kalerkantho

শুক্রবার । ২৪ মে ২০১৯। ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬। ১৮ রমজান ১৪৪০

কণ্ঠের যত্ন

ঠাণ্ডা লেগে বা অন্য কোনো কারণে একদিন কথা বন্ধ থাকলেই বোঝা যায় কণ্ঠের গুরুত্ব। কণ্ঠের যত্ন তাই নিতে হবে নিয়ম করে। পরামর্শ দিয়েছেন বিশ্ব কলা কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ রেজাউর রহমান। শুনেছেন এ এস এম সাদ

১ এপ্রিল, ২০১৯ ০০:০০ | পড়া যাবে ৩ মিনিটে



কণ্ঠের যত্ন

পানি দিয়ে গড়গড়া

সকালে, বিশেষ করে ঘুম থেকে ওঠার পর গরম পানি দিয়ে গড়গড়া করে গলা পরিষ্কার করে নিতে পারেন। বেশি জোরে গড়গড়া করতে যাবেন না, প্রথমে ধীরে ধীরে গড়গড়া করে তারপর চাপ বাড়াতে থাকুন। 

 

স্কেল মেনে কথা

হঠাত্ করে উচ্চৈঃস্বরে কথা বললে যেমন গলার জন্য সমস্যা হতে পারে, ঠিক তেমনি ফিসফিস করে কথা বলাতেও স্বরে বিরূপ প্রতিক্রিয়া পড়তে পারে। অর্থাত্ একটি আদর্শ স্কেল বা কণ্ঠস্বরের স্তর বজায় রেখে কথা বলতে হবে।

 

পর্যাপ্ত পানি

কণ্ঠ সুরকে শ্রুতিমধুর রাখতে হলে অবশ্যই পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি পান করতে হবে। প্রতিদিন তিন থেকে চার লিটার পানি পান করা আবশ্যক। 

 

ঠাণ্ডা পানি পরিহার

কণ্ঠ সুস্থ রাখতে ঠাণ্ডা পানি পরিহার করতে হবে। অনেক সময় গরমের মধ্যে বাইরে থেকে এসে হুট করেই আমরা ঠাণ্ডা পানি পান করি, যা আমাদের গলার জন্য ক্ষতিকর। হঠাত্ ঠাণ্ডা পানি পান করলে গলা বসে যেতে পারে, এতে কণ্ঠের স্বাভাবিক সুরের ব্যত্যয় ঘটে।

 

ধূমপান পরিহার

কণ্ঠ সুস্থ রাখতে কিছু বদ-অভ্যাস পরিহার করতে হবে। বিশেষ করে ধূমপান গলার স্বর পরিবর্তন করে দিতে পারে। ধূমপানের কারণে কণ্ঠে বিভিন্ন রোগ দানা বাঁধে। কণ্ঠই যদি হয় জীবিকা চালানোর অবলম্বন, তাহলে ধূমপানসহ অন্যান্য মাদক সেবন থেকে নিজেকে দূরে রাখুন।  

 

তেঁতুল পরিহার

তেঁতুল অনেক সময় কণ্ঠের জন্য ক্ষতির কারণ হতে পারে। সংবাদ পাঠ, কবিতা আবৃত্তি—অর্থাত্ বাচনভঙ্গি নিয়ে কাজ করলে তেঁতুল খাওয়া থেকে বিরত থাকুন।  

 

ঘেমে না থাকা

সারা দিন কাজকর্মে, চলাফেরায় ঘাম হয়; কিন্তু বেশিক্ষণ ঘামে ভেজা অবস্থায় থাকা যাবে না। বিশেষ করে ঘাম অনেকক্ষণ ধরে শরীরে থাকলে ঠাণ্ডা লেগে যেতে পারে। 

 

যষ্টিমধু

এটি গলার জন্য উপকারী। বিশেষ করে যাঁরা সংবাদ পাঠক, তাঁদের জন্য বেশ উপকারী। যষ্টিমধু নিয়মিত খেলে কণ্ঠ দৃঢ় ও পরিষ্কার হয়।

 

রোজ সকালে রেওয়াজ

কণ্ঠকে শ্রুতিমধুর করতে এর পেছনে সময় ও পরিশ্রম দুই-ই ব্যয় করতে হবে। বিশেষ করে যাঁরা সংগীতশিল্পী, তাঁরা প্রতিদিন সকালে বিভিন্ন রকমের কণ্ঠের ব্যায়াম ও রেওয়াজ করতে পারেন। এ ছাড়া সেমিনারে কিংবা অফিসের কোনো অনুষ্ঠানে কথা বলতেও কণ্ঠকে প্রতিদিন রেওয়াজের মধ্যে রাখুন।

 

ওষুধে সতর্কতা

অ্যান্টিহিস্টামিন, ডিকনজেসটেন্ট, অ্যান্টিডিপ্রেসেন্ট, অ্যাসপিরিন, আইব্রুপ্রোফেন ইত্যাদি ব্যবহারে সতর্ক হতে হবে। প্রয়োজনে বিশেষজ্ঞের পরামর্শ মেনে চলতে হবে।

মন্তব্য