kalerkantho

সোমবার । ২৪ জুন ২০১৯। ১০ আষাঢ় ১৪২৬। ২০ শাওয়াল ১৪৪০

ঈদ ফ্যাশন ২

পাঞ্জাবি-শার্ট

সকালের শুরুটা হয় পাঞ্জাবিতেই। এর বাইরে সারা দিনের স্বাচ্ছন্দ শার্ট কিংবা টি-শার্টে। চলছে গ্রীষ্মের খরা, তাই আবহাওয়া বুঝে বেছে নিন পোশাক। সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে ছেলেদের ঈদ পোশাক বাজারের হাল জানাচ্ছেন নাঈম সিনহা

২০ মে, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৬ মিনিটে



পাঞ্জাবি-শার্ট

মডেল : ইমরান, নিহাফ। শার্ট : ওটু। পাঞ্জাবি : মান্যবর। মেকআপ : সাফির। স্টাইলিং: টনি মাহমুদুল। সেট: লিভিং কনসেপ্ট। ছবি : জ্বীম

ঈদের দিনের শুরুটা পাঞ্জাবিতেই পারফেক্ট। এবারে গ্রীষ্মের ঈদে গরমটা একটু চড়াই থাকবে। তাই গায়ে চড়া রঙের পাঞ্জাবি না লাগানোই ভালো। চিরায়ত শুভ্র সাদা কিংবা অফহোয়াইট রং বেছে নিতে পারেন। আর যাঁরা ঈদের পোশাকে উত্সবের বর্ণিল আমেজ চান, তাঁরা বেছে নিন যেকোনো পছন্দের রঙের হালকা শেড। যাকে বলে কুল কালার।

গরমে সুতিই সেরা। তবে উত্সব বলে কথা, তাই কিছুটা চাকচিক্য তো থাকতেই হয়। সে ক্ষেত্রে বেছে নিন সিল্ক, অ্যান্ডি সিল্ক, আদ্দি, খাদি, লিনেনের মতো আরামদায়ক কাপড়ের পাঞ্জাবি। গত কয়েক বছরে পাঞ্জাবির ডিজাইনে পরিবর্তন এসেছে। পাঞ্জাবির নকশা এখন আর গলায় আর বুকের কাজে সীমাবদ্ধ নেই। পুরো হাতায়, কাঁধে কিংবা পুরো জমিনে ছড়িয়ে পড়েছে নকশা। হাতের কাজ বা এমব্রয়ডারি আগের মতো থাকলেও উপস্থাপনে ভিন্নতা এসেছে। প্রাধান্য পেয়েছে ফ্লোরাল, জিওম্যাট্রিক, ইসলামিক ক্যালিগ্রাফি ও দেশীয় মোটিফ। তবে ডিজাইন যা-ই হোক, গরমে ঈদের পাঞ্জাবি কেনার সময় মাথায় রাখুন সেটি যেন বেশি জবরজং না হয়। তাতে পরতে ও দেখতে অস্বস্তি লাগবে। পাঞ্জাবির কাটে এবার উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন নেই। লং, সেমি লং, শর্ট এবং স্লিম ফিট ও রেগুলার ফিটের পাঞ্জাবি করেছে ফ্যাশন হাউসগুলো। নিজের স্বচ্ছন্দের কথা ভেবেই বেছে নিন পাঞ্জাবি। খেয়াল রাখুন মোটা, বড় কলারের পাঞ্জাবিতে যাতে গরমে আঁটসাঁট না লাগে।

কে ক্রাফটের ডিজাইনার শায়লা নূর জানালেন, ‘হালকা কাপড় হিসেবে পাঞ্জাবিতে কটন, আদ্দি, টু টোনের কাপড়ের ব্যবহার হয়েছে। উত্সবের আমেজ আনতে এক্সক্লুসিভ পাঞ্জাবিতে সিল্ক ও অ্যান্ডি সিল্কের ব্যবহার হয়েছে। রঙে প্রাধান্য পেয়েছে হালকা রং। তবে অনেকেই উত্সবের দিনটাতে একটু গাঢ় রং পরতে চান। তাঁদের জন্য চিরাচরিত লাল-খয়েরির পাশাপাশি ব্লু, টার্কিশ ও সবুজের মতো রঙের পাঞ্জাবি করা হয়েছে। আর ছেলেদের পছন্দের সাদা, কালো, অফহোয়াইট, ধূসর রংগুলোও আছে।’

যমুনা ফিউচার পার্কের কে ক্রাফটের শোরুম ঘুরে দেখা গেল, ডিজাইনের ক্ষেত্রে ট্রাইবাল ও জ্যামিতিক মোটিফের বাইরে ব্যতিক্রমী ফুলেল ও জ্যামিতিক ফিউশন। ছেলেদের পাঞ্জাবিতে সরাসরি ফুল না এলেও ফিউশন হয়েছে। গুজরাটি, নকশি, ক্রস স্টিজ, শেড ওয়ার্ক, কাশ্মীরি হাতের কাজের নকশা পাঞ্জাবিতে প্রিন্ট হয়েছে। ভয়েল কাপড়ে রয়েছে আরামদায়ক বাটিকের পাঞ্জাবি। টাই-ডাই থেকে বেরিয়ে ব্যতিক্রম ডিজাইনের ব্রাশডাই করা হয়েছে।

রঙ বাংলাদেশ থিমনির্ভর ইসলামিক নকশা, ফ্লোরাল ও ইন্ডিয়ান টেক্সটাইল পাঞ্জাবি এনেছে। বাংলাদেশের সংস্কৃতি ও ধর্মীয় আবহকে গুরুত্ব দিয়ে পাঞ্জাবিতে এসেছে দেশীয় ভাব। বুকের একপাশে ফ্লোরাল নকশায় কনট্রাস্ট করা হয়েছে। পাঞ্জাবির হাতায় বর্ডার লাইন করে হালকা নকশাও থাকছে। প্রাধান্য পেয়েছে লাল, অফহোয়াইট, বিস্কিট, মেজেন্টা, পেস্ট, নেভাল ব্লু ও কফি রং। ভ্যালু অ্যাডেড মিডিয়া হিসেবে স্ক্রিনপ্রিন্ট, ব্লকপ্রিন্ট, হ্যান্ডওয়ার্ক, কারচুপি, মেশিন এমব্রয়ডারি, টাই অ্যান্ড ডাইয়ের ব্যবহার হয়েছে। কাপড় হিসেবে তাঁতে বোনা সুতি, লিনেন, মসলিন, হাফ সিল্ক, অ্যান্ডি কটন ও ভয়েল ব্যবহার হয়েছে।

জমকালো পাঞ্জাবির জন্য জনপ্রিয় মান্যবর। যমুনার ফিউচার পার্কের মান্যবরের শাখা প্রধান জহিরুল ইসলাম জানালেন, এবারের বিশেষ আকর্ষণ ক্রিকেটার বিরাট কোহলিকে নিয়ে করা ‘বিরাট কালেকশন’। এই কালেকশনে রয়েছে হালকা ও ভারী কাজের সিঙ্গেল পাঞ্জাবি এবং কটি-পাঞ্জাবি-পাজামা সেট। এ ছাড়া ছিমছাম সুতির একরঙা পাঞ্জাবি করা হয়েছে। যার মূল আকর্ষণ কালার টোন। বেশ কিছু সফট ও কুলটোনের কালারের পাশাপাশি ওয়ার্ম কালারের হালকা শেডের প্রায় ২০টি রঙের পাঞ্জাবি মিলবে। হালকা তসর, সিল্ক, মিক্স ও সিনথেটিক পাঞ্জাবিগুলোতেও পাতলা কাপড়ের ব্যবহার হয়েছে। যা গরমে আরাদদায়ক। রয়েছে আদি ও খাদি কাপড়ের সাদা পাঞ্জাবি। আছে গর্জিয়াস লক্ষ্নৌ স্টিচ পাঞ্জাবি। এর জমিনজুড়ে রয়েছে ফ্লোরাল মোটিফের সুতার কাজ।

ফ্যাশন হাউস ওটু ঈদে এনেছে নতুন নকশার পাঞ্জাবি ও শার্ট। ঈদে ছেলেদের শার্টের কালেকশন নিয়ে ওটুর ডিজাইনার জাকির হোসেন জানালেন, ‘এবারের ঈদে সামার কালেকশনকে প্রাধান্য দিয়ে ডিজাইন হয়েছে। আবহাওয়া উপযোগী লং স্লিভ ও শর্ট স্লিভের শার্ট রাখা হয়েছে। কাপড় হিসেবে ব্যবহার করেছি কটন, লিনেন, মিক্স সফট সিল্ক। শার্টের পকেটের ডিজাইনে বৈচিত্র্য এসেছে। বুক পকেটে নানা রকমভাবে সেলাইয়ের ভাঁজ দেওয়া হয়েছে। যা শার্টের লুকে পরিবর্তন এনেছে। ফরমাল শার্টের পাশাপাশি স্ট্রাইপ, চেক ও প্রিন্টেড ফ্লোরাল মোটিফে নকশা রয়েছে শার্টে। প্রিন্টেড ডিজাইনে ছিমছাম ভাব এসেছে পাতলা শার্টগুলোতে। যা গরমে বেশ আরামদায়ক।’

ইজির ঈদ আয়োজনে রয়েছে বিভিন্ন ডিজাইন ও বিভিন্ন রঙের টি-শার্ট ও পলো শার্ট। কাট ও প্যাটার্নে তেমন কোনো পরিবর্তন আসেনি। তবে স্ট্রাইপ ও প্লেইন কালার কম্বিনেশন এসেছে। অর্ধেক স্ট্রাইপ ও অর্ধেক এক রঙা সংমিশ্রণও করা রয়েছে। রয়েছে বড় ও ছোট স্ট্রাইপের বিভিন্ন ডিজাইনের টি-শার্ট ও পলো টি-শার্ট।

নিপুণ

কলকা, ফ্লোরাল মোটিফ, ইকাট প্রিন্ট এবং ইসলামিক মোটিফের পোশাক নিয়ে এসেছে নিপুণ। গরমে স্বস্তি দিতে ল্যাভেন্ডার, মিনারেল পিংক, অরেঞ্জ, অ্যাশ, ফিরোজা, ব্লু, গ্রিন, পেস্ট, অফহোয়াইট রং প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। রাতের পার্টির জন্য রয়েছে কালো, কফি এবং সোনালি রঙের কম্বিনেশনের পোশাক। সুতি ভয়েল, লিনেন, ভিসকস, মসলিন, হাফসিল্ক, জয়সিল্ক, এন্ডি কটন কাপড়ে তৈরি হয়েছে কুর্তি, সালোয়ার-কামিজ, শাড়ি, পাঞ্জাবি, শার্ট, ফতুয়া, বাচ্চাদের ফ্রক ও কামিজ।

সারা

সুতি কাপড়ের বৈচিত্র্যময় আধুনিক প্যাটার্ন, প্রিন্ট ও হাতের কাজের পোশাক এনেছে সারা। মেয়েদের জন্য থাকছে শার্ট, টপস, শ্রাগ, এথনিক কুর্তি, এথনিক থ্রিপিস, এথনিক পার্টিওয়্যার ও পার্টি শাড়ি। ছেলেদের জন্য থাকছে টি-শার্ট, পোলো, পাঞ্জাবি, ক্যাজুয়াল শার্ট, ফরমাল শার্ট, চিনো প্যান্ট, প্রিমিয়াম ডেনিম, জগার্স, কার্গো প্যান্ট। শিশুদের জন্য টি-শার্ট, পোলো শার্ট, পাঞ্জাবি, প্রিমিয়াম চিনো প্যান্ট, টপস, স্কার্ট সেট ও ফ্রক।

আড়ং

ঈদ উপলক্ষে নতুন ডিজাইনের পোশাক নিয়ে এসেছে আড়ং। সালোয়ার-কামিজ সেট, পাঞ্জাবি, শাড়িসহ সব ধরনের পোশাক পাওয়া যাবে আড়ংয়ে। পুরনো ঐতিহ্যের সঙ্গে আধুনিকতার মিশেলে ডিজাইন করা হয়েছে পোশাক। ব্যাগ, জুতা, গয়না থেকে শুরু করে পাওয়া যাবে নতুন ডিজাইনের উপহার সামগ্রীও।

লা রিভ

এবার ঈদে নতুন ডিজাইন ও প্যাটার্নের পোশাক এনেছে লা রিভ। ছেলেদের প্রিন্টের কাজের পাঞ্জাবিতে সেলাইয়ে ভিন্নতা আনা হয়েছে। গ্রীষ্মে আরাম দিতে মেয়েদের জন্য থাকছে চিক প্রিন্টেড কাফতান। এ ছাড়া ছোট-বড় সবার জন্য থাকছে ফ্রক, সালোয়ার-কামিজ, কুর্তি, শার্ট, প্যান্ট, পায়জামাসহ অন্যান্য পোশাক।

মন্তব্য