষ টাইমার, তাই নির্দিষ্ট সময় এটি নিজে নিজে বন্ধ হয়ে যায়। পোর্টেবল হওয়ায় যেখানে খুশি, সেখানে রান্না করতে পারবেন। এখন বাজারে ডাবল ইন্ডাকশন কুকারও পাওয়া যাচ্ছে। সিঙ্গেল ইন্ডাকশন কুকার ২০০০ থেকে ৫০০০ এবং ডাবল ৯০০০ থেকে ১৫০০০ টাকায় কিনতে পারবেন।

মন্তব্য



সাতদিনের সেরা