kalerkantho

শুক্রবার । ২১ জুন ২০১৯। ৭ আষাঢ় ১৪২৬। ১৮ শাওয়াল ১৪৪০

ইন্টেরিয়র

জোনাক বাতি

জোনাকি পোকার মত থোকা থোকা আলো, নাম ফেইরি লাইট। ঘরের সাজে আগে শুধু ক্রিসমাসেই জনপ্রিয় ছিল। এখন বিভিন্ন শোপিস থেকে শুরু করে যেকোনো ঘরেই ভিন্ন লুক আনতে ব্যবহার হচ্ছে এই বাতি। কোথায় কিভাবে সাজাবেন পরামর্শ দিয়েছেন আর্কিডেন ইন্টেরিয়রের আর্কিটেক্ট সোহেলি সায়মা সেঁজুতি। লিখেছেন এ এস এম সাদ

২৯ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



জোনাক বাতি

ড্রয়িংরুম

যেকোনো ঘরোয়া অনুষ্ঠানে বসার ঘর সাজাতে পারেন ফেইরি লাইটের স্নিগ্ধ আলোকচ্ছটায়। যেমন জন্মবার্ষিকীতে হ্যাপি বার্থ ডে, বিবাহবার্ষিকীতে হার্ট অথবা আপনার পছন্দের ডিজাইন দিয়েও সাজিয়ে নিতে পারেন। দেয়ালের যেকোনো নকশাকে হাইলাইট করতে রঙিন ফেইরি লাইটের বর্ডার করে দিতে পারেন। যেমন দেয়ালের পর্দায় পেলমেটের অংশে, ওয়াল হ্যাংগিং শোপিসের চারপাশে লাগাতে পারেন। স্বচ্ছ কাচের বোতল বা বড় গোল বয়ামের মধ্যে অনেকগুলো পাথর ও ফেইরি লাইট রেখে তার মধ্যে ফুলদানি দিলে বসার ঘরে বেশ একটা জমকালো লুক আসবে। ইনডোর প্ল্যান্ট থাকলে সেখানেও নানাভাবে ফেইরি লাইট ব্যবহার করা যেতে পারে। সন্ধ্যা বা রাতের অনুষ্ঠানে হরেক রঙের ফেইরি লাইটের ঝিলিমিলি খেলা ঘরে মুহূর্তেই উত্সবের আমেজ এনে দেবে।

শোবার ঘরে

টিনএজ বা শিশুর ঘরে বৈচিত্র্য আনতে ফেইরি লাইটের জুড়ি নেই। দরজার ওপরে, জানালার পর্দায়, ড্রেসিং টেবিলের আয়নার চারপাশে ব্যবহার করুন ফেইরি লাইট। ডিমলাইটের বিকল্প হিসেবেও দারুণ কাজে দেবে এই আলো। ঘরের দেয়ালে সন্তানের পছন্দের যেকোনো কিছুর আকৃতি ফেইরি লাইটে সাজাতে পারেন। হতে পারে সেটা সাইকেল, জিপগাড়ি, ফুটবল, বাস্কেট বল, ব্যাডমিন্টন বা মিকি মাউসের আদল। ছিমছাম, অথচ ভারি মজার দেখতে হবে এই সাজ। সন্তানের জন্মদিনের নানা সময়ের ছবি প্রিন্ট করে আঠা দিয়ে ফেইরি লাইটের তারের সঙ্গে লাগিয়ে দেয়ালে ঝুলিয়ে দিতে পারেন। বেশ একটা চমকে দেওয়ার মতো উপহার হবে, সঙ্গে বাড়তি পাওনা ঘরের সাজ। বড়দের ঘরেও এই সাজ সমান মানানসই।

বারান্দা

ফ্ল্যাটের বারান্দা সাজাতে সাজিয়ে তুলতে পারেন ফেইরি লাইটে। বিভিন্নভাবে ব্যবহার করা যায় এই লাইট। বারান্দার কর্নারে একসঙ্গে দেয়াল ঘেঁষে ছোট-বড় পটারিতে বিভিন্ন ইনডোর প্ল্যান্টস রাখুন। জায়গা একটু বড় হলে সেখানে ল্যান্ডস্কেপ থিমে সাজান। কয়েকটি পটারিতে গাছের পাশাপাশি একটি মাটির চারিতে পানি রাখুন। তাতে কিছু রঙিন মোম ও ভাসমান ফুল দিন। চারির আশপাশে ছোট-বড় বিভিন্ন আকৃতির পাথর ও ইটের টুকরা রাখুন। দুয়েকটি মাটি বা মেটালের মূর্তিও রাখতে পারেন। সঙ্গে দু-একটি গাছের গুঁড়ি। ল্যান্ডস্কেপের মাঝে মাঝে লতানো গাছের মতো কয়েক রঙের ফেইরি লাইট পেঁচিয়ে দিন। বারান্দায় ঝুলন গাছ থাকলে প্লাস্টিক বা কাচের বোতলে ফেইরি লাইট ভরে সিলিং থেকে ঝুলিয়ে দিতে পারেন।

খোঁজখবর

ঢাকার উত্তরার লাইটিং সিটি, লাইটিং সেন্টার ও গুলশানের লাইটিং ওয়ার্ল্ড এসব লাইট বিক্রি করে থাকে। মোহাম্মদপুরের কৃষি মার্কেট, টাউন হল, শাহবাগের আজিজ সুপার মার্কেট, পুরান ঢাকার নবাবপুর, ধানমণ্ডি, পল্টন, বিজয়নগর ও নিউ মার্কেটের বিভিন্ন দোকানেও ফেইরি লাইট কিনতে পাওয়া যায়। ডিজাইন, রং ও দৈর্ঘ্য অনুযায়ী দামও হয় ভিন্ন ভিন্ন। ফুট অনুযায়ী দাম ২০০ থেকে ৭০০ টাকা। আর কটন বল ফেইরি লাইট সেট কিনতে পাবেন ৫০০ থেকে ৭৫০ টাকার মধ্যে।

মন্তব্য